০৭ ডিসেম্বর ২০২২, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ১২ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি
`

জামালদের আজ নেপাল জয়ের পালা

কাঠমান্ডুতে গতকাল অনুশীলনে ডিফেন্ডার রাফির সাথে কম্বোডিয়ার বিপক্ষে গোল করা রাকিব হোসেন (বামে) : বাফুফে -

নেপালের কাঠমান্ডুর দশরথ স্টেডিয়াম কখনো বাংলাদেশকে সাফল্য দিয়েছে। আবার হতাশও করেছে বেশ কয়েকবার। অবশ্য বাংলাদেশের ফুটবলের সবচেয়ে বড় দুই অর্জন এই দশরথ স্টেডিয়ামে। ১৯৯৯ সালের সাফ গেমস ফুটবলে স্বর্ণ জেতার পর এবার প্রথম মহিলা সাফও জেতা কাঠমান্ডুর এই স্টেডিয়ামে। সাবিনাদের এনে দেয়া সেই সাফল্য এবার ধরে রেখে দেশবাসীকে আজ আরেকটি জয় উপহার দেয়ার পালা জামাল ভূঁইয়াদের। তাহলে ফিফা র‌্যাংকিংয়ে উন্নতি হবে বাংলাদেশ দলের। ২২ সেপ্টেম্বর কম্বোডিয়ার বিপক্ষে ১-০ গোলে ফিফা প্রীতি ম্যাচ জয়ের পর হাভিয়ার কাবরেরা বাহিনী যে উচ্চতায় আছে সেটিকে আরো এগিয়ে নিতে আজো নেপালের বিপক্ষে জিততে হবে। তাহলে র‌্যাংকিংয়ে এগিয়ে থাকা দলটির বিপক্ষে পাওয়া জয় জামালদের ১৯২ থেকে আরো সামনে নিয়ে আসবে। বাংলাদেশ ও নেপালের এই ফিফা প্রীতি ম্যাচ আজ কাঠমান্ডুতে বাংলাদেশ সময় বিকেল পৌনে ছটায় শুরু হবে।
কম্বোডিয়ার (র‌্যাংকিং ১৭৪) বিপক্ষে পাওয়া জয় লাল-সবুজদের জয়টি ছিল টানা ৭ ম্যাচ পর। আর কোচ কাবরেরার অধীনে প্রথম জয়। তবে নেপালের ( ১৭৬) কাছে হারলে র‌্যাংকিংয়ে উন্নতির ক্ষেত্রে তেমন লাভ হবে না জামালদের। তাই আজ জয় পেতেই হবে জামাল ভূঁইয়াদের। অবশ্য নেপালের মাঠ থেকে জিতে আসাটা বেশ কঠিন।
দুই দলের আগের ২৪ ম্যাচে বাংলাদেশ ১৩ খেলায় এবং নেপাল ৭ ম্যাচে জিতলেও সাম্প্রতিক সময়ে শেষ হাসি নেপালেরই। গত বছরের সাফে এই নেপালের সাথে ১-১ গোলে ড্র করে ফাইনালে উঠতে পারেনি অস্কার ব্রুজনের বাংলাদেশ দল। গত বছরের মার্চে নেপালের তিন জাতি ফুটবলের ফাইনালে বাংলাদেশকে ২-১ গোলে হারিয়ে দেয় নেপালিরা। যদিও গ্রুপ পর্বে খেলার রেজাল্ট ছিল গোলশূন্য। বাংলাদেশ সর্বশেষ নেপালের বিপক্ষে জিতেছিল ২০২০ সালের নভেম্বরে। ঢাকায় অনুষ্ঠিত সেই ম্যাচের স্কোর ছিল ২-০। যদিও নেপাল সেবার দুই ম্যাচ খেলতে এসেছিল স্বল্প সময়ের প্রস্তুতি নিয়ে।
অবশ্য এবার কম্বোডিয়াকে হারিয়ে বেশ উৎফুল্ল রাকিব-জিকোরা। অবশেষে জয়ের দেখা পাওয়া দলটি যদি নেপালের বিপক্ষেও জয় পায় তাহলে লাকি সেপ্টেম্বর প্রবাদটি প্রতিষ্ঠিত হবে। উল্লেখ্য, এই মাসেই বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-২০ দল ৩-০ গোলে নেপালকে হারায় এএফসির আসরে। এরপর মহিলা সাফের ফাইনালে বাংলাদেশের ৩-১ গোলে জয় নেপালিদের বিপক্ষে। জামালরা যদি আজ জিততে না পারে তাহলে সমালোচিতই হবেন। উল্লেখ্য, বাংলাদেশ সর্বশেষ নেপালের মাঠে তাদের হারিয়েছিল ২০১৩ সালের মার্চে এএফসি চ্যালেঞ্জ কাপের বাছাই পর্বে। ২-০তে জিতেছিল সেই ম্যাচ। এরপর সে বছরই সাফে তাদের কাছে ০-২ গোলে হার। ২০১৮ সাফেও নেপালের ২-০ গোলে জয় ঢাকার মাঠে।


আরো সংবাদ


premium cement