২৫ অক্টোবর ২০২০

সোনাতলার মেধাবী কলেজছাত্রের লাশ কাশিমপুরে উদ্ধার

সোনাতলার মেধাবী কলেজছাত্রের লাশ কাশিমপুরে উদ্ধার - ছবি : নয়া দিগন্ত

বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার এক মেধাবী ছাত্রের ঝুলন্ত লাশ গাজীপুরের একটি বাসা থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। বুধবার পার্শ্ববর্তী একটি অটো গ্যারেজ থেকে তার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

জানা গেছে, ওই কলেজছাত্রের নাম রবিউল ইসলাম (১৮)। সে সোনাতলা উপজেলার দিগদাইড় মধ্যপাড়ার এমদাদুল হক ও স্ত্রী হামিদা বেগমের ছেলে।

সে প্রায় ২-৩ বছর যাবত ঢাকায় গার্মেন্টস কর্মী হিসেবে কর্মরত ছিল। সেখানে অবস্থানের এক পর্যায়ে গত মঙ্গলবার দিবাগত রাত সাড়ে ৯টার তিকে মা ও ছেলে গার্মেন্টসের দায়িত্ব পালন শেষে গাজীপুর জেলার কাশিমপুর উপজেলার সবুজ কলন এলাকায় বাসায় ফিরে আসে। এরপর মা ও ছেলে রাতের খাবার শেষে নিজ রুমে টিভি দেখছিল। এমন সময় রবিউল ইসলাম তার মাকে বলে বাইরে যায়।

তার মা হামিদা বেগম রুমে টিভি দেখার এক পর্যায়ে ঘুমিয়ে পড়েন। এরপর রাত ১২টায় ঘুম থেকে জেগে ঘরের দরজা খোলা এবং ঘরে ছেলেকে দেখতে না পেয়ে বাসার বাইরে খোঁজাখুজির জন্য বেরিয়ে পড়ে। খোঁজাখুঁজির এক পর্যায়ে পার্শ্ববর্তী একটি অটো গ্যারেজে রবিউলের ঝুলন্ত লাশ দেখতে পায়।

পরে বিষয়টি কাশিমপুর থানা পুলিশকে অবগত করলে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে লাশ উদ্ধার করে। এ বিষয়ে কাশিমপুর থানায় একটি সাধারণ ডায়রি করা হয়েছে। ময়না তদন্তের পর পুলিশ বুধবার বিকাল ৪টায় তার পরিবারের কাছে লাশ হস্তান্তর করে।

উল্লেখ্য, রবিউল সংসারের দারিদ্রতার কারণে ঢাকায় গার্মেন্টস কর্মীর পেশা বেছে নেয়। পাশাপাশি সে গাজিপুর ডিগ্রী কলেজে দ্বাদশ শ্রেণীর মানবিক বিভাগের শিক্ষার্থী ছিল। ২০১৮ সালে বগুড়ার সোনাতলার মহিচরণ বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে জিপিএ-৫ অর্জন করে। এছাড়াও সে প্রাথমিক ও জুনিয়র বৃত্তি পরীক্ষায় ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি লাভ করে। রবিউলের মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

এ বিষয়ে কাশিমপুর থানার একজন এসআই জানান, ওই যুবক নিজেই আত্মহত্যা করতে পারে। তবে পরিবারের সদস্যদের ধারণা পূর্ব শত্রুতার জের ধরে দূর্বৃত্তরা তাকে হত্যার পর লাশ ঝুলিয়ে রেখে যেতে পারে।


আরো সংবাদ