০৫ এপ্রিল ২০২০

মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রীকে গলাকেটে হত্যা, ছেলে পলাতক

সিরাজগঞ্জ শহরে এক মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রীকে গলাকেটে হত্যার ঘটনা ঘটেছে। নিহত ওই নারীর নাম রাশিদা খানম নাজু (৬৫)। তিনি সাবেক একজন স্বাস্থ্য সহকারী কর্মকর্তা ও মৃত মুক্তিযোদ্ধা তোজাম্মেল হক মাস্টারের স্ত্রী। মঙ্গলবার সকাল ৯টার দিকে সিরাজগঞ্জ শহরের টিএনটি কলনী এলাকায় বাড়ি থেকে নিহতের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। তবে এ ঘটনার পর থেকে নিহতের বড় ছেলে স্বাস্থ্যকর্মী নাহিদ ইমরান লিয়ন পলাতক রয়েছেন।

নিহতের ছোটভাই রানা আহমেদ বলেন, স্বামী মুক্তিযোদ্ধা তোজাম্মেল হক মাস্টার মারা যাওয়ার পর থেকে বড় ছেলে নাহিদ ইমরান লিয়ন ও পুত্রবধূ পিংকিকে নিয়ে সিরাজগঞ্জ শহরের টিএনটি কলনী এলাকায় বসবাস করতেন রাশিদা খানম। মঙ্গলবার সকালে পুত্রবধূ পিংকি তার ছেলেকে নিয়ে স্কুলে যান। পরে বাড়ি ফিরে ঘরে শাশুড়ি রাশিদার গলাকাটা লাশ বিছানায় পড়ে থাকতে দেখেন তিনি। এসময় পিংকির চিৎকারে প্রতিবেশিরা ছুটে আসে। পরে স্থানীয়রা পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে নিহতের লাশ উদ্ধার করে।

সিরাজগঞ্জ জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার স্নিগ্ধা আক্তার বলেন, ধারালো ছুরি বা অস্ত্র দিয়ে বৃদ্ধা রাশিদা খানমকে গলাকেটে হত্যা করা হয়েছে। নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। হত্যাকাণ্ডের ঘটনাটি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

এদিকে অপর একটি সূত্র জানিয়েছে, নিহতের বড় ছেলে নাহিদ জুয়া খেলে অনেক টাকা ঋণ করে ফেলে। ওই টাকার জন্য বিভিন্ন সময়ে তার মায়ের সাথে ঝগড়া হতো। টাকা চাওয়াকে কেন্দ্র করে মায়ের সাথে কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে সে এই ঘটনা ঘটাতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

তবে জেলা পুলিশ সুপার হাসিবুল আলম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে সাংবাদিকদের জানান, হত্যাকাণ্ডের সঠিক কারণ জানা যায়নি। হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ছুরিতে ঘাতকের হাতের ছাপ পাওয়া গেছে। দ্রুত এই হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটন ও হত্যাকারীকে গ্রেফতার করা সম্ভব হবে বলে আশা করছি।


আরো সংবাদ