২৮ জানুয়ারি ২০২৩, ১৪ মাঘ ১৪২৯, ৫ রজব ১৪৪৪
ads
`

ছাত্রশিবিরের মাসব্যাপী শীতবস্ত্র উপহার প্রদান কর্মসূচির উদ্বোধন

ছাত্রশিবিরের মাসব্যাপী শীতবস্ত্র উপহার প্রদান কর্মসূচির উদ্বোধন - ছবি : নয়া দিগন্ত

সারাদেশে শীতার্ত মানুষের কষ্ট লাঘব এবং তাদের পাশে দাঁড়াতে উদ্বুদ্ধ করতে আগামী ১০ ডিসেম্বর ২০২২ থেকে ১০ জানুয়ারি ২০২৩ পর্যন্ত মাসব্যাপী শীতবস্ত্র উপহার প্রদান কর্মসূচির উদ্বোধন করেছে বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবির। মেধাবী শিক্ষার্থীদের মাঝে শীতবস্ত্র উপহার প্রদানের মাধ্যমে এ কর্মসূচির উদ্বোধন করা হয়।

সেক্রেটারি জেনারেল রাজিবুর রহমানের পরিচালনায় আয়োজনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় সভাপতি রাশেদুল ইসলাম। এ সময় সেক্রেটারিয়েট সদস্যবৃন্দ, বিভিন্ন শাখার দায়িত্বশীলবৃন্দ ও মেধাবী শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে কেন্দ্রীয় সভাপতি বলেন, আল্লাহ তায়ালা আমাদেরকে তার প্রতিনিধিত্ব করার জন্য দুনিয়াতে পাঠিয়েছেন। আল্লাহ তায়ালা নির্দেশিত অন্যতম কাজ হলো মানুষের কল্যাণে কাজ করা। কিন্তু বিরাট সংখ্যক মানুষ বিত্তশালী হওয়ার পরও নৈতিকতাবোধ না থাকার কারণে তারা মানুষের কল্যাণে কাজ করতে পারছে না। আজকের মেধাবীদের এই নৈতিকতার শিক্ষা বাস্তবজীবনে বাস্তবায়ন করার সিদ্ধান্ত নিতে হবে। যেহেতু মানুষের কল্যাণের কাজ করা মহান আল্লাহ তায়ালার নির্দেশ, তাই এ নির্দেশ বাস্তবায়নে উদ্যোগী হতে হবে।

তিনি বলেন, শীতকালে এক শ্রেণির মানুষ অবর্ণনীয় কষ্টে থাকেন। এ অবস্থায় তার হাতে একটি শীতবস্ত্র তুলে দিলে শীতার্ত মানুষটি যে কী পরিমাণ খুশি হয় ও প্রশান্তি পায়- তা বলে বোঝানো সম্ভব নয়। সামর্থ্যের সীমাবদ্ধতার কারণে ছাত্রশিবির সকল শীতার্তের মাঝে শীতবস্ত্র উপহার দিতে পারবে না। তবে আমরা বিশ্বাস করি- সরকার, বিত্তশালী ও ব্যক্তিগতভাবে সবাই যার যার সাধ্য অনুযায়ী শীতার্তদের পাশে দাঁড়ালে একজন মানুষও শীতে কষ্ট পাবে না। এর মাধ্যমে আমরাও মুসলমান হিসেবে মহান আল্লাহ তায়ালার কাছে মানব কল্যাণের প্রশ্নে উত্তীর্ণ হতে পারব, ইনশাআল্লাহ।

তিনি আরো বলেন, আল্লাহর জমিনে আল্লাহর দ্বীন কায়েম হলেই কেবল মানুষের কাঙ্ক্ষিত কল্যাণ সম্ভব। মহান আল্লাহ তায়ালার আইনে দেশ পরিচালিত হলে একজন মানুষকেও কষ্ট করতে হতো না, অশান্তিতে থাকত না। সুতরাং কল্যাণকামী প্রতিটি মানুষকে ইসলামী সমাজব্যবস্থা কায়েমের প্রচেষ্টা চালানো জরুরি। এক্ষেত্রে মেধাবীদের একদিকে সাধ্য অনুযায়ী মানুষের কল্যাণে কাজ করতে হবে, অন্যদিকে জমিনে আল্লাহ আদেশ বাস্তবায়নের জন্য নিজেদের সর্বোচ্চ যোগ্য করে গড়ে তুলতে হবে। মানুষের সার্বিক কল্যাণে ছাত্রশিবির জমিনে আল্লাহর দ্বীন কায়েমের প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। তারই অংশ হিসেবে দেশের ঠান্ডা আবহাওয়াকে সামনে রেখে প্রতি বছরের ন্যায় এবারো মাসব্যাপী শীতবস্ত্র উপহার প্রদান কর্মসূচি ঘোষণা করছে। জন্মলগ্ন থেকেই ছাত্রশিবির মানুষের কল্যাণে কাজ করে আসছে। ছাত্রশিবিরের এ উদ্যোগ সবার উদ্যোগে পরিণত হওয়া প্রয়োজন।

কেন্দ্রীয় সভাপতি ছাত্রশিবিরের সর্বস্তরের প্রতিটি জনশক্তিকে কমপক্ষে একটি করে শীতবস্ত্র বিরতণ করার জন্য এবং সকল শিক্ষার্থীকেও এ কল্যাণকর কাজে অংশগ্রহণ করার জন্য আহ্বান জানান। একইসাথে শীতার্তদের পাশে দাঁড়াতে সরকার, বিত্তশালী ও সামর্থ্যবানদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।


আরো সংবাদ


premium cement