২০ এপ্রিল ২০২১
`

আমরা স্বাভাবিক মৃত্যুর গ্যারান্টি চাই : মির্জা আব্বাস

আমরা স্বাভাবিক মৃত্যুর গ্যারান্টি চাই : মির্জা আব্বাস - ছবি : নয়া দিগন্ত

বিএনপি'র স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস বলেছেন, আজকের প্রতিবাদ সভা কিসের জন্য? কারণ আমরা আমাদের কথা বলার অধিকার চাই, স্বাধীনতা চাই, দেশের মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাপনের নিশ্চয়তা চাই, স্বাভাবিক মৃত্যুর গ্যারান্টি চাই। এতোটুকু কথা বলার জন্য আজকে এখানে এসেছি। এর জন্য কত অত্যাচার, কত গ্রেফতার। এত ভয় কিসের? কাকে এত ভয়! যাকে ভয় পাবেন তাকে (বেগম খালেদা জিয়া) ইতোমধ্যে গ্রেফতার করে আটকে রেখেছেন। যাকে ভয় পাচ্ছেন সেই তারেক রহমান এখন প্রবাসে আছেন। যাকে ভয় পাচ্ছেন সেই শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান এখন মরহুম। তবুও আপনাদের এত ভয় কেন?

শনিবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে লেখক মুশতাক আহমেদ ও সাংবাদিক বুরহান উদ্দিন মুজাক্কির হত্যার প্রতিবাদে জাতীয়তাবাদী স্বেচ্ছাসেবক দল আয়োজিত প্রতিবাদ সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, জিয়াউর রহমান যদি বেঁচে থাকতেন তাহলে দেশের চেহারা এমন হতো না। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার যদি বাইরে থাকতেন তাহলেও দেশের চেহারা এমন থাকতো না। আমাদের বিশ্বাস দেশনায়ক তারেক রহমান যখন দেশে ফিরবেন তখনও দেশের চেহারা এর চাইতে অনেক ভালো থাকবে ইনশাআল্লাহ।

মির্জা আব্বাস বলেন, এদেশে গণতন্ত্র ধ্বংস করে দেয়া হয়েছিল। শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান বহুদলীয় গণতন্ত্র চালু করেছেন এবং দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া সংবাদপত্র ও মানুষের কথা বলার অধিকার ফিরিয়ে দিয়েছে। সংবাদপত্রের স্বাধীনতা দিয়েছে এই বিএনপি। যার ফলে আজকে হাজার হাজার সংবাদপত্র, হাজার হাজার পত্রিকা।

তিনি বলেন, আজকে এই সরকারের আমলে শত-শত সাংবাদিক, লেখক ও কলামিস্টদের জেলে যেতে হচ্ছে। ডিজিটাল বাংলাদেশ বলেন ভালো কথা, ডিজিটাল আইন টা কিসের? ‘ডিজিটাল অ্যাক্টে’ আমাদের জেলে যেতে হবে। আমরা কোনো কথাই বলতে পারব না। এভাবে চলবে না, চলতে পারে না। আপনারা এখানে যারা এসেছেন আমি তাদেরকে ধন্যবাদ জানাই। আমাদের আরো সাহস সঞ্চয় করতে হবে।

প্রতিবাদ সমাবেশে উপস্থিত আছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, স্বেচ্ছাসেবক দলের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদির ভূঁইয়া জুয়েল, সিনিয়র সহ-সভাপতি গোলাম সরোয়ার, সিনিয়র যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম ফিরোজ, সহ-সভাপতি ওয়াহিদ বিন ইমতিয়াজ বকুল, ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক সাঈদ মাহমুদ জুয়েল প্রমুখ।

এর আগে সকাল ৮টা থেকেই প্রেসক্লাবের আশপাশের সকল সড়কের পাশে পুলিশি ব্যারিকেড দেয়া হয়েছে। বিনা অনুমতিতে কাউকেই ঢুকতে দেয়নি পুলিশ। রাস্তার পাশ দিয়ে যাওয়া বাস বা অন্যান্য যানবাহন থেকে কোন বিএনপির নেতাকর্মী নামলে তাদের আটকে রাখা হয়েছে। তবে সকাল থেকেই সহস্রাধিক স্বেচ্ছাসেবকদলের নেতাকর্মীরা প্রেসক্লাবের সামনে বসে বিভিন্ন স্লোগান দিচ্ছে। বেলা বাড়ার সাথে সাথে প্রতিবাদ সমাবেশে নেতাকর্মীর ঢল নেমেছে।



আরো সংবাদ