০১ ডিসেম্বর ২০২১, ১৬ অগ্রহায়ন ১৪২৮, ২৫ রবিউস সানি ১৪৪৩ হিজরি
`

মানবতার কল্যাণে স্বাস্থ্যসেবা দিচ্ছে জামায়াত : বুলবুল


মানবতার কল্যাণে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের অ্যাম্বুলেন্স সেবা কার্যক্রমে নতুন আরো দু’টি যুক্ত হয়েছে। বৃহস্পতিবার নতুন অ্যাম্বুলেন্স দু’টির উদ্বোধন করেন কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ সদস্য ও ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের আমির নূরুল ইসলাম বুলবুল।

এ সময় নূরুল ইসলাম বুলবুল বলেছেন, দেশের মানুষের কল্যাণে জামায়াত সবসময় অগ্রণী ভূমিকা পালন করে আসছে। আমরা ২০২০ সালের কোভিড-১৯ বা করোনাভাইরাসের কঠিন পরিস্থিতি থেকেই অবিরাম তিনটি অ্যাম্বুলেন্স দিয়ে সাধারণ মানুষকে ফ্রি স্বাস্থ্যসেবায় সহযোগিতা দিয়ে আসছি। এরই ধারাবাহিকতায় আরো দু’টি অ্যাম্বুলেন্স যুক্ত হলো।

তিনি বলেন, আমাদের সূধী শুভানুধ্যায়ী ভাই বোনদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই। তাদের একান্ত সহযোগিতায় ঢাকা মহানগরী দক্ষিণ জামায়াত মানবসেবায় নানা কর্মসূচি বাস্তবায়ন করতে সক্ষম হচ্ছে। বর্তমানে ঢাকা মহানগরী দক্ষিণ জামায়াত লাশবাহী অ্যাম্বুলেন্স সেবাসহ সাধারণ মানুষকে নিরবচ্ছিন্নভাবে স্বাস্থ্যসেবা দিয়ে যাচ্ছে।

এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের নায়েবে আমির মঞ্জুরুল ইসলাম ভূঁইয়া, কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের সেক্রেটারি ড. শফিকুল ইসলাম মাসুদ, কেন্দ্রীয় মজলিশে শূরা সদস্য ও ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের সহকারী সেক্রেটারি যথাক্রমে অ্যাডভোকেট ড. মো: হেলাল উদ্দিন, মুহা. দেলোয়ার হোসেন ও মু. আব্দুল জব্বার, কেন্দ্রীয় মজলিশে শূরা সদস্য ও ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের কর্মপরিষদ সদস্য অধ্যাপক মোকাররম হোসাইন, ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের কর্মপরিষদ সদস্য কামাল হোসেন, ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের মজলিশে শূরা সদস্য শাহিন আহমদ খান প্রমুখ।

নেতাকর্মীদের মুক্তি দেয়ার আহ্বান

কুমিল্লা জেলার লাকসাম থানা পুলিশের করা মিথ্যা বানোয়াট ও রাজনৈতিক হয়রানিমূলক মামলায় শ্রমিক কল্যাণ ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সহ-সাধারণ সম্পাদক ড. সৈয়দ সরওয়ার উদ্দিন সিদ্দীকিসহ ২৯ জন রাজনৈতিক নেতাকর্মীকে জেলহাজতে পাঠানোর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে শ্রমিক কল্যাণ ফেডারেশন। অবিলম্বে নেতাকর্মীদের মুক্তি দিতে সরকারের প্রতি আহ্বানও জানানো হয়েছে।

বৃহস্পতিবার এক যৌথ বিবৃতিতে বাংলাদেশ শ্রমিক কল্যাণ ফেডারেশনের ভারপ্রাপ্ত কেন্দ্রীয় সভাপতি অধ্যাপক হারুনুর রশিদ খান ও সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আতিকুর রহমান এ আহ্বান জানান।

নেতৃবৃন্দ বলেন, আমরা মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করে অবিলম্বে ড. সৈয়দ সরওয়ার উদ্দিন সিদ্দিকীসহ সকল রাজনৈতিক বন্দিদের মুক্তি দিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।

বিবৃতিতে বলা হয়, সারাদেশের মানুষ যখন দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতিতে দিশাহীন। তখন সরকার জনগণের দুর্দশা দূরীকরণের বদলে বিরোধী মত দমনে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে। সংবিধান দেশের প্রতিটি নাগরিককে দলমত করার অধিকার দিয়েছে। কিন্তু বর্তমান সরকার সংবিধানের প্রতি শ্রদ্ধাশীল না। তাই তারা কোন কিছুর তোয়াক্কা না করে সারাদেশে বিরোধী রাজনৈতিক নেতাকর্মীদের নামে লাখো লাখো মামলা দিয়ে দেশের রাজনীতিতে এক নতুন মামলাজট সৃষ্টি করেছে, যা নিয়ে দেশের মানুষের মনে প্রচণ্ড ক্ষোভের সৃষ্টি করেছে।

বিবৃতিতে অবিলম্বে সকল রাজনৈতিক নেতাকর্মীর মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও তাদের মুক্তি দিয়ে সরকারকে শুভবুদ্ধির পরিচয় দেবার জানানো হয়।

‘সেদিন দেশ এক অগণতান্ত্রিক শক্তির কবলে পড়ে’

বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী বগুড়া শহর শাখার উদ্যোগে ২০০৬ সালের ২৮ অক্টোবর লগি-বৈঠার তাণ্ডবে নির্মমভাবে শাহাদাতদের ঘটনা স্মরণে ভার্চুয়াল এক আলোচনা সভা ও দোয়া অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল মাওলানা আবদুল হালিম।

প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন, ২৮ অক্টোবর ঢাকার পল্টনে তদানীন্তন আওয়ামী নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় জোটের সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর টার্গেট ছিল জামায়াতে ইসলামীর শীর্ষ নেতৃবৃন্দকে হত্যা করা এবং গণতান্ত্রিক ধারা বাধাগ্রস্ত করে দেশকে অস্থিতিশীল করা। ২০০৬ সালের ২৮ অক্টোবরে লগিবৈঠার তাণ্ডবের ধারাবাহিকতায় ২০০৭ সালে ১১ জানুয়ারিতে দেশে জরুরী অবস্থা জারি হয়। জাতীয় নির্বাচন ভণ্ডুল হয় এবং দেশ এক অগণতান্ত্রিক শক্তির কবলে পড়ে।

সেদিন দেশপ্রেমিক নেতৃবৃন্দকে হত্যা করার মাধ্যমে দেশে ইসলামী আন্দোলনের অগ্রযাত্রাকে মুছে ফেলার ভয়াবহ ষড়যন্ত্র হয়েছিল। আমাদের নেতাকর্মীদের সেদিনের সাহসী ভূমিকা ও শাহাদাত এ কাফেলার জন্য ও দেশ গঠনে অনুপ্রেরণা হয়ে থাকবে।

শহর জামায়াতের আমির অধ্যক্ষ আবিদুর রহমানের সভাপতিত্বে ও শহর জামায়াতের সেক্রেটারি অধ্যাপক অ স ম আব্দুল মালেকের সঞ্চালনায় আরো বক্তব্য রাখেন শহর জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি অধ্যাপক আবদুল হাকিম, ইসলামী ছাত্রশিবির বগুড়া শহর শাখার সভাপতি মো: শাহিন আলম প্রমুখ। দোয়া পরিচালনা করেন কেন্দ্রীয় মজলিসে শূরা সদস্য ও বগুড়া অঞ্চলের টিম সদস্য অধ্যক্ষ মাওলানা আব্দুল হক। বিজ্ঞপ্তি



আরো সংবাদ