০৬ ডিসেম্বর ২০২১
`

হোল চাইল্ড অ্যাপ্রোচ : শিশুদের পূর্ণাঙ্গভাবে বেড়ে ওঠার নিশ্চয়তায়

হোল চাইল্ড অ্যাপ্রোচ : শিশুদের পূর্ণাঙ্গভাবে বেড়ে ওঠার নিশ্চয়তায় - ছবি সংগৃহীত

'হোল চাইল্ড অ্যাপ্রোচ'-এর লক্ষ্য মূলত একাডেমিক বা প্রাতিষ্ঠানিক সাফল্যের পাশাপাশি শিশুদের স্বাস্থ্য এবং ইতিবাচক মানসিক প্রবৃদ্ধিকে সমান অগ্রাধিকার ও স্বীকৃতি দেয়া। এটি একজন শিক্ষার্থীর ব্যক্তিগত এবং প্রাতিষ্ঠানিক উন্নতি নিশ্চিত করে তাকে গড়ে তোলার একটি আদর্শ উপায়, যার প্রতিফলন বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয়গুলোও একেকজন শিক্ষার্থীর পোর্টফোলিওতে দেখার প্রত্যাশা করে।

জুন, ২০২১-এর একটি গবেষণায় দেখা গেছে, কোভিড-১৯ লকডাউন এবং এ সংক্রান্ত বিধিনিষেধের কারণে বাংলাদেশের ১০ শতাংশেরও বেশি শিক্ষার্থী মানসিক অস্থিরতায় ভুগছে। এতে বলা হয়েছে, অধিকাংশ ক্ষেত্রেই তাদের উদ্বেগের মূল কারণ ছিল কর্মজীবনে ব্যর্থ হওয়ার আশংকা, বিশেষত বয়সের সীমাবদ্ধতার কারণে দেশে সরকারি চাকরির জন্য অযোগ্য হয়ে পড়ার দুশ্চিন্তা । এই তথ্য একদিকে যেমন আমাদের শিক্ষার্থীদের একাডেমিক সাফল্যের উপর মাত্রাতিরিক্ত নির্ভরতার প্রবণতাকে ইঙ্গিত করে, অন্যদিকে এই দুঃখজনক সত্যকেও উন্মোচন করে যে, আমাদের তরুণদের একটি উল্লেখযোগ্য অংশ পড়াশোনার বাইরে অন্যান্য সৃজনশীল দক্ষতার বিকাশকে তাদের প্রাতিষ্ঠানিক সাফল্যের মত গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করে না।

উদ্বেগজনক বিষয়টি হল, এটি আসলে এমন একটি সমস্যা, যা আমাদের শিক্ষাব্যবস্থার বিভিন্ন অবকাঠামোগত দূর্বলতার কারণে বিগত কয়েক দশক ধরে ধীরে ধীরে বিস্তৃতি লাভ করছে। এর প্রভাব কিছুটা ডোমিনো ইফেক্ট-এর মতো, যেখানে শিশুরা প্রথম ধাক্কাটি খায় তাদের বিদ্যালয়ের প্রাথমিক পর্যায়েই। বাংলাদেশের অধিকাংশ অভিভাবক এখনো তাদের চিরায়ত ধ্যান-ধারণাকে কাটিয়ে উঠতে পারেননি। তাই যখন তাদের সন্তানেরা স্কুলের পরীক্ষায় বেশি নম্বর পেতে ব্যর্থ হয়, তারা দ্রুতই দুশ্চিন্তাগ্রস্থ হয়ে পড়েন। পিতামাতাদের মধ্যে জমে ওঠা অস্বাস্থ্যকর প্রতিযোগিতার রেশ এক পর্যায়ে বাচ্চাদের ওপর গিয়ে পড়ে, যার ফলে তাদের মানসিক বিকাশের ওপর এর নেতিবাচক প্রভাব দেখা দেয়। বন্ধুত্ব এবং সহাবস্থানের চেয়ে পরীক্ষায় পাওয়া নম্বর তাদের কাছে বেশি গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠলে একসময় শিশুরাও স্বার্থপর এবং আত্মকেন্দ্রিক ব্যক্তিত্বের লক্ষণ দেখাতে শুরু করে। যখন এই চর্চা মাত্রা ছাড়িয়ে যায়, তখন আমাদের সমাজ শিল্প, সংস্কৃতি এবং খেলাধুলা অনুশীলনের মাধ্যমে অর্জিত সামাজিক ও মানবিক গুণাবলীর মূল্যায়ন করতে ভুলে যায়।

ডেড পোয়েটস সোসাইটি (১৯৮৯), হোয়্যার ইজ দ্যা ফ্রেন্ডস হাউজ? (১৯৮৭), এবং তারে জামিন পার (২০০৭) – এর মত চলচ্চিত্রগুলো মানুষ হিসেবে ব্যক্তির – বিশেষ করে শিশুদের – জীবনের প্রাথমিক বছরগুলিতে ভেতর থেকে বেড়ে ওঠার তাৎপর্যকে তুলে ধরে। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘ছুটি’ গল্পেও আমরা দেখেছি – শিশুদেরকে যদি আনন্দ ও মানসিক প্রশান্তির সাথে বিকাশের পর্যাপ্ত সুযোগ দেয়া না হয়, তাহলে তারা শীঘ্রই ভুলে যেতে থাকে যে একসময় তাদের মধ্যে স্বপ্ন দেখার, পড়াশোনার বাইরে অন্যান্য বিষয় নিয়ে উৎসাহী হওয়ার এবং ভালোবাসার ক্ষমতা ছিল। একাডেমিক শ্রেষ্ঠত্বের বাইরে জীবনের অন্যান্য উজ্জ্বল দিকগুলি অন্বেষণের ইচ্ছের অভাব তাদের পরবর্তী জীবনে নেতিবাচকভাবে প্রভাব বিস্তার করে, অধিকাংশ সময়ই যা থেকে পুরোপুরিভাবে মুক্তির কোনো সুযোগ থাকে না।

অন্যদিকে, জাপানের মতো দেশগুলোর দিকে তাকালে আমরা দেখতে পাই যে, শিশুদের পাঠ্যপুস্তক-ভিত্তিক মূল্যায়নের চেয়ে মানসিক স্বাস্থ্য এবং সামাজিক দক্ষতার বিকাশের ওপরই বেশি জোর দেয়া হচ্ছে। জাপানের স্কুলগুলোতে প্রতিটি শিশুর জন্য প্রথম তিন বছর শুধুমাত্র চরিত্র গঠনে নিবেদিত থাকে, কারণ এ সময়ে তাদের কোনো পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে হয় না। বিশ্বের অন্যান্য দেশগুলিতেও এখন এ ধরনের পাঠ্যক্রমিক বৈচিত্র্য জনপ্রিয়তা লাভ করেছে, যেখানে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলি তাদের শিক্ষার্থীদের সুষ্ঠু বিকাশের নিশ্চয়তায় একটি সামষ্টিক পদ্ধতির অবলম্বন করে থাকে। “হোল চাইল্ড অ্যাপ্রোচ” নামে পরিচিত এই পদ্ধতির প্রধান লক্ষ্য শিশুদের একাডেমিক ফলাফল এবং তাদের মানসিক সুস্থতা ও চাপমুক্ত থাকার প্রয়োজনীয়তাকে সমান স্বীকৃতি দেওয়া।

প্রায়শই দেখা যায়, বাবা-মা এবং শিক্ষকরা যখন শিশুদের মানসিক সুস্থতার দিকে মনোযোগ দেন, তখন একাডেমিক কিংবা অন্যান্য ক্ষেত্রে শিশুরা স্বাভাবিক ও সহজাতভাবেই ভালো ফলাফল দেখাতে সক্ষম হয়। এর পেছনে একটি সহজ ব্যাখ্যা হতে পারে যে, শিশুরা তাদের আশেপাশের বিভিন্ন প্রতিকূলতা মোকাবেলায় প্রাপ্তবয়স্কদের তুলনায় অধিক স্পর্শকাতর হয়ে থাকে, তাই যখন আমরা তাদেরকে আরেকটু গভীরভাবে বোঝার, তাদের কাছে আসার এবং মন থেকে সমর্থন দেওয়ার চেষ্টা করি - এটি তাদের সামগ্রিক কার্যকলাপ ও কার্যদক্ষতার ওপর উজ্জ্বল প্রতিফলন ঘটায়।

পাঠ্যক্রমের বাইরে বিভিন্ন গঠনমূলক কার্যক্রম “হোল চাইল্ড অ্যাপ্রোচ” পদ্ধতির অন্যতম অংশ। বিভিন্ন ইনডোর এবং আউটডোর কার্যক্রম ও খেলাধুলা শিশুদের কগনিটিভ এবং মোটর স্কিলস বৃদ্ধিতে সহায়তা করে। সহ-পাঠ্যক্রমিক ক্রিয়াকলাপগুলি তাদের অভিব্যক্তিগত ক্ষমতা বাড়ায় এবং শিক্ষার্থীদের মধ্যে সামাজিক মূল্যবোধ সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টি করে। এগুলো তাদেরকে উন্নত বিবেকসম্পন্ন দায়িত্বশীল নাগরিক হিসাবে বিকশিত হওয়ার জন্য প্রস্তুত করে তোলে।

প্রতি বছর হাজার হাজার শিক্ষার্থী বাংলাদেশ থেকে বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় নানা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির চেষ্টা করেন। তবে তাদের মধ্যে হাতেগোনা কয়েকজনই তাদের স্বপ্নের গন্তব্যে পৌঁছাতে সক্ষম হন। “হোল চাইল্ড অ্যাপ্রোচ” একজন শিক্ষার্থীর ব্যক্তিগত এবং একাডেমিক অগ্রগতির একটি আদর্শ উপায়, যেটি শিক্ষার্থীদেরকে এই নামকরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর দিকে এগিয়ে যেতে সহায়তা করে। স্বনামধন্য এই বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে আসন সংখ্যা থাকে সীমিত; অতএব এটি বলা বাহুল্য যে, শুধুমাত্র যে সকল শিক্ষার্থী পড়াশোনার বাইরেও তাদের অন্যান্য কাজ ও দৃষ্টিভঙ্গির মাধ্যমে বিশ্বে প্রভাব সৃষ্টি করার সম্ভাবনা দেখাতে সক্ষম হয়, কেবল তারাই এই প্রতিষ্ঠানসমূহে ভর্তি এবং স্কলারশিপ পাওয়ার ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার পায়।

বাংলাদেশের বেশ কয়েকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান “ইন্টারন্যাশনাল ব্যাকালরিয়েট” (আইবি) পাঠ্যক্রম অনুসরণ করে, যা “হোল চাইল্ড অ্যাপ্রোচ”-এর মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের মূল্যবোধকে রক্ষা করে এবং সুপরিকল্পিত প্রাতিষ্ঠানিক ও শিক্ষা সহায়ক কার্যক্রমের মধ্য দিয়ে তাদেরকে আদর্শ উপায়ে গড়ে তোলে। “আইবি” শিক্ষা কার্যক্রমের বাইরেও অন্যান্য গঠনমূলক কার্যকে সমান গুরুত্ব প্রদান করে, যাতে শিক্ষার্থীরা আরও ভবিষ্যৎমুখী এবং বিশ্বমানের প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের জন্য প্রস্তুত হয়ে ওঠে। আগামীতে যারা বাবা-মা কিংবা অভিভাবক হতে যাচ্ছেন, তাদের মধ্যে “হোল চাইল্ড অ্যাপ্রোচ” প্রসঙ্গে আমাদের আরও সচেতনতা তৈরি করতে হবে। কারণ, তাদের দৃষ্টিভঙ্গির সঠিক রূপান্তরই পারবে আমাদের দেশ ও সমাজের ভবিষ্যতের জন্য একটি প্রাণোচ্ছল ও বহুমখী-প্রতিভা সম্পন্ন প্রজন্ম তৈরিতে প্রধান ভূমিকা রাখতে।

লেখক : হেড অব কে-১২ বাংলা ডিপার্টমেন্ট ইন্টারন্যাশনাল স্কুল ঢাকা



আরো সংবাদ


বাংলাদেশ ভারতের পক্ষে যাবে না (১৭৫২৮)এরদোগানকে হত্যার চেষ্টা! (১৬৩৫৫)`আগামীতে পিছা মার্কা আনমু, নৌকা মার্কা আনমু না’ - নির্বাচনে হেরে নৌকার প্রার্থী (৮৩১১)ইরানের নাতাঞ্জ পরমাণু স্থাপনার কাছে বিস্ফোরণ (৭৭৭৮)আইভী আবারো নৌকা পাওয়ার নেপথ্যে (৭৫৩৭)স্বামীর সাথে সম্পর্ক! গৃহকর্মীকে খুন করে লাশ ঝাউবনে ফেললেন গৃহকর্ত্রী (৬৭৩৮)নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচনের ফরম কিনলেন বিএনপির ২ শীর্ষ নেতা (৬০১৬)ইরানের আকাশ প্রতিরক্ষা ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষামূলক উৎক্ষেপণ (৪৯০৯)আলেম-ওলামা ও তৌহিদী জনতার নিঃশর্ত মুক্তির দাবি হেফাজতের (৪০১২)রুশ অস্ত্র কিনলে নিষেধাজ্ঞা, ভারতকে বার্তা যুক্তরাষ্ট্রের (৩৭৬১)