৩০ নভেম্বর ২০২২, ১৫ অগ্রহায়ন ১৪২৯, ৫ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি
`

মাইক্রোবাস নিয়ে এসএসসি পরীক্ষার্থীকে অপহরণের চেষ্টা

মাইক্রোবাস নিয়ে এসএসসি পরীক্ষার্থীকে অপহরণের চেষ্টা - নয়া দিগন্ত

রাজশাহীর পুঠিয়ায় পরীক্ষা শেষে বাড়ি ফেরার পথে এক এসএসসি পরীক্ষার্থীকে মারধর করে মাইক্রোবাসে তুলে নেয়ার চেষ্টা করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনার সময় আশেপাশের লোকজনকে ছুটে আসতে দেখে অপহরণকারীরা দ্রুত পালিয়ে যায়। গুরুতর আহত অবস্থায় ভুক্তভোগী ওই পরীক্ষার্থী ও তার স্বামীকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

বুধবার (২৮ সেপ্টেম্বর) দুপুর ২টার দিকে উপজেলার ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়কের ঝলমলিয়া কোল্ড স্টোরেজের সামনে এ ঘটনা ঘটে। ভুক্তভোগী মেয়েটির স্বামীর বাড়ি উপজেলার বালিয়াডাঙ্গা গ্রামে।

ভুক্তভোগীর স্বামী বলেন, তিন বছর আগে আমাদের বিয়ে হয়। বিয়ের পর বাচ্চা হওয়ায় কয়েক বছর সে পরীক্ষায় অংশ নিতে পারেনি। এবার সরিষাবাড়ি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করছে। আর পরীক্ষা কেন্দ্র হচ্ছে পুঠিয়া পিএন সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়। আর বুধবার ছিল শেষ পরীক্ষা। দুপুরে পরীক্ষা শেষে আমি তাকে নিয়ে ভ্যানযোগে বাড়ি ফিরছিলাম। পথে ঝলমলিয়া বাজারের শীর্ষ সন্ত্রাসী ও কানাইপাড়া গ্রামের আইউব আলীর ছেলে নাজমুল হোসেনের নেতৃত্বে ৭/৮ জনের একটি দল মাইক্রোবাস নিয়ে আমাদের গতিরোধ করে। পরে তারা আমাকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে আমার স্ত্রীকে মাইক্রোবাসে তোলার চেষ্টা করে। এ সময় আমাদের চিৎকারে লোকজন ছুটে আসা দেখে তারা পালিয়ে যায়। পরে ওই লোকজন আমাদেরকে হাসপাতালে ভর্তি করেছে।

প্রত্যক্ষদর্শী আব্দুস সালাম বলেন, কানাইপাড়া গ্রামের নাজমুলের নেতৃত্বে একটি সন্ত্রাসী গ্রুপ রয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে গত কয়েক বছর থেকে এলাকায় চাঁদাবাজি,
অপহরণ ও মেয়েদের যৌন হয়রানিসহ নানা অপর্কমের অভিযোগ রয়েছে। বুধবার ওই গ্রুপের নাজমুল, কামরুল ইসলাম, শাজাহানসহ ৬/৭ জন যুবক এক মহিলাকে ভ্যান থেকে টেনে নামায়। এ সময় তাদের চিৎকার চেঁচামেচি শুনে লোকজন দৌড়ে যাওয়া দেখে তারা একটি মাইক্রোবাস নিয়ে দ্রুত পালিয়ে যায়।

ভুক্তভোগী ছাত্রীটি বলেন, পরীক্ষার শুরু থেকে নাজমুল ও তার লোকজন আমাকে ফলো করতো। যার কারণে প্রতিটি পরীক্ষায় আমার স্বামীকে সাথে নিয়ে আসতাম। আজ পরীক্ষার শেষ দিন তারা আমাকে অপহরণের চেষ্টা করে। এ বিষয়ে আজ (বুধবার) বিকেলে নাজমুলসহ ৭ জনের নাম উল্লেখ করে থানায় একটি অভিযোগ দেয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে থানার ওসি সোহরাওয়ার্দী হোসেন অভিযোগের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ওই মেয়ে পরীক্ষা দিয়ে স্বামীর সাথে বাড়ি ফিরছিল। পথে কিছু লোকজন ভুক্তভোগীকে মঅপহরণের চেষ্টা করছিল বলে অভিযোগে উল্লেখ করেছে। ইতিমধ্যে অভিযুক্তদের আটকে থানা পুলিশ বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালাচ্ছে।


আরো সংবাদ


premium cement