১৭ জানুয়ারি ২০২১
`

নাটকীয় জয়ে সেমিতে পিএসজি

-

চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার ফাইনালে আটলান্টা ও প্যারিস সেন্ট জার্মেইয়ের লড়াইটা যে মোটেই সহজ হবে না তা আগেই অনুমেয় ছিল। লিসবনের এস্তাদিও দা লুজে বুধবার রাতে বাস্তবেই দু’দলের জমজমাট ম্যাচ উপভোগ করেছে ভক্তরা। ৮৯ মিনিট পর্যন্ত ১-০ গোলে এগিয়ে থেকেও শেষ পর্যন্ত ২-১ গোল ব্যবধানে হেরেছে আটলান্টা। সেই সাথে ২৫ বছর পর পিএসজি উঠেছে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সেমিফাইনালে। আটলান্টাকে প্রথমার্ধে এগিয়ে নেন মারিও পাসালিচ। কিন্তু ৯০ মিনিটে মারকুইনহোস এবং ৯৫ মিনিটে চুপো-মোটিং নেইমারদের ত্রাতা হিসেবে আবির্ভূত হন।
২৪ জুলাই ফরাসি কাপের ফাইনালে সেন্ট-এতিয়েনের বিপক্ষে গোড়ালির ইনজুরিতে আক্রান্ত হওয়া কিলিয়ান এমবাপ্পে ছাড়াই প্রথমার্ধের একাদশ সাজান কোচ টমাস টুকেল। শুরু থেকেই নেইমার বেশ কিছু সুযোগ হাতছাড়া করেছে। আটলান্টার গোলরক্ষক মার্কো স্পোর্টিয়েলোকে একা পেয়েও বল জালে জড়াতে ব্যর্থ হন নেইমার। তার পরিবর্তে আটলান্টা তাদের সুযোগ দারুণভাবে কাজে লাগায়। ২৬ মিনিটে ১৫ গজ দূর থেকে পাসালিচের জোরালো শট আটকানোর সাধ্য ছিল না পিএসজি গোলরক্ষক কেইলর নাভাসের (১-০)। ম্যাচের প্রথমার্ধে এমবাপ্পের প্রয়োজনীয়তা অনুভূত হয়েছে পিএসজির। ভুল না করে, শেষ ৩০ মিনিট খেলার জন্য টুকেল যথেষ্ট ফিট মনে করেছেন এমবাপ্পেকে। এতে পাল্টে যায় পিএসজি। ৯০ মিনিটে নেইমারের পাসে মারকুইনহোস পোস্টের খুব কাছে থেকে পিএসজিকে ১-১ গোলে সমতায় ফেরান। এরপর দ্বিতীর ইনজুরি সময়ে এমবাপ্পের লো ক্রসে চুপো-মোটিং নাটকীয় ম্যাচটির ইতি টানেন। ১৯৯৫ সালের পর এই প্রথমবারের মতো ইউরোপের এলিট ক্লাব প্রতিযোগিতায় সেমিফাইনালের টিকিট পেলেন ফরাসি চ্যাম্পিয়ন্সরা।

 



আরো সংবাদ