০৬ আগস্ট ২০২০

রাজধানীতে চতুর্থ কটন ডের আয়োজন

-
24tkt

সম্প্রতি চতুর্থ কটন ডে (তুলা দিবস) বাংলাদেশ উপলক্ষে রাজধানী ঢাকার একটি হোটেলে এক সেমিনার এবং জমকালো ফ্যাশন শোর আয়োজন করেছে কটন ইউএসএ। যুক্তরাষ্ট্রের মানসম্পন্ন তুলা এবং সর্ববৃহৎ তুলাজাত গার্মেন্টস পণ্যের প্রস্তুতকারক এবং রফতানিকারক হিসেবে বাংলাদেশের অর্জনকে উদযাপন করতে ২০১৬ সাল থেকে কটন কাউন্সিল ইন্টারন্যাশনাল (সিসিআই) কটন ডে পালন শুরু করে। এই সেমিনার, গালা ইভেন্ট এবং ফ্যাশন শো ও ডিনারের আয়োজনে অংশগ্রহণ করে ১২০টি স্পিনিং মিল, গার্মেন্ট প্রস্তুতকারক এবং তুলা ব্যবসায়ীসহ এজেন্টরা। কটন ডে’র আয়োজনে অংশ নিতে, বাংলাদেশী স্পিনিং এবং গার্মেন্টস শিল্পে যুক্তরাষ্ট্রের তুলার ব্যবহার বাড়াতে এবং যুক্তরাষ্ট্রের তুলা সম্পর্কে জানাতে ইউএস কটনের একটি বিশিষ্ট দল গতকাল বাংলাদেশে এসে পৌঁছায়। যুক্তরাষ্ট্রের তুলার সাথে পাকিস্তানি তুলার প্রতিযোগিতা করতে ১৯৬৮ সালে পাকিস্তান একটি আইন করে, বাংলাদেশ তুলা উৎপাদন না করা সত্ত্বেও যেটি ১৯৮৯ সালে বাংলাদেশে চালু করা হয়। এই আইন অনুযায়ী পোকামাকড় দূরীকরণের জন্য চট্টগ্রাম বন্দরে যুক্তরাষ্ট্র থেকে আমদানিকৃত তুলা ফিউমিগেট করতে হয়। ইউএস কটনের রফতানিকারক কর্তৃপক্ষ তাদের লোড পোর্টে সব তুলা ফিউমিগেট করে থাকে, তাই চট্টগ্রামে দ্বিতীয়বার ফিউমিগেট করা অপ্রয়োজনীয়। এই বাড়তি ধাপটির জন্য বাংলাদেশে যুক্তরাষ্ট্রের তুলার আমদানি খরচ বেড়ে যায় এবং কারখানাগুলোতে শিপমেন্ট বিলম্বিত হয়। ইউএস কটন ও বাংলাদেশী স্পিনিং শিল্পের মালিকপক্ষ এই আইনটি সংশোধন করতে বাংলাদেশের প্রশাসনকে অনুরোধ জানিয়েছে। ফ্যাশন শোতে উপস্থিত ছিলেন আমেরিকান রাষ্ট্রদূত আর্ল রবার্ট মিলার ও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি খাত ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান। কটন ইউএসএ লাইসেন্সি মিলগুলো তুলাজাত পোশাকে বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী ও ওয়েস্টার্ন পোশাক প্রদর্শন করে।


আরো সংবাদ