২৭ অক্টোবর ২০২০

স্পেসেস অধিগ্রহণ করেছে অ্যাপল

-


নতুন ভার্চুয়াল রিয়ালিটি প্রতিষ্ঠান ‘স্পেসেস’ কিনেছে অ্যাপল। স্পেসেস কোভিড-১৯ মহামারীর সময়ে ভিআর বা কৃত্রিম বাস্তবতা অভিজ্ঞতার পাশাপাশি জুম মিটিংয়ে ভার্চুয়াল অ্যাভাটার ব্যবহারের ব্যবস্থা করে দিয়ে আলোচনায় আসে। কোভিড-১৯ বাস্তবতায় নিজেদের বাস্তব দুনিয়ার ব্যবসায়ে ইতি টানতে বাধ্য হয়েছিল প্রতিষ্ঠানটি, কিন্তু নিজেদের কাজ থামায়নি। ‘ফেস-স্ক্যানিং’ প্রযুক্তি সম্পন্ন একটি প্ল্যাটফর্ম গড়ে তুলে তার মাধ্যমে চেহারা স্ক্যান করা এবং তা ভার্চুয়াল অ্যাভাটারের ওপর বসানোর ব্যবস্থা করেছিল তারা। চাইলে ব্যবহারকারীরা যাতে ওই ভিআর সেটআপ জুমের সাথে সংযুক্ত করে নিতে পারে এবং নিজেদের কার্টুন সংস্করণ সামনে নিয়ে আসতে পারে, সে ব্যবস্থাও করেছিল প্রতিষ্ঠানটি।
যদিও স্পেসেস নিজেদের যাত্রা শুরু করেছিল স্বাধীনভাবে কৃত্রিম বাস্তবতায় ঘুরে বেড়ানোর অভিজ্ঞতা দিয়ে। চলচ্চিত্র প্রতিষ্ঠান ড্রিমওয়ার্কস অ্যানিমেশন থেকে যাত্রা শুরু হয়েছিল প্রতিষ্ঠানটির। প্রথম প্রকল্পে টারমিনেটর থিমের ভিআর গেইম খেলার ব্যবস্থা করে দিয়েছিল স্পেসেস। নিজেদের ভিআর গেমে ‘ফেস ট্র্যাকিং’ প্রযুক্তি ব্যবহার করে বাজার প্রতিদ্বন্দ্বীদের তুলনায় স্পেসেস আরো বেশি আকর্ষণীয় করে তুলেছিল ভিআর গেমকে। প্রতিষ্ঠানটির দেয়া অভিজ্ঞতায় ভিআর গেম খেলার আগে দেয়ালে থাকা ক্যামেরার মাধ্যমে গেমারের চেহারা স্ক্যান করে নেয়া হতো, তারপর সে ডেটার আলোকে তৈরি করে দেয়া হতো গেমের ভেতরের অ্যাভাটারটি। পুরোপুরি নিখুঁত না হলেও ভিআর গেমে নতুন মাত্রা যোগ করতে পেরেছিল স্পেসেস।
ফেস ট্র্যাকিং ও কার্টুন অ্যাভাটারে আগে থেকেই অ্যাপল আগ্রহী। এর সবচেয়ে বড় প্রমাণ অ্যাপলের ‘মিমোজি’ ফিচার। হতে পারে নিজেদের ভিআর/এআর প্রচেষ্টায় স্পেসেসের প্রযুক্তি জুড়ে দিতে এবং ফেস টাইমে ভার্চুয়াল ক্যারেক্টার নিয়ে আসার লক্ষ্যে স্পেসেস কিনেছে অ্যাপল।

 


আরো সংবাদ