১৩ মে ২০২১
`

টানা পাঁচবার সেরা আনসার

-

বাংলাদেশ গেমসে আধিপত্য ধরে রেখেছে বাংলাদেশ আনসার। পদক তালিকায় সেরা হওয়ার লড়াইয়ে ছিল মূলত বাংলাদেশ সেনাবাহিনী ও বাংলাদেশ আনসার। শেষ পর্যন্ত ১৩২টি স্বর্ণ, ৮০টি রুপা ও ৫৭টি ব্রোঞ্জসহ ২৬৯টি পদক নিয়ে বাংলাদেশ গেমসে টানা পঞ্চমবারের মতো চ্যাম্পিয়ন হয়েছে বাংলাদেশ আনসার। ১১৫টি স্বর্ণ, ৯৯টি রুপা ও ৮৩টি ব্রোঞ্জসহ ২৯৭টি পদক নিয়ে রানার্সআপ বাংলাদেশ সেনাবাহিনী। ৬৩টি স্বর্ণ, ৩৯টি রুপা ও ২৫টি ব্রোঞ্জসহ ১২৭টি পদক নিযে তৃতীয় স্থানে বাংলাদেশ নৌবাহিনী।
২০১৩ সালের বাংলাদেশ গেমসে ১১১টি স্বর্ণ, ৭৫টি রুপা ও ৬৪টি ব্রোঞ্জসহ ২৫০টি পদক জিতে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল আনসার। ৬৯টি স্বর্ণ, ৪১টি রুপা ও ৩৮টি ব্রোঞ্জসহ ১৪৮টি পদক নিয়ে সেনাবাহিনী ছিল রানার্সআপ। ৩৬টি স্বর্ণ, ৪৯টি রুপা ও ২৮টি ব্রোঞ্জসহ ১১৩টি পদক নিয়ে তৃতীয় স্থানে ছিল বাংলাদেশ পাটকল করপোরেশন (বিজেএমসি)।
বাংলাদেশ আনসার হকি, বাস্কেটবল, রোইং, ক্রিকেট ছাড়া বাকি সব ডিসিপ্লিনেই অংশ নিয়েছে। রোলার স্কেটিং, তায়কোয়ান্ডো, উশু এই কয়েকটি ডিসিপ্লিনে মোট ইভেন্টের ৭০-৮০ শতাংশ স্বর্ণ পদক আনসার জিতেছে। মূলত এই জায়গাতে সেনাবাহিনীকে পেছনে ফেলেছে আনসারের ক্রীড়াবিদরা। আনসারের ক্রীড়া বিভাগের সহকারী পরিচালক রায়হান ফকিরের তথ্য মতে, ১৯৯২, ১৯৯৬ ও ২০০২ বাংলাদেশ আনসার গেমসে প্রথম হয়েছে। বাংলাদেশ গেমসের ৯টি আসরের মধ্যে পাঁচটি আসরেই সেরা আনসার। ১৯৯২ সালে ৫০ স্বর্ণ, ৪৯ রুপা, ৩৬ ব্রোঞ্জ মোট ১৩৫ পদক, ১৯৯৬ সালে ৭০ স্বর্ণ, ৪৪ রুপা, ৩৪ ব্রোঞ্জ মোট ১৪৮, ২০০২ সালে ৬৫ স্বর্ণ, ৬১ রুপা, ৬৪ ব্রোঞ্জসহ মোট ১৯০টি পদক জিতেছিল আনসার।
আনসারের হয়ে খেলা রেকর্ডধারী ভারত্তোলক মাবিয়া আক্তার সীমান্ত বলেন, ‘আনসার আমাদের সর্বোচ্চ সম্মান ও সুযোগ সুবিধা দেয়। এজন্য আমরা আনসারকে সেরাটা দেয়ার চেষ্টা করি।’ গেমসে স্বর্ণজয়ী ও রেকর্ড করা ক্রীড়াবিদদের জন্য বিশেষ অর্থ পুরস্কার থাকছে বলে জানালেন পরিচালক রায়হান।

 



আরো সংবাদ