২৯ নভেম্বর ২০২০

রুবেলের বলে আগুন ঝরছেই

-

দুর্দান্ত বোলিংয়ের ধারাবাহিকতা ধরে রাখলেন পেসার রুবেল হোসেন। আগের দুই ম্যাচে তিনটি করে উইকেটের পর এবার তার শিকার চারটি। বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপে প্রথমবার খেলতে নেমে দলের বিপর্যয়ে হাফসেঞ্চুরি উপহার দিলেন ইয়াসির আলি চৌধুরী ও মাহিদুল ইসলাম অঙ্কন। টুর্নামেন্টের পঞ্চম ম্যাচে গতকাল মাহমুদুল্লাহ একাদশের বিপক্ষে তামিম ইকবাল একাদশ ৫০ ওভারে ৮ উইকেটে ২২১ রান করে। ফাইনালে যেতে হলে জয় ভিন্ন বিকল্প নেই মাহমুদুল্লাহর। এ রিপোর্ট লিখা পর্যন্ত ৩৩ ওভারে তিন উইকেট হারিয়ে ১৪৪ রান করেছে।
৩৪ রানে ৪ উইকেট নিয়েছেন রুবেল। এই টুর্নামেন্টে এখন পর্যন্ত এটি ব্যক্তিগত সেরা বোলিং। তবে শেষ দুই ওভার বাদ দিলে তার বোলিং ছিল দুর্দান্ত। ম্যাচের প্রথম বলে লেগ স্টাম্পে বল করে বাউন্ডারি হজম করার পরও তার প্রথম স্পেল ছিল ৫-৩-৫-৩! রুবেল একে একে ফেরান তানজিদ হাসান (১), এনামুল হক বিজয় (১) ও মোহাম্মদ মিথুনকে (২)। নতুন করে যেন নিজেকে চেনাচ্ছে তিনি।
টুর্নামেন্টে পঞ্চম ম্যাচে টস জিতে ব্যাটিং নিলো কোনো দল। দুই তামিমের জুটি আগের দুই ম্যাচে টিকতে পারেনি দুই ওভারও। এই ম্যাচে দুই ওভার টিকে তৃতীয় ওভারেই শেষ। রুবেলের বাইরের বল জায়গায় দাঁড়িয়ে খেলে তানজিদ তামিম তুলে দেন সিøপে নাঈম শেখের হাতে। আবু হায়দার রনির বলও একই কায়দায় ব্যাট ছুঁইয়ে তামিম ইকবাল ক্যাচ দেন পয়েন্টে।
টপঅর্ডার ব্যাটসম্যানদের বাজে শটের মহড়ায় ১৭ রানেই ৪ উইকেট হারায় তামিম একাদশ। পঞ্চম উইকেটে ১১১ রানের জুটিতে দলকে টেনে নেন ইয়াসির ও অঙ্কন। শেষ দিকে কার্যকর দু’টি ইনিংস খেলেছেন সাইফ উদ্দিন ও মোসাদ্দেক হোসেন।
এনামুল হক ও মোহাম্মদ মিঠুনও একই পথের পথিক। নবম ওভারে ৪ উইকেট হারিয়ে মাত্র ১৭ রান। সেই বিপর্যয় থেকে ইয়াসির ও অঙ্কনের জুটি উদ্ধার করে দলকে। অঙ্কন ফিফটি স্পর্শ করেন ১০৩ বলে। রুবেলকে উড়িয়ে মারতে গিয়ে ৫৭ রানে ক্যাচ দেন স্কয়ার লেগে। ৮১ বলে পাঁচটি চার ও একটি ছক্কায় ৬২ রান করে রাব্বি রান আউটের শিকার হন। ইবাদতের করা শেষ ওভারে আউট সাইফ (৩৮) ও মোসাদ্দেক (৪০)। ফলে ৮ উইকেটে ২২১ রানে থামে তামিম একাদশ। রুবেল চারটি, ইবাদত দু’টি ও রনি একটি উইকেট নেন।

 


আরো সংবাদ