২২ জুন ২০২১
`

সাঁথিয়ায় স্ত্রীকে হত্যায় স্বামী আটক

সাঁথিয়ায় স্ত্রীকে হত্যায় স্বামী আটক - ছবি- নয়া দিগন্ত

পাবনার সাথিয়ায় আঙ্গুরী (২০) নামে এক গৃহবধূকে শ্বাসরোধ করে হত্যার অভিযোগে সেনাসদস্য স্বামী রাকিবকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শনিবার সকালে উপজেলার পার-করমজা গ্রামের ইছামতি নদীর কিনারায় কচুরিপানার মধ্যে থেকে নিহতের লাশ উদ্ধারের পর স্বামীকে গ্রেফতার করা হয়।

পুলিশ ও পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, দু’বছর আগে সাঁথিয়া উপজেলার ফেঁচুয়ান গ্রামের চাদু শেখের ছেলে সেনাসদস্য রাকিবের সাথে বিয়ে হয় পাশের বেড়া পৌরসভার শম্ভুপুর মহল্লার কাদের ড্রাইভারের মেয়ে আঙ্গুরী বেগমের। বিয়ের পর থেকেই স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে বনিবনা হচ্ছিল না। এ নিয়ে অনেক দেনদরবার হয়ে ছাড়াছাড়ির পর্যায়েও গিয়েছিল।

এর মধ্যে গত ২৫ রমজান স্বামী রাকিব স্ত্রী আঙ্গুরী বেগমকে তার বাবার বাড়িতে রেখে আসেন। ঈদের আগের দিন বৃহস্পতিবার রাত ২টার দিকে স্ত্রী আঙ্গুরী বেগমকে ফোন দিয়ে বাড়ির বাইরে বের হতে বলেন স্বামী রাকিব। এই সুযোগে তাকে মোটরসাইকেলে তুলে নিয়ে পার-করমজা ও সরিষা গ্রামের মাঝামাঝি জায়গায় পৌঁছালে আঙ্গুরী বেগম প্রাকৃতিক ডাকে সাড়া দেয়া কথা বললে ওই স্থানে থামানো হয় মোটরসাইকেল। এর পর আঙ্গীর ইছামতি ডাইকের পাশে নেমে প্রস্রাব করতে গেলে পেছন দিক থেকে তাকে ওড়না পেচিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে ইছামতি নদীতে কচুরিপানার মধ্যে ফেলে রেখে রাখেন স্বামী রাকিব।

এ দিকে আঙ্গুরীর বাবা মেয়েকে বাড়িতে না পেয়ে ঈদের দিন সকালে বেড়া থানায় গিয়ে অপহরণের অভিযোগ দেন। অপর দিকে ঈদের দিন জামাই রাকিবকে আসার জন্য দাওয়াত দেন শ্বশুর কাদের ড্রাইভার। পরে রাকিব কয়েকজন বন্ধুবান্ধবসহ শ্বশুরবাড়িতে গেলে লোকজন তাকে আটকিয়ে পুলিশে খবর দেয়। পরে বেড়া থানার পুলিশ তাকে আটক করে থানায় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদে হত্যার কথা স্বীকার করেন তিনি।

পুলিশ জানিয়েছে, রাকিবের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে পার–করমজা ঈছামতি নদীর কিনারায় কচুরির মধ্যে থেকে আঙ্গুরীর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে শনিবার সকালে।

পাবনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাসুদ আলম জানান, লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় হত্যা মামলা দায়ের প্রক্রিয়াধীন।



আরো সংবাদ