০৬ জুন ২০২০

হাসপাতালে ঠাঁই পেলেন জ্বর নিয়ে স্টেশনে পড়ে থাকা সেই নারী

হাসপাতালে ঠাঁই পেলেন জ্বর নিয়ে স্টেশনে পড়ে থাকা সেই নারী - ছবি : সংগৃহীত

পঞ্চগড় রেলস্টেশনে জ্বরে আক্রান্ত হয়ে পড়ে থাকা এক নারী পুলিশের হস্তক্ষেপে সাত দিন পর হাসপাতালে ঠাঁই পেয়েছেন। করোনাভাইরাস আতঙ্কে এত দিন তাকে উদ্ধারে এগিয়ে আসেননি কেউ।

পুলিশ জানায়, মনোয়ারা বেগম (৪২) নামে ওই নারী ২৪ মার্চ ট্রেনে করে দিনাজপুর থেকে পঞ্চগড়ে এসে নামেন। এরপর থেকে তিনি স্টেশনেই ছিলেন। তার কিছুটা মানসিক সমস্যা রয়েছে। তিনি জ্বর, সর্দি ও কাশিতে ভুগলেও করোনা সংক্রামণের ভয়ে কেউ তার কাছে যাচ্ছিলেন না। শেষ পর্যন্ত ৩০ মার্চ রাতে পঞ্চগড় পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ইউসুফ আলীর নজরে বিষয়টি আসলে তিনি তাকে সদর হাসপাতালে ভর্তির ব্যবস্থা করেন।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু আককাছ আহমদ জানান, মনোয়ারা বেগম দিনাজপুরের বালুবাড়ি থেকে পঞ্চগড়ে আসেন। তার স্বামীর নাম সেলিম বলে তিনি জানিয়েছেন। কিন্তু কোথায় যাবেন তা বলতে পারছেন না। পারিবারিক কলহের জেরে তিনি বাড়ি থেকে বের হয়ে আসতে পারেন বলে পুলিশ ধারণা করছে।

সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা ডা. সিরাজউদ্দৌলা পলিন বলেন, ‘হাসপাতালের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের মাধ্যমে মনোয়ারা বেগমকে পরীক্ষা করা হয়েছে। তার শরীরে করোনা সংক্রমণের উপসর্গ পাওয়া যায়নি। তবে টানা কয়েক দিন খোলা আকাশের নিচে থাকায় তিনি জ্বর এবং সর্দি-কাশিতে আক্রান্ত হন। চিকিৎসা পেয়ে তিনি বর্তমানে সুস্থ আছেন। তারপরও তাকে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে।’

জেলা পুলিশ সুপার ইউসুফ আলী জানান, উদ্ধারের সময়ে ওই নারীকে করোনাভাইরাস প্রতিরোধী জীবাণুনাশক স্প্রে করে পুলিশ হাসপাতালে নিয়ে যায়। চিকিৎসকরাও ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম (পিপিই) ব্যবহার করে তার কাছে যান। ‘শেষ পর্যন্ত ওই নারীকে হাসপাতালে ভর্তি করে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। তবে তার শরীরে করোনা ভাইরাসের কোনো উপসর্গ পাওয়া যায়নি। খোলা আকাশের নিচে থাকা ও খাওয়ার ব্যবস্থা না থাকায় তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন।’

সূত্র : ইউএনবি


আরো সংবাদ





justin tv