১৯ এপ্রিল ২০২১
`

বনানীতে এইচ টি ইমামের দাফন সম্পন্ন

উল্লাপাড়া সরকারি আকবর আলী কলেজ মাঠে জানাজার নামাজের দৃশ্য - ছবি : নয়া দিগন্ত

জন্মস্থান সিরাজগঞ্জ ও ঢাকার গুলশানে দুই দফায় জানাজা শেষে বনানী কবরস্থানে প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা এইচ টি ইমামের দাফন সম্পন্ন হয়েছে। বৃহস্পতিবার বাদ আসর রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় তার দাফনে সরকারের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

নয়া দিগন্তের সিরাজগঞ্জ সংবাদদাতা জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টায় উল্লাপাড়ার সোনতলা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে হেলিকপ্টারযোগে তার লাশ আনা হয়। দুপুর ১২টায় উল্লাপাড়া সরকারি আকবর আলী কলেজ মাঠে জানাজার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। এর আগে তাকে গার্ড অব অনার প্রদান করা হয়। এ সময় স্থানীয় সংসদ সদস্য, উল্লাপাড়া আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগসহ সর্বস্তরের জনগণ তাকে ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

জানাজার নামাজে উপস্থিত ছিলেন মরহুমের ছেলে স্থানীয় সংসদ সদস্য তানভীর ইমাম, সিরাজগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য আব্দুল মমিন মন্ডল, সাবেক মন্ত্রী ও সিরাজগঞ্জ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ বিশ্বাস, জেলা প্রশাসক ড. ফারুক আহাম্মদ, সিরাজগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অ্যাডভোকেট কে.এম হোসেন আলী হাসান, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সামাদ তালুকদার, সহ-সভাপতি আবু ইউসুফ সূর্য্য, হাজী ইসহাক আলী, উল্লাপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ফয়সাল কাদের রুমী, সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা গোলাম মোস্তফা, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি আমিরুল ইসলাম আরজু, সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র এস. এম নজরুল ইসলাম, জেলা যুবলীগের সভাপতি রাশেদ ইউসুফ জুয়েল, সাধারণ সম্পাদক একরামুল হক, উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক আরিফুল ইসলাম উজ্জল প্রমুখ। উল্লাপাড়ায় জানাজার নামাজ শেষে হেলিকপ্টারে লাশ ঢাকার নিয়ে যায় ।

সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় প্রথম জানাজা শেষে দুপুর দেড়টার দিকে সর্বস্থরের মানুষের শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য তার লাশ আনা হয় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে। এরপর বাদ আছর গুলশানের আজাদ মসজিদে দ্বিতীয় জানাজা শেষে বনানী কবরস্থানে দাফন করা হয় তাকে।

ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার দিবাগত রাত ১টায় মারা যান এইচ টি ইমাম। তার বয়স হয়েছিল ৮২ বছর। তিনি কিডনি জটিলতাসহ বার্ধক্যজনিত নানা রোগে হাসপাতালে ছিলেন।

এইচ টি ইমাম আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য। ২০০৯ থেকে প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ২০০৯ সালে জনপ্রশাসন-বিষয়ক উপদেষ্টা এবং ২০১৪ সাল থেকে আমৃত্যু প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা ছিলেন তিনি। আওয়ামী লীগের নির্বাচনী পরিচালনা কমিটির দুইবার কো-চেয়ারম্যান এবং প্রচার ও প্রকাশনা উপ-কমিটির চেয়ারম্যান হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন।



আরো সংবাদ