১৭ এপ্রিল ২০২১
`

রাণীনগরে ব্রি-বোরো রোপণে ব্যস্ত কৃষকরা

রাণীনগরে ব্রি-বোরো রোপণে ব্যস্ত কৃষকরা - ছবি : নয়া দিগন্ত

উত্তর জনপদের শষ্যভাণ্ডার খ্যাত নওগাঁর আত্রাইয়ে অতিরিক্ত ব্রি ও বোরো ধানের ফলন হয়। এ কারণে উপজেলার কৃষকরাও বেশি করে দেশীয় জাতের এসব ধান চাষে দিন দিন আগ্রহী হচ্ছেন। বর্তমানে জমি চাষ, চারা উত্তোলন, চারা রোপণ ও পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় পার করছেন উপজেলার কৃষকরা। চলতি মৌসুমে বোরো ধানের বীজতলা তৈরি ও চারা রোপণের আগ্রহ দেখে এমনটাই ধারণা করছে উপজেলা কৃষি বিভাগ। তবে শ্রমিকদের মজুরি বেশি হওয়ায় চারা রোপণে খরচের পরিমাণ বাড়ছে বলে কৃষকরা জানিয়েছেন।

গত বছর উপজেলায় বোরো ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১৭ হাজার ৯৫০ হেক্টর জমি। চলতি বছরে বোরো ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা ১৮ হাজার ৮৮৫ হেক্টর জমিতে। এ বছর বোরো ধান একটু আগেই রোপণ শুরু হয়েছিল, তা এখনো চলছে। এ পর্যন্ত ৯০ ভাগ জমিতে বোরো ধান রোপণ হয়েছে। আশা করা যাচ্ছে, আগামী সপ্তাহের মধ্যে লক্ষ্যমাত্রার প্রায় শতভাগ জমিতে বোরো ধানের চারা রোপণ শেষ হবে।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, আটটি ইউনিয়নের প্রতিটি ব্লকে কম-বেশি বোরো ধান চাষ হচ্ছে। উপজেলার কৃষকদের প্রশিক্ষণের মাধ্যমে কম জমিতে উন্নত জাতের বোরো ধান চাষ করে বেশি ফলন পেতে ব্যাপক সহায়তা করছে কৃষি বিভাগ। উন্নত জাতের বীজ ও সার বিতরণ করে কৃষি বিভাগ উপজেলার কৃষকদেরকে সার্বক্ষণিক পরামর্শ দিয়ে আসছে। যেন রোপণ করা চারা সঠিক যত্ন সহকারে বড় হতে পারে।

উপজেলার সাহাগোলা ইউনিয়নের মির্জাপুর গ্রামের ইকরাইল হোসেন, মেহেদী হাসান ও গোলাপসহ কয়েকজন কৃষক বলেন, গত বছর শুরুতে অতি বৃষ্টি হওয়ায় অনেক জমিতে চারা রোপণ করতে দেরি হয়েছিল। চলতি মৌসুমে তারাতারি বিলের পানি নেমে যাওয়ায় সময়মতো জমিতে বোরো ধানের চারা রোপণ সম্ভব হয়েছে।

রসুলপুর গ্রামের ফাদিল হোসেন বলেন, গত বছরের চেয়ে এ বছর আমি বেশি জমিতে বোরো ধানের চাষ করেছি। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আমাকে ধান চাষে সার্বক্ষণিক পরামর্শ দিচ্ছে। সঠিক পরিচর্যা, আবহাওয়া ভালো থাকায় ও কীটপতঙ্গের আক্রমণ না হলে এ বছর বোরো ধানের বাম্পার ফলন হবে বলে আশা করছি।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ কে এম কাউছার হোসেন বলেন, অল্প সময়ের মধ্যে বাকি জমিতে বোরো ধান রোপণ সম্পন্ন হবে। রোগ-বালাইয়ে ক্ষেতের পরিচর্যার বিষয়ে কৃষি অফিস সব সময় কৃষকদের পরামর্শ দিয়ে আসছে। আশা করি, এবার রাণীনগরে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বোরো মৌসুমে অতিরিক্ত ফলন পাওয়া যাবে।



আরো সংবাদ