২৩ জানুয়ারি ২০২২, ০৯ মাঘ ১৪২৮, ১৯ জমাদিউস সানি ১৪৪৩
`

কাটাখালীর আলোচিত মেয়র আব্বাস এখন কারাগারে, রিমান্ড চেয়েছে পুলিশ

কাটাখালী পৌরসভার বহুল আলোচিত মেয়র আব্বাস আলী - নয়া দিগন্ত

রাজশাহীর কাটাখালী পৌরসভার বহুল আলোচিত মেয়র আব্বাস আলীকে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন জানিয়ে আদালতে সোপর্দ করেছে পুলিশ। রাজশাহী নগরীর বোয়ালিয়া মডেল থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন মামলায় বৃহস্পতিবার সকালে তাকে আদালতে নেয়া হয়। পরে আদালতের নির্দেশে তাকে রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়।

এর আগে বুধবার সকালে রাজধানী ঢাকার একটি আবাসিক হোটেল থেকে তাকে আটক করে র‌্যাব। পরদিন বৃহস্পতিবার ভোরে তাকে নিয়ে রাজশাহী পৌঁছায় বোয়ালিয়া মডেল থানা পুলিশ।

রাজশাহী মহানগর পুলিশের (আরএমপি) মুখপাত্র ও অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (সদর) মো: গোলাম রুহুল কুদ্দুস গণমাধ্যমকে এসব তথ্য দেন। তিনি বলেন, বুধবার রাতে র‌্যাবের কাছ থেকে পৌর মেয়র আব্বাসকে গ্রহণ করে বোয়ালিয়া মডেল থানা পুলিশ। এরপর তাকে নিয়ে রাজশাহীর উদ্দেশে রওনা দেয়া হয়। সকাল ৭টা ৪০ মিনিটে তাকে নিয়ে রাজশাহী পৌঁছায় পুলিশ। এরপর বোয়ালিয়া মডেল থানায় করা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে তাকে আদালতে সোপর্দ করে পুলিশ। এ সময় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তার বিরুদ্ধে ১০ দিনের রিমান্ডের আবেদন জানায় পুলিশ। তবে এর শুনানি হয়নি। আগামী রোববার রিমান্ড আবেদনের শুনানি হতে পারে। পরে আদালতের নির্দেশে তাকে রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়।

বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল স্থাপন নিয়ে কটূক্তির অভিযোগে কাটাখালী পৌরসভার মেয়র আব্বাস আলীর বিরুদ্ধে ২৩ নভেম্বর রাতে বোয়ালিয়া মডেল থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলার এজাহার দেয়া হয়। পরে পুলিশ সদর দফতরের অনুমোদনের পর ২৪ নভেম্বর মামলাটি গ্রহণ করা হয়। রাজশাহী সিটি করপোরেশনের ১৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি আব্দুল মোমিন এ মামলা করেন। মামলাটি রেকর্ড করেন থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) শাহাবুল আলমকে তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

এরপর কাটাখালী পৌরসভার মেয়র আব্বাস আলী গা ঢাকা দেন। তিনি গ্রেফতার এড়াতে দেশ ছেড়ে পালানোর পরিকল্পনা করেছিলেন। ওই উদ্দেশ্যে ঢাকার একটি হোটেলে আত্মগোপনে ছিলেন তিনি। বুধবার ভোরে তাকে আটকের পর এসব তথ্য জানান র‌্যাবের মুখপাত্র কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।

সম্প্রতি কাটাখালী পৌর মেয়রের একটি কথোপকথনের অডিও ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে। ২২ নভেম্বর রাত থেকে ১ মিনিট ৫১ সেকেন্ডের ওই অডিওটি ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে। আব্বাস আলী প্রাথমিকভাবে ভাইরাল হওয়া অডিও রেকর্ডটি তার বলে স্বীকার করলেও বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কটূক্তির অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

আব্বাস আলী রাজশাহীর পবা উপজেলার কাটাখালী পৌর আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক ও জেলা আওয়ামী লীগের নির্বাহী সদস্য। তিনি আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকে নির্বাচিত হয়ে টানা দু’মেয়াদে মেয়রের দায়িত্বে আছেন। এরই মধ্যে তাকে দলীয় পদ থেকে অপসারণ করা হয়েছে। এছাড়া মেয়র আব্বাস আলীকে অপসারণে অনাস্থা এনেছেন কাউন্সিলররা। এ অনাস্থা প্রস্তাব সংবলিত অপসারণের আবেদনপত্র রাজশাহী জেলা প্রশাসকের কাছে জমা দিয়েছেন তারা।


আরো সংবাদ


premium cement