০৪ জুলাই ২০২২, ২০ আষাঢ় ১৪২৯, ৪ জিলহজ ১৪৪৩
`

হজের সফরে বিস্ময়করভাবে জন্ম নেয়া শিশুরা ও তাদের অভিনব সুন্দর নাম

হজের সফরে বিস্ময়করভাবে জন্ম নেয়া শিশুরা ও তাদের অভিনব সুন্দর নাম। - ছবি : সংগৃহীত

গোটা দুনিয়ার সমগ্র মুসলিম উম্মাহর-ই স্বপ্ন থাকে যে, জীবনে একবার হলেও পবিত্র দুই নগরী মক্কা-মদিনা জিয়ারত করবেন। যারা জীবনে অন্তত একবার বাইতুল্লাহ তাওয়াফ করতে ও রাসূল সা:-এর রওজায় সালাম পেশ করতে পেরেছেন, তারা অবশ্যই নিজেদের বিশেষ সৌভাগ্যবান মনে করেন। কিন্তু এদের চেয়েও এমন কিছু বিরল সৌভাগ্যবান মানুষও থাকেন, যাদের সন্তানের জন্ম-ই হয় এই দুই শহরের কোনো একটিতে, তাও আবার হজের সফরে, তাহলে তো কথাই নেই। এমন-ই ১০টি শিশু, বিস্ময়করভাবে হজের সফরে যাদের জন্ম হয়েছে ও তাদের জন্মের স্থান অনুসারে তাদের অভিনব সুন্দর নাম রাখা হয়েছে। তা তুলে ধরা হলো-

সাফা ও মারওয়া
পাকিস্তানি নারী তাহেরা ইয়াসমিন। ২০১২ সালে হজের সফরে যান, তখন সাফা-মারওয়া সাঈ করার সময় দুটি কন্যা সন্তানের জন্ম দিয়ে মনোযোগের কেন্দ্রবিন্দুতে আসেন তিনি। এ আশ্চর্যজনক ঘটনায় শুধু মা তাহেরা ইয়াসমিন-ই খুশি হননি; বরং তার পরিবারের প্রতিটি সদস্যের মুখেই আনন্দের ছাপ পরিলক্ষিত হয়। তারা সিদ্ধান্ত নেন- জন্মস্থান পবিত্র সাফা-মারওয়ার নামেই বাচ্চাদের নাম রাখবেন। রাখেনও তাই। পরে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ঘটনাটি বেশ আলোচিত হয়।

মিনা ও আরাফাহ
পরের বছরের ঘটনা। ২০১৩ সাল। হজের সফরে ইসহাক নামে আরেক পাকিস্তানির স্ত্রীর কোলজুড়ে যমজ দুই কন্যা সন্তানের জন্ম হয়। এর আগে ইসহাক এক দুর্ঘটনায় অসুস্থ হয়ে পড়েন। কিন্তু তিনি সবসময় একটি দোয়া করতেন-আল্লাহ যেন মক্কায় তার সন্তানের জন্ম দান করেন। আল্লাহ তার দোয়া কবুল করলেন। এতে যেমন খুশি হন ইসহাক, সাথে কিছুটা পেরেশানিতেও পড়েন। কেননা, তারা ভাবেননি যে, এই সময়েই তাদের সন্তান পৃথিবীতে আসতে পারে। কারণ, তখন তার হাত একেবারেই খালি; কোনো পয়সা-কড়ি নেই। জানলে টাকা-পয়সা সাথে নিয়ে যেতেন অবশ্যই। তবে এমন মুহূর্তে তাদের পাশে এসে দাঁড়ান হজে তার সফরসঙ্গীরা। তারা তাদের সন্তান মিনা ও আরাফাহর খরচের জন্য বেশ কিছু অর্থ দিয়ে সাহায্য করেন।

হারাম ও হাজার
এরাও পাকিস্তানি দম্পতি। নয় বছর যাবত কোনো সন্তান হয় না। ২০১৮ সালে তারা মক্কায় যান পবিত্র হজ আদায়ের জন্য। সেখানেই আল্লাহ তাদের দুটি যমজ সন্তান দান করেন। তারাও আল্লাহর এমন দানে শুকরিয়া আদায় করেন। এবং সন্তানদের নাম রাখেন হারাম ও হাজার। যেহেতু হারাম শরিফে হাজরে আসওয়াদের পাশে তাদের জন্ম।

আরো তিন শিশু
একবার হজের সফরে একইসাথে এক মা তিনটি সন্তানের জন্ম দেন। এই তিন শিশুর জন্ম রীতিমতো আলোড়ন সৃষ্টি করতে সক্ষম হয়। চিকিৎসক জানান, গর্ভবতী ওই নারী হজের সফরে ছিলেন। হঠাৎ তার পেটব্যথা। পরে হাসপাতালে নেয়া হয় তাকে। এর মাত্র ১৫ মিনিট পরই একেক করে তিন তিনটি সন্তানের জন্ম দেন তিনি। তবে তাদের কী নাম রাখা হয়, তা জানা যায়নি।

সূত্র : হামারি ওয়েব


আরো সংবাদ


premium cement