২৮ জানুয়ারি ২০২৩, ১৪ মাঘ ১৪২৯, ৫ রজব ১৪৪৪
ads
`

তাড়াশে ককটেল বিস্ফোরণ মামলায় বিএনপির ৫ নেতাকর্মী আটক

তাড়াশে ককটেল বিস্ফোরণের মামলায় বিএনপির ৫ নেতাকর্মী আটক - ছবি : নয়া দিগন্ত

সিরাজগঞ্জের তাড়াশে ককটেল বিস্ফোরণের মামলায় বিএনপির পাঁচ নেতাকর্মীকে আটক করেছে থানা পুলিশ।

মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে উপজেলার তাড়াশ-রানীরহাট আঞ্চলিক সড়কের লাউতা চার মাথা আকবর আলী বাজারে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার পার তালম ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো: মোজ্জামেল হক মজনু অজ্ঞাত ১২০ জনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন।

পরে পুলিশ রাতভর উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে পাঁচ বিএনপির নেতাকর্মীকে আটক করে।

আটক আসামিরা হলেন, উপজেলার তালম ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি মো: সোহরাব হোসেন (৫৫), ইউনিয়ন যুবদলের আহ্বায়ক মো: দিদার খাঁন (৪২), তাড়াশ উপজেলা যুব দলের যুগ্ম আহ্বায়ক মোঃ রাজিব আহম্মেদ মাসুম (৩৮), বারুহাস ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের সাধারণ সম্পাদক ডা. মুক্তার হোসেন সরকার (৪৫) ও মাধাইনগর ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের সাধারণ সম্পাদক মোঃ আবুল কালাম আজাদ (৪০)।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন তাড়াশ থানার পুলিশ পরির্দশক (ওসি) মো: শহিদুল ইসলাম। থানা পুলিশ সূত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে বিএনপির নেতা-কর্মীরা উপজেলার তাড়াশ-রানীরহাট আঞ্চলিক সড়কের লাউতা চার মাথা আকবর আলী বাজার এলাকায় ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে পালিয়ে যান।

এ ঘটনায় তালম ইউনিয়ন ২ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো: মোজ্জামেল হক মজনু অজ্ঞাত ১২০ জনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন। পরে তাড়াশ থানা পুলিশ বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে ওই পাঁচ নেতা-কর্মীকে আটক করে। তবে স্থানীয় বাসিন্দা আবু জাফর হোসেন কোনো শব্দ বা এ ধরনের কোনো ঘটনা ঘটেনি বলে সাংবাদিকদের জানান।

তাড়াশ উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম টুটুল বলেন, আগামী ৩ ডিসেম্বর রাজশাহী বিভাগীয় সমাবেশকে সামনে রেখে ভয়ভীতি দেখাতে এ ধরনের গায়েবী মামলা করেছেন। এটি সরকারের দমন-পীড়নের একটি কৌশলমাত্র।

এ প্রসঙ্গে তাড়াশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো: শহিদুল ইসলাম বলেন, আটককৃত আসামিদের বুধবার সকালে সিরাজগঞ্জ আদালতে পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে।


আরো সংবাদ


premium cement