১৯ এপ্রিল ২০২১
`

ছাত্রদল-পুলিশ সংঘর্ষ : সাংগঠনিক সম্পাদকসহ অর্ধশত ছাত্রদল নেতা আহত

ছাত্রদল-পুলিশ সংঘর্ষ : সাংগঠনিক সম্পাদকসহ অর্ধশত ছাত্রদল নেতা আহত - ছবি : নয়া দিগন্ত

জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল ও পুলিশের সাথে সংঘর্ষের ঘটনায় ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদের সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফ মাহমুদ জুয়েল, সহ-সভাপতি মামুন খান, সহ-সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম সিরাজ, কে এম সাখওয়াত হোসেন, আক্তার হোসেন।

আরো আহত হয়েছেন জবি ছাত্রদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসলাম, গাজীপুর মহানগরীর সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মুজিব হল ছাত্রদলের সাবেক যুগ্ম আহবায়ক সালেহ মো: আদনান, জবি ছাত্রনেতা মোস্তাফিজুর রহমান রুমি, ঢাকা মহানগর পূর্ব ছাত্রদলের সহ-সভাপতি মারজুক আলামিন, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ছাত্রদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম, ঢাকা জেলা ছাত্রদল নেতা রাসেল খান রিপন, তেজগাঁও কলেজ ছাত্রদল নেতা মো: বেলাল হোসেন খানসহ অর্ধশত নেতাকর্মী।

উল্লেখ্য, রোববার সকালে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের (বীর উত্তম) খেতাব বাতিলের প্রতিবাদে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ছাত্রদলের উদ্যোগে পূর্বঘোষিত প্রতিবাদ সভার আয়োজন করে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদ।

এ সময় পুলিশ প্রতিবাদ সমাবেশে বাধা দিলে বেলা ১১টার দিকে এই সংঘর্ষের সূত্রপাত হয়। এ সময় পুলিশ ব্যাপক লাঠিচার্জ ও টিয়ারসেল নিক্ষেপ করে। অপরদিকে বিএনপি ও ছাত্রদলের নেতাকর্মীরাও পুলিশকে লক্ষ করে ব্যাপক ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে।

পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয় বিএনপি কোনো অনুমিত না নিয়ে সমাবেশ করতে চাইলে তাদেরকে সমাবেশ করতে দেয়া হয়নি। অপরদিকে বিএনপি বলছে প্রেসক্লাবের সামনে এ ধরণের সমাবেশ করতে কোনো অনুমতি লাগে না।

ছাত্রদলের এই প্রতিবাদ সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের উপস্থিত হওয়ার কথা ছিল।

এ রিপোর্ট লেখার সময় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বিএনপি-ছাত্রদল নেতাকর্মীদের কেউ নেই। পুরো এলাকা এখন পুলিশের দখলে। তারা পল্টন মোড় থেকে হাইকোর্ট মোড় পর্যন্ত দখলে রেখেছে। এ ঘটনায় বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব হাবিব-উন-নবী খান সোহেলসহ একাধিক পুলিশ সদস্যও আহত হয়েছেন।

শাহবাগ থানার পুলিশ কর্মকর্তা আবুল বাশার বলেন, সংঘর্ষে পুলিশের বেশ কয়েকজন সদস্য আহত হয়েছেন। তাদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে টিয়ার শেল ছোড়ে পুলিশ। এখন প্রেসক্লাব এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে।



আরো সংবাদ