২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০

সংসদে রাষ্ট্রপতির ভাষণের খসড়া মন্ত্রিসভায় অনুমোদন

সংসদে রাষ্ট্রপতির ভাষণের খসড়া মন্ত্রিসভায় অনুমোদন - ছবি : সংগৃহীত

একাদশ জাতীয় সংসদের ২০২০ সালের জাতীয় সংসদের প্রথম অধিবেশনে রাষ্ট্রপতির ভাষণের খসড়া অনুমোদন করেছে মন্ত্রিপরিষদ। সোমবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে সচিবালয়ে ছয় নম্বর ভবনে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে এই অনুমোদন দেয়া হয়।

বৈঠক শেষে সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম সাংবাদিকদের ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানিয়ে বলেন, সংবিধানের ৭৩-এর ২ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী সংসদে রাষ্ট্রপতির দুটি ভাষণের বাধ্যবাধকতা আছে। একটি নির্বাচনের পর নতুন সংসদের প্রথম অধিবেশনে। আরেকটি প্রতি বছরের প্রথম অধিবেশনে। সেই হিসাবে একাদশ জাতীয় সংসদের ২০২০ সালের প্রথম অধিবেশনে রাষ্ট্রপতি ভাষণ দেবেন।

তিনি বলেন, মন্ত্রণালয় ও বিভাগ থেকে প্রাপ্ত তথ্য-উপাত্তের ভিত্তিতে রাষ্ট্রপতি প্রদেয় ভাষণের খসড়া এবং সংসদ অধিবেশনে রাষ্ট্রপতির পাঠের উদ্দেশ্যে একটি সংক্ষিপ্ত ভাষণের খসড়া মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে প্রণয়ন করা হয়। আমরা খসড়া তৈরি করে দিয়েছি, মন্ত্রিসভায় তা অনুমোদিত হয়েছে।

তিনি বলেন, খসড়া ভাষণে ৯টি বিষয় বিস্তারিতভাবে এসেছে। এবার রাষ্ট্রপতির ভাষণে যে বিষয়গুলো গুরুত্ব পেয়েছে তার মধ্যে রয়েছে দেশের সার্বিক পরিস্থিতি, সামষ্টিক অর্থনীতি, আর্থসামাজিক উন্নয়নে সরকারের নেওয়া বিভিন্ন পদক্ষেপ, ২০২১ সালের রূপকল্পের রূপরেখা বাস্তবায়নের অগ্রগতি, ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণের সর্বশেষ পরিস্থিতি, দেশে-বিদেশ কর্মসংস্থানের পরিস্থিতি, সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি বাস্তবায়নের অগ্রগতি, যুদ্ধাপরাধীদের বিচার প্রক্রিয়ার অগ্রগতি ও সর্বশেষ পরিস্থিতি, প্রশাসনের নীতিকৌশল বাস্তবায়নের অগ্রগতি, বৈদেশিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে অর্জিত সাফল্য এবং প্রশাসনিক নীতি-কৌশল, উন্নয়ন-দর্শন এবং অগ্রযাত্রার দিকনির্দেশনা উল্লেখ রয়েছে।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, এই ভাষণে সব মন্ত্রণালয়ের এক বছরের সাফল্যের কথা উল্লেখ করা হয়েছে। এ কারণে সব মন্ত্রীকে ভাষণের কপি দেওয়া হয়েছে। তারা দেখে সাত দিনের মধ্যে জানাবেন। কোনও ভুলত্রুটি থাকলে আগামী বৈঠকে জানানো হবে, পরে সংযোজন-বিয়োজন করা হবে। খসড়ায় কোনো গ্রামাটিক্যাল বা ছোটখাট ভুল থাকলে তা ঠিক করে বাংলা ও ইংরেজিতে দুটি ভার্সন তৈরি করে ছাপানোর জন্য আগামী ১৯ ডিসেম্বর প্রেসে পাটানো হবে। এর পর এই ভাষণ চূড়ান্ত করা হবে।


আরো সংবাদ