০৮ আগস্ট ২০২০

পলাশীর যুদ্ধের কালপঞ্জি

-
24tkt

ৃ৯ এপ্রিল, ১৭৫৬ : নবাব আলীবর্দী খানের মৃত্যু। বাংলার মসনদে নবাব সিরাজউদ্দৌলার আরোহণ। সিরাজউদ্দৌলার বয়স তখন মাত্র ২৩ বছর।
এপ্রিল, ১৭৫৬, শেষ সপ্তাহ : ইউরোপে সপ্তবর্ষব্যাপী যুদ্ধের অজুহাতে বাংলায় ইংরেজ ও ফরাসিদের দুর্গ নির্মাণ। নবাবের আদেশে ফরাসি দুর্গ নির্মাণ বন্ধ হলেও ইংরেজদের দুর্গ নির্মাণ অব্যাহত।
১৬ মে, ১৭৫৬ : বিদ্রোহী শওকত জঙ্গকে দমনের উদ্দেশ্যে পূর্ণিয়ায় নবাব সিরাজউদ্দৌলার সামরিক অভিযান।
২০ মে, ১৭৫৬ : নবাব সিরাজউদ্দৌলা রাজমহল পৌঁছেন। গভর্নর ড্রেকের চিঠি পান। চিঠিতে দুর্গ নির্মাণ বন্ধের কোনো কথা নেই।
১৬ জুন, ১৭৫৬ : ক্রুদ্ধ নবাব সিরাজউদ্দৌলা পূর্ণিয়া না গিয়ে মুর্শিদাবাদে ফিরে এলেন। কলকাতায় ইংরেজদের দমনের উদ্দেশ্যে সসৈন্যে যাত্রা। পথে কাশিমবাজার কুঠি দখল।
২০ জুন, ১৭৫৬ : কলকাতার দুর্গ নবাব সিরাজউদ্দৌলার দখলে। গভর্নর ড্রেক ও অন্য ইংরেজদের পলায়ন। গভর্নর হলওয়েলের আত্মসমর্পণ।
কলকাতার পতনের পর ড্রেক ও অন্য ইংরেজদের টিকে থাকতে সহায়তা দেন প্রভাবশালী হিন্দু উমিচাঁদ, জগৎশেঠ, রায়দুর্লভ, মানিকচাঁদ, নবকিষেণ প্রমুখরা।
১৬ অক্টোবর, ১৭৫৬ : পূর্ণিয়ার নবাবগঞ্জে বিদ্রোহী শওকত জঙ্গের সাথে নবাব সিরাজউদ্দৌলার যুদ্ধ। যুদ্ধে শওকত জঙ্গ পরাজিত ও নিহত।
১৫ ডিসেম্বর, ১৭৫৬ : মাদ্রাজ থেকে রবার্ট ক্লাইভ ও অ্যাডমিরাল ওয়াটসনের অধীনে একদল সৈন্যের ফালতা আগমন ও ড্রেকের সাথে যোগদান।
২৭ ডিসেম্বর, ১৭৫৬ : ইংরেজ সৈন্য ও নৌবহরের কলকাতা অভিমুখে যাত্রা।
২ জানুয়ারি, ১৭৫৭ : মানিকচাঁদের বেঈমানী। ইংরেজদের কলকাতা পুনর্দখল।
৩ জানুয়ারি, ১৭৫৭ : দখলদার ইংরেজ বাহিনীর আসার সংবাদ পেয়ে নবাব সিরাজউদ্দৌলার কলকাতা অভিমুখে যুদ্ধযাত্রা।
১০ জানুয়ারি, ১৭৫৭ : রবার্ট ক্লাইভ হুগলি শহর দখল করে লুটতরাজ শুরু করে। আশেপাশের গ্রাম জনপদ জ্বালিয়ে পুড়িয়ে ছারখার করে দেয়।
১৯ জানুয়ারি, ১৭৫৭ : নবাব সিরাজউদ্দৌলার হুগলি আগমন। ইংরেজদের কলকাতা ত্যাগ।
৩ ফেব্রুয়ারি, ১৭৫৭ : নবাব সিরাজউদ্দৌলা কলকাতার শহরতলী আমির চাঁদের বাগানে শিবির স্থাপন করেন।
৫ ফেব্রুয়ারি, ১৭৫৭ : নবাব সিরাজউদ্দৌলার শিবির আক্রমণ করে ক্লাইভ ও ওয়াটসন শেষ রাতে। সিরাজবাহিনী পাল্টা আক্রমণ চালালে ক্লাইভ পিছু হটেন।
৯ ফেব্রুয়ারি, ১৭৫৭ : নবাব সিরাজউদ্দৌলার সাথে ইংরেজদের আলীনগরের সন্ধি।
২৩ মার্চ, ১৭৫৭ : ক্লাইভের ফরাসি ঘাঁটি ও বাণিজ্য কেন্দ্র চন্দননগর দখল।
২৩ জুন, ১৭৫৭ : ভাগীরথী নদীর তীরে পলাশীর প্রান্তরে নবাব সিরাজউদ্দৌলার বাহিনীর সাথে রবার্ট ক্লাইভের নেতৃত্বে ইংরেজ বাহিনীর যুদ্ধ।

রণাঙ্গনের চিত্র
নবাব সিরাজউদ্দৌলার পক্ষ :
১. সৈন্যসংখ্যা ৫০ হাজার। এর মধ্যে পদাতিক ৩৫ হাজার, অশ্বারোহী ১৫ হাজার
২. মোট কামান ৫৩টি
৩. ফরাসি সৈনিক সিনফ্রেঁর অধীনে কিছু কামান ও সৈন্য।

রবার্ট ক্লাইভের পক্ষ :
১. সৈন্যসংখ্যা তিন হাজার
সিপাহি- দুই হাজার ২০০, ইউরোপীয়-৮০০
যুদ্ধে বিশ্বাসঘাতক সেনাপতি মীরজাফর ও রায়দুর্লভের চক্রান্তে এক বিশাল সৈন্যবাহিনী যুদ্ধ থেকে বিরত থাকে। মীরমদন ও মোহনলাল তাদের অধীন স্বল্পসংখ্যক সৈন্য নিয়ে প্রাণপণ যুদ্ধ করেন। কিন্তু শেষরক্ষা হয়নি।
২৬ জুন, ১৭৫৭ : নবাব হিসাবে মীরজাফর আলী খানের অভিষেক।
২৯ জুন, ১৭৫৭ : মীরজাফরের সিংহাসনে আরোহণ।
৩০ জুন ১৭৫৭ : রাজমহলে নবাব সিরাজউদ্দৌলাকে গ্রেফতার।
২ জুলাই, ১৭৫৭ : শৃঙ্খলিত অবস্থায় নবাব সিরাজউদ্দৌলাকে মুর্শিদাবাদে আনয়ন। রাতে মীরজাফরের পুত্র মীরনের আদেশে ঘাতক মোহাম্মদী বেগের ছুরিকাঘাতে নবাব সিরাজউদ্দৌলা শাহাদাৎ বরণ করেন।হ
গ্রন্থনা : আলম মাসুদ

 


আরো সংবাদ

প্রদীপের অপকর্ম জেনে যাওয়ায় জীবন দিতে হয়েছে সিনহাকে? (২৮৭৫৪)মেজর সিনহা হত্যা : ওসি প্রদীপ, ইন্সপেক্টর লিয়াকত আলীসহ ৭ পুলিশ বরখাস্ত (৬৮৫২)পাকিস্তানের বোলিং তোপে লন্ডভন্ড ইংল্যান্ড (৬৫৮১)অযোধ্যায় রামমন্দির নির্মাণ নিয়ে কড়া বিবৃতি পাকিস্তানের, যা বলছে ভারত (৫১৬৪)জাহাজ ভর্তি ভয়াবহ বিস্ফোরক বৈরুতে পৌঁছল যেভাবে (৪৯৩৬)কানাডায়ও ঘাতক বাহিনী পাঠিয়েছিলেন মোহাম্মাদ বিন সালমান! (৪৮৪০)এসএসসির স্কোরের ভিত্তিতে কলেজে ভর্তি হবে শিক্ষার্থীরা (৪৭৩৮)বিশ্বের সবচেয়ে বড় মিথানল উৎপাদন কারখানা উদ্বোধন করল ইরান (৪৪৬৯)আয়া সোফিয়ায় জুমার নমাজ শেষে যা বললেন এরদোগান (৪০৭৩)সাগরের ইলিশে সয়লাব খুলনার বাজার (৪০৬৫)