২৯ মে ২০২২, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২৭ শাওয়াল ১৪৪৩
`
প্রফেসর ড. কাউছার মোঃ বাকী বিল্লাহ’র

‘হাদীস শরীফের প্রামাণিকতা : কল্পিত সংশয়ের অপনোদন’ বইয়ের রিভিউ

‘হাদীস শরীফের প্রামাণিকতা : কল্পিত সংশয়ের অপনোদন’ বইয়ের রিভিউ - নয়া দিগন্ত

মহাগ্রন্থ আল কুরআন ইসলামী শরীয়ার প্রধান উৎস। এর দ্বিতীয় উৎস হলো আল-হাদীস। হাদীসের সংগ্রহ, সংকলন এবং গ্রন্থাবদ্ধকরণের ইতিহাস ও প্রেক্ষাপট অনেক দীর্ঘ। একজন বিজ্ঞানী যেমন ল্যাবরেটরীতে গিয়ে পরীক্ষা নিরীক্ষার মাধ্যমে বিজ্ঞান বিষয়ে যথাযথ ফলাফলে উপনীত হন, অনুরূপভাবে হাদীস বিশারদগণও রিওয়ায়াত, দিরায়াত এবং জারহ ওয়া তা‘দীলের মাধ্যমে পরীক্ষা নিরীক্ষা করে বিশুদ্ধ হাদীসগুলোকে য‘ঈফ এবং মাওযূ‘আত থেকে রক্ষা করে সেগুলোকে গ্রন্থাবদ্ধ করেন।

এই বিষয়ে মুহাদ্দিসগণের অনুসৃত নীতিমালা আমি ‘হাদীস সংকলনের ইতিকথা’ গ্রন্থে আলোকপাত করার চেষ্টা করেছি। মহানবীর স. যুগে কেন হাদীস লেখার সার্বজনীন অনুমোদন ছিল না, কীভাবে এই যুগে হাদীসসমূহ সংরক্ষিত হয়, এই সম্পর্কে মহানবীর স. মহান সাহাবীগণ কী ভূমিকা পালন করেছেন বিশে^র সকল ভাষায় এই বিষয়ে বিস্তারিত গ্রন্থরাজি প্রণীত হয়েছে। এর পরেও যুগে যুগে ইসলাম বিদ্বেষীরা, কোনো কোনো মুসলিম নামধারী ব্যক্তিও হাদীসের যথার্থতা ও প্রামাণিকতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। আর দেশী-বিদেশী অনেক স্কলার এইসব অভিযোগের একাডেমিক জবাব দিয়েছেন।

বাংলাদেশের বেশ কয়েকজন ইসলামিক স্কলার বিষয়টি নিয়ে কলম ধরেছেন। ইসলামী বিশ^বিদ্যালয় কুষ্টিয়ার আরবী ভাষা ও সাহিত্য বিভাগের প্রফেসর বিশিষ্ট লেখক ও গবেষক ড. কাউছার মোঃ বাকী বিল্লাহ এই বিষয়ে ‘হাদীস শরীফের প্রামাণিকতা : কল্পিত সংশয়ের অপনোদন’ শীর্ষক অনবদ্য গ্রন্থ রচনা করেছেন।

বইটিতে বিস্তারিত দলীল-প্রমাণাদির মাধ্যমে বিভিন্ন সম্প্রদায়ের হাদীস অস্বীকারের বিবরণসহ যাবতীয় কল্পিত সংশয়ের মূলোৎপাটনপূর্বক হাদীস শরীফের প্রামাণিকতাকে অকাট্যভাবে সাব্যস্ত করা হয়েছে। এছাড়া উক্তগ্রন্থে হাদীস, ‘উলূমুল-হাদীস এবং সহীহ, দ্ব‘য়ীফ, মাওদ্বূ‘সহ হাদীসের প্রকারভেদসমূহের বিবরণ ও হুকুম বিস্তারিতভাবে আলোচনা করা হয়েছে। এতে মোট আটটি অধ্যায় এবং প্রতিটি অধ্যায়ের অধীনে অনেকগুলো পরিচ্ছেদ রয়েছে। অধ্যায়গুলো হলো :
প্রথম অধ্যায় : হাদীস : পরিচয়; গুরুত্ব ও অপরিহার্যতার আলোকে প্রামণিকতা
দ্বিতীয় অধ্যায় : হাদীস : প্রকারভেদ ও হুকম
তৃতীয় অধ্যায় : ‘আমল ও আহকাম বিষয়ে দ্ব‘য়ীফ হাদীসের অবস্থান ও হুকম
চতুর্থ অধ্যায় : হাদীস অস্বীকার ও সংশয় সৃষ্টি : সূচনা ও ক্রমবিকাশ
পঞ্চম অধ্যায় : হাদীস সংরক্ষণ ও সংকলনের প্রকৃত ইতিহাসের আলোকে এ (সংকলন) বিষয়ে সৃষ্ট সংশয়ের প্রকৃতি ও বাস্তবতা
ষষ্ঠ অধ্যায় : হাদীসের মূলপাঠ (মতন) বিষয়ে সৃষ্ট সংশয় : প্রকৃতি নিরূপণ ও মূল্যায়ন এবং এক্ষেত্রে মুহাদ্দিসগণের ভূমিকা ও কর্মপদ্ধতি পর্যালোচনা
সপ্তম অধ্যায় : হাদীসের রাভীগণের (বর্ণনাকারীগণের) গ্রহণযোগ্যতা মূল্যায়নে হাদীস-বিশারদগণের (মুহাদ্দিসগণের) কর্মপদ্ধতি ও এতদ্বিষয়ে সৃষ্ট সংশয়ের পর্যালোচনা
অষ্টম অধ্যায় : সৃষ্ট সংশয়াবলীসহ হাদীস শাস্ত্রের অন্যান্য মতপার্থক্যের কারণে মুসলিম সমাজে সৃষ্ট প্রভাব।

প্রফেসর ড. কাউছার মোঃ বাকী বিল্লাহ একজন উদীয়মান আলিম ও গবেষক। এই ধরনের একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় অবলম্বনে গ্রন্থ রচনা করে তিনি একদিকে যেমন তার একাডেমিক যোগ্যতার প্রমাণ দিয়েছেন, অপরদিকে তিনি একটি দ্বীনি ও জাতীয় দায়িত্ব পালন করেছেন। এই গ্রন্থখানি হাদীস শাস্ত্রের অনুসন্ধিৎসু পাঠক ও গবেষকদের জন্য উপাদেয় গ্রন্থ হিসেবে বিবেচিত হবে এবং হাদীসের যথার্থতা, গ্রহণযোগ্যতা ও প্রামাণিকতা বিষয়ে সৃষ্ট সংশয় নিরসন করবে বলে আমার দৃঢ় বিশ্বাস। এতদ্ব্যতীত গ্রন্থখানি বাংলাদেশের বিশ^বিদ্যালয়সমূহসহ কওমী ও আলীয়া মাদ্রাসাসমূহের সিলেবাসভুক্ত করা গেলে জাতি অনেক উপকৃত হত বলে মনে করছি। আমি এই মূল্যবান গ্রন্থের বহুল প্রচার কামনা করছি।

‘হাদীস শরীফের প্রামাণিকতা : কল্পিত সংশয়ের অপনোদন’ বইয়ের লেখক ড. কাউছার মোঃ বাকী বিল্লাহ-এর মোবাইল নম্বর : ০১৭১৬-৫৮০৯২৯

উপরিক্ত রিভিউটি লিখেছেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের আরবী বিভাগের প্রফেসর ড. আ. ক. ম. আবদুল কাদের।


আরো সংবাদ


premium cement

সকল