০৪ জুলাই ২০২২, ২০ আষাঢ় ১৪২৯, ৪ জিলহজ ১৪৪৩
`

ইসরাইলের বুলডোজার এখন ভারতে

ফাতিমার পরিবারের দোতলা সাজানো বাড়িটি বুলডোজার দিয়ে গুঁড়িয়ে দেয়া হয়েছে। - ছবি : সংগৃহীত

এতদিনকার খবর ছিল, ফিলিস্তিনিদের বাড়িঘর বুলডোজার দিয়ে গুঁড়িয়ে দিচ্ছে ইসরাইল। গাজা, রামাল্লা, পশ্চিমতীর, জেনিনসহ ফিলিস্তিনের কয়েক ডজন জনপদের নাম পরিচিতি পেয়েছে ঘরবাড়ি হারানো মানুষের আর্তনাদে। ইসরাইল এই নীতি নিয়েছে মানুষের স্বতঃস্ফূর্ত প্রতিবাদের শক্তিকে স্তব্ধ করে দেয়ার জন্য। দেশটি প্রশাসনিক উদ্যোগে এ নির্মম অমানবিক ধ্বংসাত্মক কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। সরাসরি সরকারি প্রশাসনের ছত্রছায়ায় জনপদের অধিবাসীদের উচ্ছেদ করার উদ্যোগ পৃথিবীর অন্য কোথাও দেখা যায় না। এ পর্যন্ত তারা ফিলিস্তিনিদের তিন হাজারের বেশি ঘরবাড়ি পিষে ফেলেছে। ভিটেমাটি থেকে মানুষকে উপড়ে ফেলার নির্দয় কার্যক্রম সারা বিশ্বে ধিকৃত ও নিন্দিত হলেও গায়ের জোরে ইসরাইলিরা চালিয়ে যাচ্ছে।

চরম নিন্দনীয় কাজটি এবার শুরু করেছে বিশ্বের বৃহত্তম গণতান্ত্রিক দেশ ভারত। উত্তরপ্রদেশে যোগী আদিত্যনাথের সরকার বুলডোজার দিয়ে গুঁড়িয়ে দিয়েছে এক মুসলমানের দোতলা বাড়ি। ‘অপরাধ’ হচ্ছে বাড়ির বাসিন্দা মোহাম্মদ এবং তার মেয়ে ফাতিমা মুসলমানদের স্বার্থ রক্ষায় প্রতিবাদ-সমাবেশের আয়োজনে ‘ইন্ধন’ দিয়েছেন। ফাতিমা একজন ছাত্রনেতা। তার বাবা স্থানীয় একটি রাজনৈতিক দলের সদস্য। জনবসতি উচ্ছেদে ইসরাইল কিছু আইন করেছে; তারা মোটামুটি সেটি মানে। প্রথমে তারা বাড়ির মালিকের বিরুদ্ধে তার ‘অপরাধ’ উল্লেখ করে নোটিশ দেয়। ভারতের উত্তরপ্রদেশে এ বাড়ি উচ্ছেদে সরকার কোনো আইন নিয়মকানুন অনুসরণ করেনি। উচ্ছেদের পর যে সরকারি ভাষ্য পাওয়া যাচ্ছে তাতে বলা হয়েছে, বাড়িটি অবৈধভাবে তৈরি করা হয়েছে। এ অভিযোগ তারা আনছে পরিবারের প্রধান মোহাম্মদের বিরুদ্ধে। কিন্তু বাড়িটির প্রকৃত মালিক তার স্ত্রী। ভারত সরকার এতটাই বেপরোয়া হয়ে উঠছে, ইসরাইল যে ন্যূনতম ভদ্রতা বজায় রাখে তাও তারা রাখতে পারেনি। এখনো ইসরাইল রাষ্ট্রের নামে আগে সেঁটে যাওয়া ‘বর্ণবাদী’ দুর্নামটি ভারতের বিরুদ্ধে লাগেনি। মন্দির নির্মাণের জন্য এরই মধ্যে ভারত সরকার আসাম ও ত্রিপুরায় মুসলমানদের বসতি উচ্ছেদ করেছে। রাজধানী দিল্লিতেও একই অভিযান প্রশাসন চালিয়েছে।

ফিলিস্তিনিদের প্রতি ভারতের একটি অঙ্গীকার ছিল। বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহৎ মুসলমান অধ্যুষিত দেশ হিসেবে এ অঙ্গীকার তারা রক্ষা করে চলছিল। মুসলমান জনসংখ্যার স্বার্থ বিবেচনায় ইসরাইল-ফিলিস্তিন নিয়ে একটি ভারসাম্য নীতি তারা দীর্ঘ দিন বজায় রেখেছিল। নরেন্দ্র মোদি ক্ষমতায় আসার পর ‘শত্রুর শত্রু বন্ধু’ হওয়ার নীতি এখানে তুরুপের তাস হয়েছে। দেশটির ইসরাইল নীতি তাই বদলে গেছে। ২০১৭ সালে মোদির ইসরাইল সফরের পর সেটি পুরোপুরি ভিন্ন দিকে মোড় নেয়। ভারত-ইসরাইল এখন কৌশলগত মিত্র ও অংশীদার। উভয় জায়গায় নির্দয়তার শিকার বৈশ্বিক পরাশক্তির সমর্থনহীন দুর্বল মুসলমানরা। ইসরাইল যেমন তাদের অস্তিত্বের জন্য মুসলমানদের শত্রু বলে গণ্য করে, বিজেপির নেতৃত্বে ভারত সরকার ঠিক একই ধরনের মত পোষণ করে। মুসলমানদের উৎখাতে এখন ইসরাইলের মতোই ভারত বেপরোয়া।

নবী অবমাননা নিয়ে মুসলমান দেশগুলোর বড় ধরনের প্রতিক্রিয়ার পর গণতান্ত্রিক দেশ হিসেবে ভারতের নমনীয় হওয়ার কথা ছিল; বিশেষ করে তাদের ওপর এর গভীর অর্থনৈতিক প্রভাব পড়ার আশঙ্কা যেখানে তৈরি হয়েছে। পরিস্থিতি সামাল দেয়ার জন্য অপরাধীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া প্রাধান্য পাওয়ার কথা ছিল। তার বদলে দেশজুড়ে মুসলমানদের ওপর উল্টো নিপীড়নের স্টিম রোলার নেমে আসছে। ভাইরাল হওয়া একটি ভিডিওফুটেজে দেখা যাচ্ছে, নির্মম পেটাচ্ছে পুলিশ কাস্টডিতে থাকা একদল মুসলমান তরুণকে। ১৮ জুন বিবিসি এক খবরে জানাচ্ছে, এটি কয়েক মিলিয়ন মানুষ দেখেছে। বিজেপির একজন নির্বাচিত কর্মকর্তা নির্যাতনের ঘটনাটি শেয়ার করে লিখেছেন, মুসলমানদের প্রতি এটি ‘গিফট’। এ সব তরুণ গত জুমার নামাজ শেষে সাহরানপুরে মিছিলে অংশ নিয়েছিল। ওই মিছিলটি ছিল শান্তিপূর্ণ। এ অপরাধী পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে কোনো ধরনের ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। অরুন্ধতী রায় বলেছেন, ভারতে মুসলমানরা এখন কোনো ধরনেরই প্রাতিষ্ঠানিক সুবিধা পাচ্ছেন না। পুলিশ, বিচার বিভাগ এমনকি প্রশাসনের কোনো জায়গা থেকে তাদের অধিকার দেয়া হচ্ছে না। বিজেপি সরকারের সেনাবাহিনীর নতুন নিয়োগ নীতি নিয়ে ভারতজুড়ে এক দল ট্রেন জ্বালিয়ে দিয়েছে, রাস্তা অবরোধ করেছে; এমনকি তারা বিজেপির অফিস পুড়িয়ে দিয়েছে। ওই সব লোকের বাড়িঘর গুঁড়িয়ে দেয়া হয়নি।’ এটি অরুন্ধতী রায় আলজাজিরায় প্রকাশিত বক্তব্যে উল্লেখ করেছেন। বিজেপির উদ্দেশ্য বুঝতে তাই অসুবিধা হয় না। তারা পুরো ভারতকে আরেকটি ফিলিস্তিন বানাবে। মুসলমানদের তাড়িয়ে দেয়ার নীতিই তারা বাস্তবায়ন করবে। এরই পদ্ধতিগত হিংসাত্মক পদক্ষেপ এগিয়ে চলেছে।

ভারতের প্রতিবেশী নীতি
ভারতের প্রতিবেশী নীতি দেশটির জন্মলগ্ন থেকে নানা অস্পষ্টতা আর বৈপরীত্যের জটিলতায় আড়ষ্ট। আশপাশের একটি দেশের সাথেও স্বচ্ছ বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে তুলতে পারেনি ভারত। এমনকি যে হিন্দুত্ব শ্রেষ্ঠত্ববাদী নীতি প্রতিষ্ঠায় মোদি সরকার লজ্জাশরমের মাথা খেয়ে নেমেছে, সেই হিন্দুদের একমাত্র রাষ্ট্র নেপালকেও তারা বন্ধু বানাতে পারেনি। মোদি ক্ষমতায় আসার পর ‘প্রতিবেশী প্রথম’ নীতি ঘোষণা করেন। এ নীতির কোনো ইতিবাচক প্রভাব প্রতিবেশী একটি দেশেও লক্ষ করা যায়নি; বরং এ অঞ্চলের জনগণের মধ্যে সহযোগিতার সেতু রচনাকারী আঞ্চলিক সহযোগিতা সংস্থা সার্ক অচল হয়ে গেছে। এর প্রতিটি কার্যক্রম মুখ থুবড়ে পড়েছে। অত্র অঞ্চলে চলমান বড় সঙ্কটগুলোর একটিও দেশটি নিজেদের বৃহৎ শক্তিমত্তার সুযোগ নিয়ে সমাধান করে দিয়েছে, এমন নজির নেই। রোহিঙ্গা সঙ্কটে তারা নিপীড়নকারী দেশ মিয়ানমারের পক্ষে অবস্থান নিয়েছে। আফগানিস্তান সঙ্কটে একচেটিয়া পুতুল সরকারের ধামাধরা হয়ে সেখান থেকে ছিটকে পড়েছে।

ভারতকে প্রতিবেশীরা কতটা অবিশ্বাস ও সন্দেহ করে শ্রীলঙ্কার গণঅভ্যুত্থানে সেটি নতুন করে দেখা গেল। মাহিন্দা রাজাপাকসের পালানোর সময় গুজব ছড়িয়ে পড়ে, তারা ভারতে পালিয়ে যাচ্ছেন। ওই সময় আরেকটি গুজব চার দিকে রটে যায়, স্বৈরশাসকদের রক্ষা করতে ভারত সেনাবাহিনী পাঠাচ্ছে। এটি আর গুজব থাকল না যখন শ্রীলঙ্কার মেইনস্ট্রিম সংবাদমাধ্যম খবর প্রকাশ করে দিলো। এ অবস্থায় সেদেশে ভারতীয় হাইকমিশনার হতাশ হয়ে ১০ মে টুইটারে তার কঠোর প্রতিক্রিয়া জানালেন। তিনি পরিষ্কার করে বললেন এ ধরনের খবর ভারত সরকারের নীতির সাথে কোনোভাবে ‘যায় না’। হাইকমিশনার যতই হতাশ আর বিরক্ত হন না কেন, দক্ষিণ এশিয়ার রাজপরিবারগুলোকে একতরফা অন্ধভাবে সমর্থন প্রত্যাহার না করলে ভারতের প্রতি মানুষের মনে ঘৃণা ও দ্বিধাসন্দেহ থেকেই যাবে। স্বৈরাচারী শাসকরা জনগণের ওপর ভয়াবহ পীড়ন চালাবে আর ভারত তাতে বাহবা দিতে থাকবে, সেই ভারতকে বন্ধু হিসেবে জনগণ কখনো গ্রহণ করতে পারবে না।

ভারতের শাসকগোষ্ঠীর ব্যাপারে বাংলাদেশের মানুষের মধ্যে সংশয় আরো বেশি। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির সাধারণ নির্বাচনের পরপরই ভারতের পত্রিকা দ্য হিন্দু বাংলাদেশকে নিয়ে একটি খবর ছাপে। সুহাসিনী হায়দার রচিত খবরটি ২০১৬ সালের মে মাসের ১৩ তারিখে আবার আপডেট করেছে। খবরটি তাদের পত্রিকার অনলাইন সংস্করণে এখনো রয়েছে। মিডিয়া অ্যাকটিভিস্ট সাফকাত রুবীর নিবন্ধের উদ্বৃতি দিয়ে হিন্দু ওই প্রতিবেদনে লিখে, বাংলাদেশের ভেতরে অনেকে বিশ্বাস করে বাংলাদেশের কিছু নেতাকে ভারত প্রতিনিয়ত নিরাপত্তা দিয়ে থাকে। বাংলাদেশী বাহিনীগুলোর পোশাক পরে ভারত বিশেষ কিছু অভিযান পরিচালনা করে ওই দেশের ভেতরে। প্রশিক্ষণ দিয়ে বিভিন্ন গ্রুপকে ভারত বিশেষ অভিযানে বাংলাদেশের ভেতরে পাঠায়। এমনকি বর্তমান সরকারের জন্য ভারত পশ্চিমা দেশে লবি করে।’ একজন অ্যাকটিভিস্টকে উদ্বৃত করে সুহাসিনী এসব জানালেও বাংলাদেশের বৃহত্তর সমাজে বহু রহস্য ধাঁধা অবিশ্বাস রয়েছে ভারতকে নিয়ে।

একই পরিস্থিতি নেপাল ও মালদ্বীপেও বহুবার দেখা গেছে। দীর্ঘ দিন রাজতন্ত্রের কঠোর শাসনের পর পরিবারসহ তাদের মর্মান্তিক হত্যাসহ বহু রহস্যজনক ঘটনার আবর্তে নেপাল পীড়িত হয়েছে। নেপাল যখন নিজেদের জন্য সংবিধান রচনা করতে চাইল, মোদির আমলেই দেশটির ওপর দীর্ঘ দিন অবরোধ আরোপ করা হয়। ভারতবেষ্টিত নেপাল শেষ পর্যন্ত চীনের সাথে বন্ধুত্ব স্থাপনের মাধ্যমে তাদের জন্য কিছুটা সহজ পথ তৈরি করে নেয়। মালদ্বীপে ঘন ঘন সরকার পরিবর্তনে দেশটির মানুষের ভারতকে নিয়ে সন্দেহ রয়েছে। ক্ষমতার পটপরিবর্তনে তারা আঞ্চলিক শক্তির অনুকূল্য বা সাহায্য দেয়ার বদলে স্বার্থ আদায়ের পথ খুঁজতেই ভারতকে দেখেছে। দেশটিতে বেশ কয়েকবার ভারতের হস্তক্ষেপের বিরুদ্ধে জনবিক্ষোভ দেখা গেছে।

শাসকদের সাথে সম্পর্ক রেখে নিজেদের স্বার্থ উদ্ধার করার ফন্দি করতেই এ অঞ্চলের মানুষ ভারতকে বরাবর দেখতে পায়। সবসময় নিজের পাতে ঝোল টানতে গিয়ে এ অঞ্চলের গরিব মানুষ ভারতকেও একেবারে গরিব হিসেবে দেখে। তাই এই দেশকে নিয়ে প্রতিবেশীরা কোনো ধরনের আস্থা পায় না। চার দিকে এত অনাস্থা নিয়ে পরাশক্তি হওয়া কিংবা উন্নত দেশ গঠন ভারতের জন্য কোনোভাবে সম্ভব হবে না। দেশটির নীতি-নির্ধারকরা এ বিষয়টি সম্ভবত বুঝতে পারেন না।

বাংলাদেশের বর্তমান ভারত নীতি
ভারতের সাথে বাংলাদেশের সম্পর্ক নিয়ে বর্তমান সরকারের দায়িত্বশীল ব্যক্তিরা বাগাড়ম্বর করে থাকেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. আবদুল মোমেন একবার বলেছেন, ভারতের সাথে বাংলাদেশের স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্ক। আবার বলেছেন, দু’টি দেশের মধ্যে রক্তের সম্পর্ক। আবার বলেছেন, র‌্যাবের নিষেধাজ্ঞা ওঠাতে সুখবর নিয়ে ভারতের পররাষ্টমন্ত্রী বাংলাদেশ আসছেন। সম্পর্ক অনেক বেশি গভীর এমন প্রকাশ করতে গিয়ে সম্ভবত এসব অকূটনৈতিক শব্দ চয়ন ও ভাব প্রকাশ করেছেন তিনি। এমনকি প্রতিবেশী সম্পর্ক বিরল এবং প্রতিবেশী সম্পর্কের রোল মডেল হিসেবেও একে উল্লেখ করা হয়েছে দুই দেশের পক্ষ থেকে। ভারতের প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী, পররাষ্ট্র সচিব ও ঢাকায় নিযুক্ত হাইকমিশনারও প্রতিনিয়ত এ আবেগীয় সম্পর্কের স্বীকৃতি দিয়ে থাকেন।

মানুষের সমাজে সম্পর্কের মাত্রা নির্ধারণ করে থাকে নিজেদের মধ্যে আন্তঃলেনদেন। ভারতের দিক থেকে যতগুলো চাওয়া ছিল তার কোনোটাই দিতে বাদ রাখেনি বাংলাদেশ। বলতে গেলে বৃহৎ দেশ ভারতকে ক্ষুদ্র বাংলাদেশ নিজেকে উজাড় করে দিয়েছে। আরেকটি বিষয় হচ্ছে বিশ্বাস ও আস্থার। বাংলাদেশের বর্তমান সরকার ভারতের ওপর পূর্ণমাত্রায় আস্থা ও বিশ্বাস রাখে। একপক্ষের উজাড় করে দেয়া এবং পূর্ণ আস্থা বিশ্বাস স্থাপনের বিপরীতে অপরপক্ষও যদি উজাড় করে দিত তাহলে বন্ধুত্বের বিষয়টি প্রমাণ হতো।

ভারতকে সব দেয়ার এ মৌসুমে বাংলাদেশের প্রধান চাওয়া ছিল নদীর পানির হিস্যা। উজানে বাঁধ নির্মাণ করে শুষ্ক মৌসুমে একচেটিয়া ব্যবহার করছে ভারত। বর্ষা মৌসুমে বাঁধের দরজা খুলে সব পানি ছেড়ে দিচ্ছে আবার। একবার ভাটির দেশের আমাদের শুকিয়ে মারছে, আবার বন্যায় মারছে। সিলেটে চলমান বন্যায় ৪০ লাখ মানুষ চরম অসহায় অবস্থায় রয়েছে। সীমান্তে বাংলাদেশী হত্যা বন্ধে প্রতিশ্রুতি দিয়ে ভারত রক্ষা করে না। বিশ্বাস ভঙ্গের বহু নমুনা আমাদের সামনে রয়েছে। টিকা দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে দেয় না। পেঁয়াজ, গম, চালসহ এ ধরনের বহু নিত্যপণ্যের চালান অভাবের সময় বন্ধ করে দেয়। প্রতিবেশী যদি সামান্য কিছু চাইতে আসে সেটা দেয় কি না এর ওপরে মানুষের প্রকৃত সম্পর্ক নির্ভর করে। ভারত এ ক্ষেত্রে আমাদের কাছে একেবারেই পরীক্ষিত।

বড়রা ছোটদের উপহার, উপঢৌকন দেয় যাতে উদারতা আভিজাত্য প্রকাশ প্রায়। সে ক্ষেত্রেও আমরা এগিয়ে রয়েছি। আমাদের পানি না দিলেও আমরা ইলিশ দেই। আমাদের বন্যায় চুবিয়ে মারলেও সুস্বাদু আম আমরা ভারতকে পাঠাই। বাংলাদেশের পররাষ্ট্র নীতি হচ্ছে, ‘কারো সাথে শত্রুতা নয়; সবার সাথে বন্ধুত্ব।’ ভারতের জন্য আমরা এ নীতির প্রয়োগেও ব্যত্যয় ঘটা। অতিথি আপ্যায়নসহ পৃষ্ঠপোষকতার যে মাত্রা আমরা প্রদর্শন করি তার খুব সামান্যই আমাদের অন্য বন্ধুদের প্রতি আমরা করে থাকি। এমনকি আমাদের প্রাকৃতিক দুর্যোগে যারা প্রয়োজনীয় সাহায্য নিয়ে আসে এবং যারা আমাদের সারা বছর অনুদান দেয় ভারতের চেয়ে তাদের খুব সামান্য প্রতিদান আমরা দিই।

jjshim146@yahoo.com


আরো সংবাদ


premium cement