২০ এপ্রিল ২০২১
`
প্রধান আসামি যুবলীগ নেতা আমিনুল পলাতক

উচ্চ আদালতের জামিন জাতিয়াতির ঘটনায় ১৪ জন কারাগারে

উচ্চ আদালতের জামিন জাতিয়াতির ঘটনায় ১৪ জন কারাগারে - ফাইল ছবি

বগুড়া মোটর মালিক গ্রুপের অভ্যন্তরীণ কোন্দলের জের ধরে সংঘর্ষের ঘটনায় দায়েরকৃত মামলায় জালিয়াতির ঘটনায় ১৪ আসামিকে কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত।

এর আগে উচ্চ আদালত ওই ৩০ জনকে সাত দিনের মধ্যে গ্রেফতারের নির্দেশ দেন। বুধবার বিকেলে ৩০ জনের মধ্যে ১৪ জন আদালতে হাজির হয়ে জামিন আবেদন করলে আদালত তা নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন।

আদালত সূত্রে জানা যায়, গত ৯ ফেব্রুয়ারি মোটর মালিক গ্রুপের কার্যালয় দখল নিয়ে সংঘর্ষের ঘটনায় মোটর মালিক গ্রুপের সদস্য মশিউল আলম চাঁদাবাজি, মারধর ও বিস্ফোরকদ্রব্য আইনে বগুড়া সদর থানায় একটি মামলা করেন। মামলা দায়েরের পর ১৪ ফেব্রুয়ারি উচ্চ আদালতের দুজন বিচারকের নাম ব্যবহার করে ভুয়া জামিন নামা তৈরি করে ৩০ জনের জামিন হয়েছে বলে কাগজপত্র বগুড়া সদর থানায় জমা দেন। পরে বিষয়টি ফাঁস হয়ে যায়। উচ্চ আদালতের (হাইকোর্ট) একটি বেঞ্চ ভুয়া জামিন নামায় অভিযুক্ত ৩০ জনকে সাত কার্য দিবসের মধ্যে গ্রেফতারের নির্দেশ দেন। এই নির্দেশের পর বুধবার ৩০ জনের মধ্যে ১৪ জন আসামি বগুড়ার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে স্বেচ্ছায় হাজির হয়ে জামিনের আবেদন করলে আসামি ও রাষ্ট্রপক্ষের শুনানি শেষে সকল আসামির জামিন আবেদন নামঞ্জুর করেন আদালতের বিচারক আসমা মাহমুদ। আদালতের নির্দেশে বুধবার বিকেলেই আসামিদের জেলহাজতে পাঠিয়ে দেয় কোর্ট পুলিশ।

কারাগারে পাঠানো আসামিরা হলেন লিটন, মানিক, জাকির, তানভির, গণি, রাসেল মন্ডল, আসাদুজ্জামান, খোকন, শিপন, আল মামুন, দিপ্ত, রাজিব, হেলাল ও রাব্বী।

উল্লেখ্য, এই মামলার প্রধান আসামি বগুড়া পৌরসভার ১৫ নম্বর ওয়ার্ডের নবনির্বাচিত কাউন্সিলর যুবলীগ নেতা আমিনুল ইসলাম হাইকোর্ট থেকে ভুয়া জামিননামা বগুড়া সদর থানায় দাখিল করলে সেটি ধরা পড়ে। এ মামলায় আমিনুল সহ ১৭ জন আসামি এখনো পলাতক রয়েছেন।



আরো সংবাদ