১৫ আগস্ট ২০২২
`

‘এই ব্যক্তি দুর্নীতি করলে আমার পিঠে চাবুক মেরো’ এই কথা থেকে ফিরলেন আ’লীগ-নেতা

এই ব্যক্তি দুর্নীতি করলে আমার পিঠে চাবুক মেরো’ এই কথা থেকে ফিরলেন আ’লীগ-নেতা। - ছবি : সংগৃহীত

সিরাজগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য অধ্যাপক ডা: আব্দুল আজিজের ওপর আস্থা হারিয়ে জনগণের কাছে ক্ষমা চেয়েছেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য ড. হোসেন মনসুর।

সোমবার রাত ১০টায় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়ে ক্ষমা চান আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপ-কমিটির এ চেয়ারম্যান।

‘মনোনয়ন চাই বা না চাই, ক্ষমা প্রার্থী’ শিরোনামে নিজের ছবিসহ পোস্টে গত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দেয়া প্রতিশ্রুতি প্রত্যাহার করে
রায়গঞ্জ-সলঙ্গা-তাড়াশবাসীর কাছে ক্ষমা চান হোসেন মনসুর।

স্থানীয় সংসদ সদস্য অধ্যাপক ডা: আব্দুল আজিজকে ইঙ্গিত করে ফেসবুকে তিনি লেখেন, ‘একটি মানুষের ওপর বিশ্বাস রেখে পাঙ্গাসী, ধানগড়া, সাহেবগঞ্জ ও তাড়াসের জনসভায় আমি এই বলে অঙ্গীকার করেছিলাম, এই ব্যক্তিটি যদি দুর্নীতি করে, মানুষের নিকট থেকে অবৈধভাবে অর্থ গ্রহণ করে, সরকারি উন্নয়ন প্রকল্পের টাকা বা গরিবের জন্য বরাদ্দকৃত সরকারি অনুদান আত্মসাৎ করে অথবা পরিবারতন্ত্র চালু করে, তাহলে আমার পিঠে চাবুক মেরো।এর আগে যদি আমি মারাও যাই তবে আমার কবরে চাবুক মেরো।’

তিনি আরো লিখেন, ‘আমার কাছে মানুষের অভিযোগ ও তথ্যের ভিত্তিতে আমি তার ওপর সকল আস্থা হারিয়েছি। এজন্য আমি আমার উপরোক্ত অঙ্গীকারের জন্য অনুতপ্ত। তাই আমি রায়গঞ্জ-সলঙ্গা-তাড়াশবাসীর কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করছি।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ড. হোসেন মনসুর বলেন, ‘গত নির্বাচনে ডা: আব্দুল আজিজ আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেলেও এলাকার লোকজন তাকে চিনতো না। আমি তাকে নিয়ে পাঙ্গাসী, ধানগড়া, সাহেবগঞ্জ ও তাড়াসে জনসভা করি। সেখানে যেসব অঙ্গীকার
করেছিলাম, তার উল্টো হয়েছে। আমার কাছে অনেক অভিযোগ ও তথ্য আছে। এর জন্য ক্ষমা চেয়েছি।’

উল্লেখ্য, গত ২৬ মার্চ রাতে তাড়াশ উপজেলার বারুহাস ইউনিয়নের বিনোদপুরে একটি জনসভায় সংসদ সদস্য ডা: মো: আব্দুল আজিজকে হাইব্রিড আওয়ামী লীগ বলে মন্তব্য করেন ড. হোসেন মনসুর। তিনি আরো বলেন, আব্দুল আজিজ কখনই আওয়ামী লীগের রাজনীতি করেননি। তার পরিবার ও আত্মীয়-স্বজন কেউ আওয়ামী রাজনীতির সাথে যুক্ত নয়। এ ছাড়া এ তার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগও তোলেন দলের উপদেষ্টামণ্ডলীর এ সদস্য।


আরো সংবাদ


premium cement