২৭ নভেম্বর ২০২২, ১২ অগ্রহায়ন ১৪২৯, ২ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি
`

শুরু হলো মাদানী নগর মাদরাসার মাহফিল, উপস্থিত থাকবেন দেশ-বিদেশের বরেণ্য আলেমরা

মাদানী নগর মাদরাসার ছবি - ছবি : সংগৃহীত

রাজধানীর বিখ্যাত দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান দারুল উলূম মাদানী নগরের উদ্যোগে তিনদিন ব্যাপী এক ইসলাহি মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে। এ মাহফিলে উপস্থিত থাকবেন ভারত ও বাংলাদেশের বরেণ্য ওলামায়ে কেরাম।

মাহফিলটি বৃহস্পতিবার মাগরিবের পর থেকে শুরু হয়েছে। শুক্র ও শনিবারও মাহফিলের কার্যক্রম চলমান থাকবে। শনিবার আখেরি মুনাজাতের মাধ্যমে এ আয়োজনের সমাপ্তি ঘটবে।

মাহফিলে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন ভারতের বিখ্যাত দ্বীনি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান দারুল উলুম দেওবন্দের মুহাদ্দিস আওলাদে রাসূল সায়্যিদ আরশাদ মাদানি। এছাড়াও উপস্থিত থাকবেন ভারতের প্রখ্যাত আলেমে দ্বীন মাওলানা সোহরাব আলী কাসেমি।

বাংলাদেশী শীর্ষ আলেমদের মধ্যে উপস্থিত থাকবেন ওলামা বাজার মাদরাসার প্রবীন উস্তাদ মাওলানা নুরুল ইসলাম, কাকরাইলের তাবলীগি মারকাজের মুরুব্বী মাওলানা জুবায়ের আহমাদ, আকবর কমপ্লেক্সের মুহতামিম মুফতি দেলাওয়ার হোসাইন, মারকাযুদ দাওয়া ঢাকার শিক্ষাসচিব মুফতি আব্দুল মালেক, রাজশাহীর শীর্ষ আলেম মাওলানা জামালুদ্দিন সন্দ্বীপী ও মুফতি উমর ফারুক সন্দ্বীপী প্রমুখ।

সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা যায়, তিন দিনব্যাপী এ ইসলাহি মাহফিলে দারুল উলুম মাদানী নগরের প্রতিষ্ঠাতা মাওলানা ইদরিস সন্দ্বীপীর ভক্তরা দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে উপস্থিত হয়েছেন। এছাড়াও বিপুল পরিমাণ অন্যান্য সাধারণ মানুষের উপস্থিতি রয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র আরো জানায়, এ মাহফিল গতানুগতিক ধারার কোনো মাহফিল নয়। এখানে বক্তারা এমন কিছু আলোচনার চেষ্টা করেন, যাতে ভক্তদের আত্মীক উন্নতি সাধিত হয়। আলোচনা শুনে যেন তাদের জীবনে পরিবর্তন আসে।

আগত লোকজনের সাথে কথা বলে জানা যায়, তিন দিনব্যাপী এ মাহফিলে তারা মাদরাসাতেই অবস্থান করবেন। ভক্তদের সময় যেন যথাযথভাবে কাজে লাগে, সেজন্য মাদরাসার পক্ষ থেকে রয়েছে শিক্ষামূলক নানা উদ্যোগ। মাদরাসার প্রত্যেক কামরার জন্য একাধিক প্রশিক্ষকের ব্যবস্থা রয়েছে। তারা আগত মেহমানদের নামাজ-কালাম শিক্ষা দেবেন। প্রয়োজনীয় মাসয়ালা-মাসায়েল শেখাবেন। এ সময় তাদেরকে বিশুদ্ধভাবে কুরআন তেলাওয়াতেরও মশক করানো হবে।

কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলে জানা যায়, প্রতিদিন মাহফিলের কার্যক্রম ফজরের পর শুরু হবে। সকালে কয়েকজন বক্তার বয়ানের মধ্য দিয়ে প্রাথমিক পর্ব শেষ হবে। পরে বেলা ১০টার দিকে মানুষকে নামাজ-কালাম ও প্রাত্যহিক জীবনের প্রয়োজনীয় মাসায়েল শিক্ষা দেয়া হবে। জোহরের পরও শেখানোর ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকবে। পরে  আসরের আগ থেকে আবার বয়ান শুরু হবে। এশার আগ পর্যন্ত দেশ-বিদেশের বিভিন্ন উলামায়ে কেরাম বয়ান করবেন। এশার পর আর কোনো আলোচনা হবে না।

কর্তৃপক্ষ জানান, আমরা সর্বাত্মক চেষ্টা করি, যেন এখানে যারা আসেন, তাদের সময়ের সদ্ব্যবহার হয়। এ সময়ে আমরা তাদের জন্য এমন আলোচনারই ব্যবস্থা করি, তা তাদের জীবন পরিবর্তনে সহায়ক হবে।

উল্লেখ্য, দারুল উলুম মাদানী নগর মাদরাসার প্রতিষ্ঠাতা মাওলানা ইদরিস সন্দ্বীপী ছিলেন উম্মাহর চিন্তায় সদানিবেদিত এক মহৎপ্রাণ মনীষা। তিনি সর্বস্তরের মানুষের কাছে দ্বীনের শিক্ষা বিস্তারের লক্ষে বাংলাদেশ, আমেরিকা ও আবুধাবীসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে দেড় শতাধিক কওমী মাদরাসা প্রতিষ্ঠা করেছেন। এসব মাদরাসাকে নিয়ন্ত্রণের সুবিধার্তে গঠন করেছেন তালীমী বোর্ড মাদারিসে কাওমিয়া আরাবিয়া নামের স্বতন্ত্র শিক্ষাবোর্ড। দেশব্যাপী রয়েছে তার অসংখ্য ভক্ত মুরিদান। তাদেরকে আধ্যাত্মিক দিক-নির্দেশনা দেয়ার জন্য আয়োজন করতেন এ বার্ষিক ইসলাহি জোড়। তার ইন্তেকালের পর তার মিশন চালিয়ে নিচ্ছেন তারই সুযোগ্য সন্তান মাওলানা ফয়জুল্লাহ সন্দ্বীপী।


আরো সংবাদ


premium cement