০৮ এপ্রিল ২০২০

১৯৭১ ছিল বের হওয়ার ২০২০ ঘরে থাকার

স্বাধীনতা দিবসের শুভেচ্ছায় মাশরাফি
-

করোনার প্রভাবে এক প্রকার বন্দী এখন সারা দেশের মানুষ। হারিয়ে গেছে খেলাধুলা তথা স্বাভাবিক জীবনযাপনের স্বাধীনতা। সাময়িক হারানো এই স্বাধীনতা কাটিয়ে উঠতে কি করণীয় সেটি জানিয়েছেন বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা। টাইগারদের সাবেক অধিনায়কের মতে এখন ঘরে থাকাই উত্তম। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে নিজের অফিসিয়াল পেজে দুই লাইনের ছন্দে মাশরাফি লিখেছেন, খেলার স্বাধীনতা যদি আবার ফিরে পেতে চাই, এখন তাহলে উত্তম কিন্তু ঘরে থাকাটাই।
একই পোস্টে তিনি তাৎপর্যপূর্ণ কথা বলেছেন বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতা দিবসের তখনকার প্রেক্ষাপট এবং বর্তমানে উদ্ভূত করোনা পরিস্থিতির ব্যাপারে। তার মতে, ১৯৭১ সালে দেশের টানে সবাই ঘর থেকে বের হওয়ার শপথ করলেও, এখন সবাইকে শপথ করতে হবে ঘরে থাকার ব্যাপারে। মাশরাফি লিখেছেন, ‘২৬ শে মার্চ, ১৯৭১ : শপথ ছিল ঘর থেকে বের হওয়ার। ২৬ শে মার্চ, ২০২০ : এবারের শপথ ঘরে থাকার। ঘরে থাকুন, সুস্থ থাকুন। সংক্রমণ প্রতিরোধে সহায়তা করুন।’
সব কিছু ঠিকঠাক থাকলে গতকাল বঙ্গবন্ধু ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ ক্রিকেটের পঞ্চম রাউন্ডের প্রস্তুতিতে ব্যস্ত সময় কাটত জাতীয় ক্রিকেটারদের। আগের চার রাউন্ডের ফলাফল, পারফরম্যান্স নিয়ে মেতে থাকতেন ভক্ত-সমর্থকরা। কিন্তু বিশ্বব্যাপী মহামারী করোনাভাইরাসের আক্রমণে ওলটপালট হয়ে গেছে ক্রিকেট তথা ক্রীড়াঙ্গনের সব সূচি। শুধু প্রিমিয়ার ক্রিকেটই নয়, স্থগিত হয়ে গেছে সারা পৃথিবীর সব ক্রিকেট ও অন্যান্য খেলাধুলা। পুনরায় কবে মাঠে ফিরবে খেলাধুলা সেটি অনিশ্চিত।
করোনাভাইরাসের সংক্রমণ থেকে সুস্থ থাকতে সর্বদা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সচেতনমূলক পোস্ট করে যাচ্ছেন বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা। শুধু ফেসবুকেই নয় নিজেরাও সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। ২৭ জন ক্রিকেটার তহবিল গঠনের উদ্যোগ নিয়েছেন। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের চুক্তির বাইরে থাকা ক্রিকেটাররাও আছেন এই তালিকায়।
এ ছাড়াও গতকাল মাশরাফি বিন মর্তুজা নিজের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে কৌশলগত ও দুর্দান্ত একটি পোস্ট করেছেন। একটি ছবির ওপরে ইংরেজিতে বড় করে লেখা ‘ভি-আর-এস’। ভি ও আরের পর খালি রেখেছেন মাশরাফি। ‘ভি-আর-এস’-এর নিচে ছোট করে লিখা ‘ওনলি ‘আই’ অ্যান্ড ‘ইউ’ ক্যান ব্রেক দ্য চেইন’। আর ক্যাপশনে মাশরাফি লিখেছেন, ‘রিমেম্বার, ওনলি ‘আই’ অ্যান্ড ‘ইউ’ ক্যান উইন দ্য ব্যাটল’। বাংলায় যার অর্থ দাঁড়ায়, মনে রাখবেন শুধু ‘আমি’ এবং ‘আপনি’ এ যুদ্ধ জিততে পারি।
মাশরাফির ওই ছবির ইংরেজি লেখা ‘ভি-আর-এস’-এর পুরো ইংরেজি শব্দ হলো, ‘ভাইরাস’। যার শব্দের বানানে ‘ভি’ এর পরে ‘আই’ এবং ‘আর’ এর পর ‘ইউ’ হয়। কিন্তু ভি ও আরের পর খালি রেখেছেন মাশরাফি। ‘ভাইরাস’ ইংরেজি শব্দ থেকে ‘আই’ আর ‘ইউ’ নিয়ে নিচের কথাটা লিখেছেন মাশরাফি। ‘আই’ আর ‘ইউ’-এর বাংলা অর্থ হলো, শুধু ‘আমি’ ও ‘আপনি’। মাশরাফি বুঝাতে চেয়েছেন- করোনাভাইরাসের ভয়াল থাবার শিকল ‘আমি’ ও ‘আপনি’ ভাঙতে পারি। নিরাপদ থেকে রক্ষা করতে পারি নিজেকে এবং দেশকে। আর স্পষ্ট করতে ছবির নিচে লিখেছেন, ‘ঘরে থাকুন, বেঁচে থাকুন’।


আরো সংবাদ

সেই প্রিয়া সাহা করোনায় আক্রান্ত! (৫০৮৩৩)নিজ এলাকায় ত্রাণ দিয়ে ঢাকায় ফিরে করোনায় মৃত্যু, আতঙ্কে স্থানীয়রা (৪৪৬১১)বেওয়ারিশের মতো সারা রাত সঙ্গীতশিল্পীর লাশ পড়েছিল রাস্তায় (২৬৭২১)দীর্ঘদিন জেলখাটা আসামিদের মুক্তির নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর (২০২৫৬)করোনা ছড়ানোয় চীনকে যে ভয়ঙ্কর শাস্তি দেয়ার দাবি উঠল জাতিসংঘে (১৬৩৮৯)কাশ্মিরে রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে নিহত ভারতীয় দুর্ধর্ষ কমান্ডো দলের সব সদস্য (১৫৫২৩)রোজার ঈদের ছুটি পর্যন্ত বন্ধ হচ্ছে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান (১৩০৭৯)করোনার লক্ষণ নিয়ে নিজের বাড়িতে মরে পড়ে আছে ব্যবসায়ী, এগিয়ে আসছে না কেউ (১২৮০৫)ঢাকায় নতুন করে ৯টি এলাকা লকডাউন (১০৬৪৩)সবচেয়ে ভয়াবহ দিন আজ : মৃত্যু ৫, আক্রান্ত ৪১ (১০০৬১)