২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৪ আশ্বিন ১৪২৯, ২ রবিউল আওয়াল ১৪৪৪ হিজরি
`

শনির বলয়ের অজানা সব তথ্য

শনির বলয়ের অজানা সব তথ্য - ছবি : সংগৃহীত

‘শনি’ সৌরজগতের এই দ্বিতীয় বৃহত্তম গ্রহটির কথা উঠলেই চোখের সামনে ভেসে ওঠে তাকে ঘিরে থাকা বলয়। সূর্যের সংসারে এমনটি আর কারো নেই। নাসার একটি রিপোর্টে দাবি করা হয়েছে, আজ থেকে বহু কোটি বছর আগে হয়তো শনিরও এই বলয় ছিল না।

শনির বয়স হলো সাড়ে চার শ’ কোটি বছর। বিজ্ঞানীদের সন্দেহ, তার জীবনকালের বেশি সময়টাই হয়তো সে বলয়হীন ছিল। আমেরিকান মহাকাশ গবেষণা কেন্দ্র নাসার ক্যাসিনি অভিযানের চূড়ান্ত পর্যায়ের তথ্যগুলো ঘেঁটে বিজ্ঞানীদের এমনটাই সন্দেহ।

তারা জানান, আনুমানিক ১৬ কোটি বছর আগে শনির একটি উপগ্রহ তার একেবারে কাছে চলে আসে। এর পর দৈত্যাকার গ্যাসীয় পিণ্ড গ্রহটির প্রবল মাধ্যাকর্ষণ বলে উপগ্রহটি ছিন্নবিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। অসংখ্য খণ্ড হয়ে ছড়িয়ে পড়ে তার কক্ষপথ জুড়ে। শনির চারপাশে এঁকে দেয় এক বিচিত্র মহাজাগতিক দৃশ্য।

তবে পুরোটা এখনো একটা ধারণা। যদিও বিজ্ঞানীরা শনির এই কল্পিত উপগ্রহের নাম রাখেন ‘ক্রিসালিস’। ক্রিসালিস শব্দের অর্থ গুটিপোকা। শনির বলয় নিয়ে এই গবেষণায় নেতৃত্ব দিচ্ছেন ম্যাসাচুসেটস ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজির (এমআইটি) অধ্যাপক জ্যাক উইসডম।

তিনি বলেন, ‘প্রজাপতির গুটির মতো শনির ওই উপগ্রহটি দীর্ঘ সময় ধরে সুপ্ত অবস্থায় ছিল। হঠাৎই সক্রিয় হয়ে ওঠে। তার পর সেই বলয় তৈরি হয়।’

২০০৪ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত শনিকে প্রদক্ষিণ করেছিল নাসার মহাকাশযান ক্যাসিনি। গ্রহটিকে কাছ থেকে পর্যবেক্ষণ করে এটি। পৃথিবীতে পাঠায় অজস্র তথ্য। কিন্তু সেই সব তথ্য নস্যাৎ করে দিচ্ছে পুরনো তত্ত্বকেই। শনি গ্রহ সম্পর্কে এত দিন জানা ছিল, এটি একটি দৈত্যাকার গ্যাসীয় পিণ্ড। এর ৮৩টি উপগ্রহ রয়েছে। যার মধ্যে ৫৩টির নামকরণ করা হয়েছে, বাকিদের নাম নেই। শনিকে ঘিরে থাকা বলয়ে রয়েছে অসংখ্য বরফ খণ্ড, পাথুরে ধ্বংসস্তুপ ও ধুলো।

নতুন পাওয়া তথ্যে আরো দেখা যাচ্ছে, অতীতে এক সময় নেপচুনের কবলে পড়ে শনি। নিজের কক্ষপথ থেকে ২৭ ডিগ্রি বেঁকে রয়েছে শনি গ্রহ। তার কারণ হিসেবে উইসডমের দলের ব্যাখ্যা, শনি একসময় নেপচুনের ফাঁদে পড়ে। নেপচুনের মাধ্যাকর্ষণ বলের প্রভাবেই এটি নিজের অক্ষ থেকে ২৭ ডিগ্রি বেঁকে গেছে।
সূত্র : আনন্দবাজার


আরো সংবাদ


premium cement