০১ জুলাই ২০২২, ১৭ আষাঢ় ১৪২৯,
`

বৃদ্ধ বয়সে মা-বাবার ভরণপোষণ


বৃদ্ধ ও অসহায় মা-বাবার ভরণপোষণ সন্তানের সামাজিক ও নৈতিক দায়িত্ব। কিন্তু অতি দুঃখ ও বেদনার সাথে বলতে হয়, অনেক সন্তানই এই দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করেন না। শিক্ষিতদের মধ্যে এ প্রবণতা একটু বেশি দেখা যায়। শিক্ষিত ও উপযুক্ত সন্তান থেকেও অনেক শিক্ষিত ঘরের বৃদ্ধ ও অসহায় মা-বাবাকে বৃদ্ধাশ্রমে পাঠাতে দেখা যায় সন্তানদের। উপার্জনক্ষম সন্তান থাকলেও বৃদ্ধ বয়সে মা-বাবাকে যদি বৃদ্ধাশ্রমে দিন কাটাতে হয়, এর চেয়ে হৃদয়বিদারক নিষ্ঠুরতা আর কিছু হতে পারে না। কাজেই সন্তানের উচিত বৃদ্ধ মা-বাবার দেখাশোনা ও ভরণপোষণ করা এবং তাদের সঙ্গ দেয়া।

আমরা জানি বৃদ্ধ বয়সে যাতে সন্তানের অবহেলা ও বঞ্চনার শিকার না হন, সে জন্য মা-বাবার ভরণপোষণ আইন-২০১৩ গৃহীত হয়েছে। কোনো সন্তান যদি বৃদ্ধ মা-বাবাকে বাধ্য করেন বৃদ্ধাশ্রমে বা অন্য কোথাও বসবাস করতে অথবা কোনো সন্তান যদি মা-বাবার ভরণপোষণ না করেন, তা হলে তারা এ আইনের অধীনে ভরণপোষণের জন্য আইনের আশ্রয় নিয়ে তাদের অধিকার আদায় করতে পারেন।
মা-বাবার ভরণপোষণের আইনটি একটি জনকল্যাণকর আইন। এ আইনের প্রস্তাবনায় বলা হয়েছে- যেহেতু সন্তান কর্তৃক পিতা-মাতার ভরণপোষণ নিশ্চিত করার লক্ষ্যে বিধান করা সমীচীন ও প্রয়োজনীয়, সেহেতু আইনটি প্রণয়ন করা হলো। কোনো সন্তান যদি কোনো যুক্তিসঙ্গত কারণে পিতা-মাতার ভরণপোষণ না করেন, তাহলে তারা ভরণপোষণের জন্য এ আইনের অধীনে লিখিত অভিযোগের মাধ্যমে তাদের অধিকার আদায় করতে পারবেন।’

আইনে ভরণপোষণ প্রদানে সন্তান বলতে শুধু ছেলেকেই বোঝানো হয়নি। এতে মেয়েকেও অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে; অর্থাৎ মা-বাবার ভরণপোষণের দায়িত্ব ছেলের একার নয়, বরং মেয়েরও। এর মাধ্যমে নারী-পুরুষের মধ্যে সমতা আনা হয়েছে। আর ভরণপোষণ শুধু কোনো বিশেষ সন্তান নেবে তা নয় বরং সবাইকে নিতে হবে। তবে একাধিক সন্তান থাকলে তারা নিজেরা আলোচনা করে মা-বাবার ভরণপোষণ নিশ্চিত করবেন। কোনো সন্তান মা-বাবাকে তাদের ইচ্ছার বিরুদ্ধে কোনো বৃদ্ধাশ্রমে বা অন্য কোথাও একত্রে বা আলাদাভাবে বসবাস করতে বাধ্য করতে পারবে না। প্রত্যেক সন্তানকেই তাদের মা-বাবার স্বাস্থ্য সম্পর্কে নিয়মিত খোঁজখবর রাখতে হবে এবং চিকিৎসাসেবা দিতে হবে। বাবা-মা একত্রে বা আলাদা বসবাস করলে প্রত্যেক সন্তানকে সাধ্যমতো তাদের সাথে দেখা-সাক্ষাৎ করতে হবে। বাবা-মা যদি সন্তানের সাথে বসবাস না করেন, তা হলে তাদের প্রত্যেকে নিজ নিজ উপার্জন থেকে যুক্তিসঙ্গত পরিমাণ অর্থ দেবে।

আইনটি শুধু মা-বাবার ভরণপোষণ বিষয়েই সীমাবদ্ধ থাকেনি। মা-বাবার অবর্তমানে দাদা-দাদী ও নানা-নানীর ভরণপোষণের ব্যাপারেও জোর দিয়েছে। মা-বাবার অবর্তমানে দাদা-দাদীকে এবং মায়ের অবর্তমানে নানা-নানীকে মা-বাবার মতোই ভরণপোষণ দিতে হবে। আইনে কেউ অপরাধ করলে তা অবশ্যই আমলযোগ্য। এ আইনের অধীনে দায়ের করা মামলায় জামিনও পাওয়া যেতে পারে। মামলায় আপস-মীমাংসারও সুযোগ রাখা হয়েছে। অপরাধের অভিযোগ দায়ের ও বিচার হবে প্রথম শ্রেণীর জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট বা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে। অপরাধের লিখিত অভিযোগ মা-বাবাকেই দায়ের করতে হবে; অন্যথায় আদালত তা গ্রহণ করবেন না। আদালত সংশ্লিষ্ট অভিযোগ আপস নিষ্পত্তির জন্য সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বা মেম্বার বা কাউন্সিলর কিংবা অন্য কোনো উপযুক্ত ব্যক্তির কাছে পাঠাতে পারবেন। এ ক্ষেত্রে উভয় পক্ষকে শুনানির সুযোগ দিয়ে তবেই নিষ্পত্তি করতে হবে এবং তখনই তা উপযুক্ত আদালত কর্তৃক নিষ্পত্তি হয়েছে বলে গণ্য হবে।

আইনে ভরণপোষণ অর্থ- ক. খাওয়া-দাওয়া; খ. বস্ত্র; গ. চিকিৎসা; ঘ. বসবাসের সুযোগ-সুবিধা এবং সঙ্গ দেয়া। এ আইনের ৩ ধারামতে- প্রত্যেক সন্তানকে পিতা-মাতার ভরণপোষণ নিশ্চিত করতে হবে। একাধিক সন্তান থাকলে নিজেরা আলোচনা করে মা-বাবার ভরণপোষণ নিশ্চিত করতে হবে। এ ধারায় আরো উল্লেখ আছে- সন্তানকে মা-বাবার সাথে এবং একই স্থানে বসবাস করতে হবে। মা-বাবার ইচ্ছার বিরুদ্ধে তাদের কোনো বৃদ্ধ নিবাস বা অন্য কোনো স্থানে একত্রে বা আলাদা বসবাস করতে বাধ্য করা যাবে না। প্রত্যেক সন্তানকে মা-বাবার স্বাস্থ্য সম্পর্কে খোঁজখবর নিতে এবং প্রয়োজনীয় চিকিৎসাসেবা প্রদান ও পরিচর্যা করতে হবে। বাবা বা মা কিংবা উভয়ে সন্তান থেকে পৃথকভাবে বসবাস করলে সন্তানকে তাদের সাথে সাক্ষাৎ করতে হবে। মা-বাবা সন্তানদের থেকে পৃথক বসবাস করলে সন্তান মাসিক বা বার্ষিক আয় থেকে যুক্তিসঙ্গত পরিমাণ অর্থ মা বা বাবা, ক্ষেত্রমতো উভয়কে দিতে হবে।

আইনের ৪ নং ধারার বিধান অনুযায়ী- বাবার অবর্তমানে সন্তান তার দাদা-দাদী এবং মায়ের অবর্তমানে নানা-নানীর ভরণপোষণ করবে। এ আইনের ৫ ধারা মোতাবেক- মা-বাবার ভরণপোষণ না করলে অনূর্ধ্ব এক লাখ টাকা জরিমানা এবং অনাদায়ে তিন মাসের কারাদণ্ডের বিধান রয়েছে। ৫(২) ধারা মোতাবেক কোনো সন্তানের স্ত্রী বা ক্ষেত্রমতে স্বামী, ছেলেমেয়েকে অন্য কোনো নিকটাত্মীয় ব্যক্তি বাবা-মা বা দাদা-দাদী বা নানা-নানীর ভরণপোষণ করতে বাধা দিলে বা অসহযোগিতা করলে তিনি অপরাধ সংঘটনে সহযোগিতা করেছেন বলে গণ্য হবেন এবং ওই দণ্ডে দণ্ডিত হবেন।

আইনের ৭ ধারা মোতাবেক- মা-বাবার লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে প্রথম শ্রেণীর জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে এ অপরাধের জন্য মামলা করা যাবে। আইনে আপস মীমাংসার ওপর গুরুত্বারোপ করা হয়েছে। ইউনিয়ন পরিষদ, পৌরসভা, সিটি করপোরেশনের চেয়ারম্যান, মেম্বার, কমিশনারদের আপস করে দেয়ার ক্ষমতা দেয়া হয়েছে। এ আপস মীমাংসা আদালত কর্তৃক স্বীকৃতি দেয়ার বিধান আইনে রাখা হয়েছে।

মা-বাবা যখন বার্ধক্যে উপনীত হন, তখন তাদের ভরণপোষণের দায়িত্ব কার ওপর অর্পিত হবে; তা একটি যুক্তিসঙ্গত প্রশ্ন। এ প্রশ্নের যথাযথ উত্তর এ আইনে সুস্পষ্ট বর্ণনা করা হয়েছে। কার্যত সব মা-বাবাই সন্তানের মঙ্গল চান। কোনো মা-বাবাই সন্তানের বিরুদ্ধে যেতে চান না। কিন্তু পরিস্থিতি যদি সন্তানের বিরুদ্ধে যেতে বাধ্য করে, তা হলে সন্তানের বিরুদ্ধে না গিয়ে আর উপায় থাকে না। অনেক সন্তান মা-বাবাকে বৃদ্ধাশ্রমে যেতে বাধ্য করে। আবার কোনো সন্তান যদি পিতা-মাতার ভরণপোষণ না করে, তা হলে পিতা-মাতা এ আইনের মাধ্যমে ভরণপোষণের জন্য আইনের আশ্রয় নিয়ে তাদের অধিকার আদায় করতে পারেন।
লেখক : কলামিস্ট
belaYet_1@yahoo.com


আরো সংবাদ


premium cement