০৭ জুলাই ২০২০

সরকারের পাটকল বন্ধের হটকারী সিদ্ধান্ত বাতিলের দাবি লেবার পার্টির

-

অবিলম্বে রাষ্ট্রায়ত্ব পাটকল বন্ধের সরকারি হটকারী সিদ্ধান্ত বাতিলের দাবি জানিয়ে বাংলাদেশ লেবার পার্টির চেয়ারম্যান ডা. মোস্তাফিজুর রহমান ইরান ও ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব লায়ন ফারুক রহমান বলেছেন, করোনা পরিস্থিতিতে দেশের বিভিন্ন খাতের লক্ষ লক্ষ শ্রমিক বেকার। বিদেশ থেকেও অনেক শ্রমিক কাজ হারিয়ে দেশে ফিরছে, এমন সঙ্কটময় পরিস্থিতিতে ক্ষমতাসীন সরকার গণবিরোধী পদক্ষেপ নিয়ে ২৫টি রাষ্ট্রীয় পাটকল বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এতে স্থায়ী-অস্থায়ী মিলে প্রায় ৫৫/৬০ হাজার শ্রমিক কাজ হারাবে। তাদের পরিবার এবং ৪০ লাখ পাটচাষী ও তাদের পরিবার, পাট ব্যবসায়ী মিলে মোট প্রায় সাড়ে তিন কোটি মানুষ চরম বিপাকে পড়বে।

মঙ্গলবার বাংলাদেশ লেবার পার্টির দফতর সম্পাদক আমানুল্লাহ মহব্বত স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে একথা বলা হয়েছে।

লেবার পার্টির নেতৃবৃন্দ বলেন, রাষ্ট্রীয় সম্পদ লুটপাট ও লাগামহীন দুর্নীতি বন্ধ না করে সরকার জীবন ও জীবিকা বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। করোনা দুর্যোগে বেসরকারি পোষাক কারখানাসহ কারখানা মালিক ব্যবসায়ীরা এক লাখ কোটি টাকার প্রণোদনা আর রাষ্ট্রীয় কারখানায় প্রণোদনা না দিয়ে বন্ধ করা হচ্ছে। পাটজাত দ্রব্যের চাহিদা ক্রমাগত বাড়ছে তখন দেশের রাষ্ট্রীয় পাটকল বন্ধ করা অযৌক্তিক-অন্যায়। দেশে এখন সরকারি-বেসরকারি মিলে প্রায় ৩০৫টি পাটকল আছে এর মধ্যে ২৮১টি বেসরকারি। ৫৬টির মতো বন্ধ রয়েছে। রাষ্ট্রীয় পাটকলে ২৫ হাজার স্থায়ী শ্রমিক আরো ২৫ হাজার বদলি শ্রমিক মিলে ৫০/৫৫ হাজার শ্রমিক অথচ এই অল্প সংখ্যক পাটকল ও শ্রমিক পরিচালনায় রয়েছে ৩৮০০ কর্মকর্তার ভারী প্রশাসন। সরকারের দুর্নীতি, লুটপাট, ভুলনীতি ও মাথাভারী-অদক্ষ প্রশাসন লোকসানের জন্য দায়ী - শ্রমিকরা নয়। তাই অবিলম্বে সরকারকে রাষ্ট্রীয় পাটকল বন্ধের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করতে হবে।


আরো সংবাদ