০১ ডিসেম্বর ২০২২, ১৬ অগ্রহায়ন ১৪২৯, ৬ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি
`

রংপুরের বিদ্যুৎ আসে ২ ঘণ্টা পরপর, থাকে ১ ঘণ্টা করে

রংপুরের বিদ্যুৎ আসে ২ ঘণ্টা পরপর, থাকে ১ ঘণ্টা করে -

রংপুর মহানগরীসহ বিভাগের আট জেলায় বিদ্যুৎ আসে দুই ঘণ্টা পর পর। থাকে এক ঘণ্টা করে। এ নিয়ে ক্ষুব্ধ মানুষ আর মিডিয়ার সাথেও কথা বলতে চান না তারা। নেসকো বলছে চাহিদামত সরবরাহ না থাকায় শিডিউল অনুযায়ী কোনোভাবেই বিদ্যুৎ সরবরাহ করতে পারছেন না তারা।

নেসকোর রংপুর কার্যালয়ের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী আশরাফুল আলম মণ্ডল জানান, চাহিদা অনুযায়ী বিদ্যুৎ না পাওয়ায় লোডশেডিংয়ের শিডিউল দিয়েও তা আমরা মানতে পারছি না।

তিনি জানান, রংপুর বিভাগের আট জেলায় দিন-রাতে বিদ্যুতের চাহিদা ৯০০ থেকে ৯৫০ মেগাওয়াট। এর বিপরীতে পাওয়া যাচ্ছে ৪৫০ থেকে ৫৫০ মেগাওয়াট। এর মধ্যে রংপুরে প্রতিদিন বিদ্যুৎের চাহিদা ১৫০ থেকে ১৫৫ মেগাওয়াট। আমার পাচ্ছি ৭৫ থেকে ৮০ মগাওয়াট।

নেসকো সূত্র বলছে, নেসকোর ৩৩/১১ কেভি সাবস্টেশনের অধীনে রংপুর মহানগরীতে ২৩টি ফিডার রয়েছে। গত ১৯ জুলাই থেকে তাতে প্রতিটি ফিডারে দিনে একবার করে লোডশেডিং দেয়ার নির্দেশনা রয়েছে। কিন্তু কোনোভাবেই সেটা মানা হচ্ছে। সোমবার (৮ জুলাই) সকাল থেকে সন্ধা ৭ টা পর্যন্ত প্রতি দুই ঘন্টা পর পর বিদ্যুতের লোডশেডিং হয়েছে। যখন বিদ্যুৎ এসেছে তখন বিদ্যুৎ থেকেছে মাত্র ১ ঘণ্টা করে।

একারণে মানুষ ক্ষুব্ধ। এ বিষয়ে ভুক্তভোগিদের সাথেও কথা বলার চেষ্টা করলে তারা মিডিয়াকে কোনো কিছু বলতে চান না। সন্ধায় অন্তত ১০ জন বিভিন্ন পেশার ব্যক্তির সাথে কথা বলার চেষ্টা করা হলে তারা এ প্রতিবেদককে জানান, আপনারা তো মিডিয়াতে সব সময় দেখাচ্ছেন, লিখছেন। কিন্তু কোনো তো উন্নতি হলো না। এগুলো আপনাদেরকে বলে কোনো লাভ নেই। বরং নিয়তি হিসেবেই আমরা মেনে নিয়েছি। এটাই আমাদের পাওনা ছিল। সেটা পাচ্ছি।


আরো সংবাদ


premium cement