০৫ ডিসেম্বর ২০২০

মুফতী মাওলানা আনোয়ার উল্লাহ বাতেনী’র ইন্তেকালে ঢাকা মহানগরী দক্ষিণ জামায়াতের শোক

মুফতী মাওলানা আনোয়ার উল্লাহ বাতেনী’র ইন্তেকালে ঢাকা মহানগরী দক্ষিণ জামায়াতের শোক - ছবি সংগৃহীত

বিশিষ্ট আলেমে দ্বীন, কাপ্তান বাজার বড় মসজিদের সাবেক খতিব, রাজধানী ঢাকার জুরাইন কুসুমবাগ মসজিদের খতিব, কাদেরিয়া তৈয়্যাবিয়া কামিল মাদরাসার সাবেক মুহাদ্দিস ও দারুল উলুম আহছানিয়া কামিল মাদরাসার সাবেক উপাধ্যক্ষ মুফতী মাওলানা আনোয়ার উল্লাহ বাতেনী’র ইন্তেকালে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ সদস্য ও ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের আমীর নুরুল ইসলাম বুলবুল এবং কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের সেক্রেটারি ড. শফিকুল ইসলাম মাসুদ।

রোববার এক যৌথ শোকবার্তায় নেতৃবৃন্দ এ শোক প্রকাশ করেন। শোকবার্তায় নেতৃবৃন্দ মরহুমের রুহের মাগফেরাত কামনা করেন ও তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান। নেতৃবৃন্দ মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের কাছে দোআ করেন, আল্লাহ যেন তার নেক আমলসমূহ কবুল করে তাকে জান্নাতবাসী করেন এবং তার পরিবার ও আত্মীয় স্বজনকে ধৈর্য ধারণ করার তৌফিক দান করেন।

মুফতী মাওলানা আনোয়ার উল্লাহ বাতেনী শনিবার সকাল ৭টায় নিজ বাসায় বার্ধক্যজনিত কারণে ইন্তেকাল করেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না-ইলাইহি রাজিউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৯২ বছর। মরহুমের নামাজে জানাজা শনিবার বাদ আসর মুশুরীখোলা দরবার শরীফে অনুষ্ঠিত হয়। ওই জানাজায় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের নায়েবে আমীর মঞ্জুরুল ইসলাম ভূঁইয়া।

জানাজায় আরো উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের মজলিশে শুরা সদস্য ও গেন্ডারিয়া থানা আমীর গোলাম আজম, কদমতলী পশ্চিম থানার সেক্রেটারি ইঞ্জিনিয়ার হাবিবুর রহমান, ওয়ারী থানার সেক্রেটারি মুতাসিম বিল্লাহ, কদমতলী পশ্চিম থানার কর্মপরিষদ সদস্য কবিরুল ইসলাম, আবুল হাসেমসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ। জানাজা শেষে তাকে মুশুরীখোলা দরবার শরীফের নিজস্ব কবরস্থানে দাফন করা হয়।

এদিকে ঝিনাইদহ জেলা শাখার প্রবীণ সদস্য (রুকন) হরিণাকুণ্ড উপজেলার শিউলী গ্রামের বাসিন্দা আলমগীর হোসেন জোয়ারদারের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর আমীর ডা. শফিকুর রহমান।

রোববার গণমাধ্যমে প্রেরিত শোকবাণীতে তিনি বলেন, আলমগীর হোসেন জোয়ারদারের ইন্তিকালে আমরা ইসলামী আন্দোলনের একজন নিবেদিত প্রাণ দাঈকে হারালাম। তিনি ইসলামী আন্দোলনের প্রচার ও প্রসারে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে গিয়েছেন। মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামীন তার জীবনের নেক আমলসমূহ কবুল করে তাকে জান্নাতুল ফিরদাউসে স্থান দান করুন এবং তার শোকাহত পরিবার-পরিজনদেরকে এ শোক সহ্য করার তাওফিক দান করুন।

আলমগীর হোসেন জোয়ারদার ২৬ সেপ্টেম্বর রাত সাড়ে ১০টায় হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে ৭০ বছর বয়সে ইন্তিকাল করেন। তিনি স্ত্রী, ২ পুত্র ও ১ কন্যাসহ বহু আত্মীয়-স্বজন রেখে গিয়েছেন। রোববার বেলা ১১টায় জানাযা শেষে তাকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে।

 

অন্যদিকে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী ময়মনসিংহ জেলা শাখার প্রবীণ সদস্য (রুকন) আকুয়া দরবার শরীফ রোডের বাসিন্দা মো. ইউসুফ আলীর ইন্তিকালে শোক প্রকাশ করেছেন দলের আমীর আমীর ডা. শফিকুর রহমান।

রোববার গণমাধ্যমে প্রেরিত শোকবাণীতে তিনি বলেন, মো. ইউসুফ আলীর ইন্তিকালে আমরা ইসলামী আন্দোলনের একজন নিবেদিত প্রাণ দাঈকে হারালাম। তিনি সংগঠনের সকল কাজে অংশগ্রহণ করতেন এবং গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতেন। মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামীন তার জীবনের নেক আমলসমূহ কবুল করে তাকে জান্নাতুল ফিরদাউসে স্থান দান করুন এবং তার শোকাহত পরিবার-পরিজনদেরকে এ শোক সহ্য করার তাওফিক দান করুন।

অপর এক শোকবাণীতে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর নির্বাহী পরিষদ সদস্য ও কেন্দ্রীয় প্রচার বিভাগের সেক্রেটারি মতিউর রহমান আকন্দ গভীর শোক প্রকাশ করে বলেন, মো. ইউসুফ আলী ইসলামী আন্দোলনের জন্য অনেক ত্যাগ স্বীকার করেছেন এবং তিনি সর্বাবস্থায় আন্দোলনের কাজকে অগ্রাধিকার দিতেন। আমি তার ইন্তিকালে গভীর শোক প্রকাশ করছি। আল্লাহ তায়ালা তার জীবনের সকল নেক আমল কবুল করে তাকে জান্নাতে উচ্চ মাকাম দান করুন এবং তার শোকাহত পরিবার-পরিজনদেরকে এ শোক সহ্য করার তাওফিক দান করুন। প্রেস বিজ্ঞপ্তি


আরো সংবাদ