১০ ডিসেম্বর ২০২২, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ১৫ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি
`

শেরপুরে আওয়ামী লীগ নেতা হত্যায় গ্রেফতার ৫, বহিষ্কার ৪ যুবলীগকর্মী

শেরপুরে আওয়ামী লীগ-নেতা হত্যায় গ্রেফতার ৫, বহিষ্কার ৪ যুবলীগ-কর্মী - ছবি : সংগৃহীত

বগুড়ার শেরপুরে আওয়ামী লীগ-নেতা শেখ মর্তুজা কাওসার অভিকে (৩৮) কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় ছাত্রলীগ, যুবলীগ ও শ্রমিকলীগের পাঁচ নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এ ছাড়া দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে যুবলীগের চার নেতাকর্মীকেও দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

হত্যার ঘটনায় গ্রেফতাররা হলেন- শেরপুর শহর যুবলীগের সদস্য ও উপজেলার খন্দকারপাড়ার বাসিন্দা আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ হিমেল (৩২), শহর যুবলীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক পূর্বদত্তপাড়া এলাকার সোহাগ হোসেন (৩০), নয়াপাড়া এলাকার জাহিদ হোসেন (২৬), উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আরিফুর রহমান শুভ (৩৫), শেরপুর পৌর যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রিয়াজুল ইসলাম বাপ্পি (৩৭)।

বৃহস্পতিবার রাতে অভিযান চালিয়ে সিরাজগঞ্জের কাজীপুর থেকে ছাত্রলীগ নেতা শুভ ও যুবলীগ নেতা বাপ্পিকে ডিবি পুলিশ গ্রেফতার করে। বাকি তিনজনকে শেরপুর উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে গ্রেফতার করে শেরপুর থানার পুলিশ।

শেরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ আতোয়ার রহমান খোন্দকার এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

এর আগে, শুক্রবার দুপুরে শেরপুর থানায় হত্যা মামলা করেন নিহতের স্ত্রী খাদিজা আক্তার লিমা। মামলায় আটজনের নাম উল্লেখ করে ও অজ্ঞাত আরো আট থেকে নয়জনকে আসামি করা হয়। নাম উল্লেখ করা আসামিরা হলেন- উপজেলার মির্জাপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক শহরের নয়াপাড়া (কোর্টপাড়া) এলাকার জাহাঙ্গীর আলম (৩২), শ্রমিক লীগ নেতা রকি (২৭), উলিপুরপাড়া এলাকার বাসিন্দা যুবলীগ নেতা এনামুল মুসলিমিন সোহাগ (৩৫)।

নিহত অভি শেরপুর পৌর এলাকার খন্দকার পাড়ার মৃত হোসাইন কাওসার ফুয়াদের ছেলে। তিনি শেরপুর পৌর আওয়ামী লীগের প্রস্তাবিত কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন।

এদিকে সংগঠন বিরোধী কার্যকলাপে জড়িত থাকায় বগুড়ার শেরপুরের চার যুবলীগ নেতাকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে। বহিষ্কৃতরা হলেন- শেরপুরের মির্জাপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম, শেরপুর শহর যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রিয়াজুল ইসলাম বাপ্পি, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক মোহাম্মদ এনামুল মুসলিম সোহাগ, শহর যুবলীগ সদস্য আব্দুল আল মাহমুদ হিমেল।

বগুড়া জেলা যুবলীগের সভাপতি শুভাশীষ পোদ্দার লিটন ও সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম ডাবলু জানায়, সংগঠন বিরোধী কার্যকলাপে জড়িত থাকায় তাদেরকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে। তারা চারজন অভি হত্যা মামলার এজাহারভুক্ত আসামি।

উল্লেখ্য, গত বুধবার সন্ধ্যায় শেরপুর উপজেলা পরিষদ চত্বর এলাকায় দলীয় কোন্দলের জেরে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে তাকে হত্যা করা হয়।


আরো সংবাদ


premium cement