১৩ জুন ২০২১
`

এবারের ঈদ কষ্টের ও দুঃসময়ের : ফখরুল

এবারের ঈদ কষ্টের ও দুঃসময়ের : ফখরুল - ছবি : নয়া দিগন্ত

এবারের ঈদ ‘কষ্টের ও দুঃসময়ের’ বলে মন্তব্য করে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আজকে ঈদুল ফিতর পালিত হচ্ছে- অত্যন্ত একটা কষ্টের মধ্য দিয়ে, দুঃসময়ে। একদিকে কোভিড করোনার ভয়াবহ আক্রমণ, অন্যদিকে সরকারের অত্যাচার-নির্যাতন-নিপীড়ন। এই দুই দানবের হাত থেকে এই দেশ যেন রক্ষা পায়, জনগণ যেন রক্ষা পায়, সেই দোয়া আমরা আল্লাহ‘তালার কাছে আমরা করেছি, তিনি যেন এই তৌফিক দেন যে আজকে সারা দেশে যে কর্তৃত্ববাদ প্রতিষ্ঠিত হয়েছে তার থেকে মুক্ত করার জন্য আমরা সেই শক্তি অর্জন করতে পারি, জনগণকে সঙ্গে নিয়ে আমরা ফ্যাসিবাদকে পরাজিত করতে পারি সেই দোয়া আমরা করেছি।

আজ শুক্রবার ঈদের নামাজ শেষে সকালে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের কবর জিয়ারতের পর সাংবাদিকদের কাছে বিএনপি মহাসচিব এই প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন।

তিন বছর ধরে কারাবন্দি দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে ছাড়া দলের নেতা-কর্মী ও দেশবাসী ঈদ কেমন পালন করছে জানতে চাইলে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ঈদ বলতে আমরা যেটা সবসময় বুঝি সেই ঈদ আমাদের শুধু তিন বছর নয়, সত্যিকথা বলতে কী গত এক যুগ ধরেই আমাদের ঈদ নেই। কারণ আমাদের নেতা-কর্মীদের হত্যা করে, মিথ্যা মামলা দিয়ে ভয়াবহ অবস্থায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে। শুধু আমাদের নেতা-কর্মীদের মধ্যেই ৩৫ লাখ লোক আসামি হয়ে আছেন। যারা আসামি হন, তাদের পরিবারে কখনো ঈদ আসে না। এটা বাস্তবতা।

তিনি বলেন, এই সরকারের এত নির্মম যে তাদের অত্যাচার-নির্যাতনও বর্ণনাতীত। ওই অবস্থার মধ্য দিয়ে আমরা চলছি। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া যখন আমাদের সাথে থাকেন তখন উজ্জীবিত হই, তিনি অনুপ্রাণিত করেন। তিনি কারাগারে ছিলেন তিন বছর। এভাবে আমরা অনুপ্রাণিত হয় যে তিনি তো আছেন, বেঁচে আছেন, তিনি আমাদের সাথে আমাদেরকে অনুপ্রেরণা দান করেন। এই অনুপ্রেরণা নিয়ে আমরা সামনের দিকে এগিয়ে যাবো- এটাই আমাদের আজকের দিনের শপথ।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ঈদ বলতে তো এখন কিছু নেই আসলে। আপনারা দেখেছেন যে সরকারের ভুল নীতির কারণে আজকে কিভাবে আপনার মানুষ বিভ্রান্ত হয়ে গেছে। এমনকি বাড়ি যাওয়ার পথে ইতিমধ্যে পাঁচজন নিহত হয়েছে পথপৃষ্ট হয়ে।

তিনি বলেন, অন্যদিকে দেখুন, তাদের (সরকার) ভুল সিদ্ধান্তের কারণে সমস্যা হচ্ছে। একদিকে তারা বলছে লকডাউন। কিন্তু কোনো লকডাউন পালন হচ্ছে না। গণপরিবহন বন্ধ করেছে, কিন্ত ‍বন্ধ হচ্ছে না। আজকে যদি এই ঘটনাগুলো না ঘটত, সঠিকভাবে পরিকল্পনাগুলো করা হতো, তাহলে এমন হতো না।

তিনি বলেন, আমরা বারবার করে বলছি, প্রণোদনার টাকা যদি সাধারণ মানুষের কাছে গিয়ে পৌঁছত, তাহলে এই অবস্থা হতো না। সাধারণ মানুষ সরকারের কাছ থেকে কোনো প্রণোদনা বা কোনো সাহায্য পায়নি- এটা বাস্তবতা। এটা আমার কথা নয়, অর্থনীতিবিদরা বলছেন। আমরা সেই কারণে বলি যে সরকারের অবিলম্বে যে কাজটা করা দরকার- তাদের বাজেটের একটা বিরাট অংশ- মেগা প্রজেক্ট তারা করছে। এর একটা বড় অংশ জনগণ তথা সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছানো দরকার- এটাই হওয়া উচিত সবার আগে কাজ।



আরো সংবাদ


রামেকে ২৪ ঘন্টায় আরো ১৩ জনের মৃত্যু সোনারগাঁওয়ে বাসের ধাক্কায় বৃদ্ধ নিহত নিলামে ২৩৮ কোটি টাকা দর হেঁকে মহাকাশ যাত্রার টিকিট জয় ‘গোলান মালভূমি মুক্ত করতে সম্পূর্ণ প্রস্তুত’ ‘বাজেট প্রণয়নে এমপিদের অংশ নেয়ার সুযোগ ছিল না’ গণতন্ত্রের মর্যাদার সাথে বেমামান সরকারের কাজকর্ম : ভারতের সমালোচনায় যুক্তরাষ্ট্র এবার ফিলিস্তিনি নারীকে গুলি করে হত্যা করল ইসরাইলি সেনারা পাকিস্তান লিগের ম্যাচে মাথায় আঘাত পেয়ে হাসপাতালে ফ্যাফ দু’প্লেসি প্রথম সিঙ্গলস গ্র্যান্ডস্লাম জিতলেন ডাবলসের স্পেশালিস্ট ক্রিচিকোভা দুর্ধর্ষ বেলজিয়াম, পাত্তাই পেল না রুশ ব্রিগেড ভালো আছেন এরিকসেন, ফিনল্যান্ড জিতল ১ গোলে

সকল