০৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৩ মাঘ ১৪২৮, ১৪ রজব ১৪৪৪
ads
`

সম্পর্কের নতুন যুগের সূচনায় চীন-মধ্যপ্রাচ্য : জিনপিং

রিয়াদে চীনা প্রেসিডেন্টকে সংবর্ধনায় সৌদি যুবরাজ : ইন্টারনেট -

সৌদি আরবের উদ্যোগে চীনের সাথে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলো চলমান সম্মেলনের মাধ্যমে মধ্যপ্রাচ্যের সাথে চীনের সম্পর্ক এক নতুন যুগে পা রেখেছে বলে জানিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং। গত বৃহস্পতিবার সৌদির রাজধানী রিয়াদে মধ্যপ্রাচ্যের উপসাগরীয় অঞ্চল, লেভান্ট বা পূর্ব ভূমধ্যসাগর ও আফ্রিকা অঞ্চলের নেতাদের সাথে বৈঠক করেন চীনের প্রেসিডেন্ট। সেখানে তিনি বলেন, ‘চীনের সাথে উপসাগরীয় অঞ্চল ও অন্যান্য আরব রাষ্ট্রের সম্পর্কের ক্ষেত্রে এই সম্মেলনটি একটি মাইলফলক। এই সম্মেলনের মাধ্যমে চীনের সাথে মধ্যপ্রাচ্যের সম্পর্ক এক নতুন যুগে পা রেখেছে। আমরা মধ্যপ্রাচ্যের ব্যাপার অত্যন্ত আশাবাদী ও এশিয়ার এ অঞ্চলের সাথে চীনের যে সম্পর্ক, তাকে আমরা নতুন উচ্চতায় নিয়ে যেতে চাই।’
তিন দিনের এক সরকারি সফরে বুধবার সৌদিতে গেছেন চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং। ২০২০ সালে করোনা মহামারী শুরুর পর এটি জিনপিংয়ের তৃতীয় বিদেশ সফর। সৌদিতে এটি তার দ্বিতীয় সফর। সর্বশেষ ২০১৬ সালে সৌদি গিয়েছিলেন তিনি।
বুধবার জিনপিং রিয়াদে পৌঁছানোর পর তাকে রীতিমতো রাজকীয় সংবর্ধনা দেয়া হয়। সৌদি আরবের থযুবরাজ ও প্রধানমন্ত্রী মোহাম্মদ বিন সালমান নিজে বিমানবন্দরে উপস্থিত থেকে চীনের প্রেসিডেন্টকে স্বাগত জানান।
পরের দিন বৃহস্পতিবার চীন ও সৌদির মধ্যে ৩৪টি বিনিয়োগ চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। এসব চুক্তির সম্মিলিত আর্থিক মূল্য তিন হাজার কোটি ডলারেরও বেশি। শুক্রবার মধ্যপ্রাচ্যের উপসাগর ও অন্যান্য অঞ্চলভুক্ত দেশগুলোর সরকারপ্রধানদের সাথে বৈঠক করেন শি জিনপিং। এ বৈঠকে উপস্থিতি ছিলেন কাতারের আমির, কুয়েতের যুবরাজ এবং মিসর, তিউনিশিয়া, জিবুতি, সোমালিয়া, মৌরিতানিয়া, ইরাক, মরক্কো, আলজেরিয়া, সুদান ও লেবাননের প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রীরা।
এ ছাড়া কুয়েতের যুবরাজ শেখ মেশাল আল সাবাহ, মিসরের প্রেসিডেন্ট আবদুল ফাত্তাহ আল-সিসি, ইরাকের প্রধানমন্ত্রী শিয়া আল-সুদানি, সুদানের শীর্ষ নেতা আবদুল ফাত্তাহ আল বুরহান এবং ফিলিস্তিনের প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাসের সাথে পৃথক বৈঠকও করেছেন জিনপিং। এসব বৈঠকে মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশের প্রযুক্তি, যোগাযোগ, তথ্যপ্রযুক্তিসহ বিভিন্ন খাতে বিনিয়োগের ব্যাপারে আলোচনা হয়েছে বলে রয়টার্সকে জানিয়েছেন বেইজিং ও রিয়াদের সরকারি কর্মকর্তারা।
সৌদির সাথে মিত্রতা আরো জোরদার
সৌদি আরবে প্রেসিডেন্টের সফরকালে দেশটির সাথে একগুচ্ছ কৌশলগত চুক্তি স্বাক্ষরের মাধ্যমে সম্পর্ক আরো গভীর করে তোলার ছবি স্পষ্ট করেছে চীন। সৌদি আরবে চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের সফরের মধ্যে বৃহস্পতিবার এসব চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। সৌদি বাদশাহ সালমান বিন আবদুল আজিজ শিয়ের সাথে একটি ‘ব্যাপক কৌশলগত অংশীদারিত্ব চুক্তিতে’ স্বাক্ষর করেন।
এসব চুক্তির মধ্যে বৃহৎ প্রযুক্তি কোম্পানি হুয়াওয়ের সাথে স্বাক্ষরিত একটি চুক্তিও আছে। পারস্য উপসাগরীয় অঞ্চলে হুয়াওয়ের বাড়তে থাকা প্রভাব যুক্তরাষ্ট্রের নিরাপত্তা উদ্বেগ বাড়িয়েছে। চীন ও সৌদির সংস্থাগুলো জলবায়ুবান্ধব জ্বালানি (গ্রিন এনার্জি), তথ্যপ্রযুক্তি, ক্লাউড সেবা, পরিবহন, নির্মাণ ও অন্যান্য খাতে বিনিয়োগের ৩৪টি চুক্তি স্বাক্ষর করে বলে জানিয়েছে সৌদি আরবের রাষ্ট্রায়ত্ত বার্তা সংস্থা এসপিএ। সৌদি আরবের গণমাধ্যমে প্রকাশিত এক উপসম্পাদকীয়তে শি বলেছেন, তিনি ‘আরব বিশ্ব, উপসাগরীয় আরব দেশগুলো এবং সৌদি আরবের সাথে চীনের সম্পর্কের একটি নতুন যুগ শুরু করতে’ একটি ‘সূচনা সফরে’ সেখানে গেছেন। চীন ও আরব দেশগুলো ‘অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ না করার নীতি উচ্চে তুলে ধরে রাখবে’ বলে যোগ করেন শি। যুবরাজ মোহাম্মদের ভাষ্যেও একই মনোভাব প্রতিফলিত হয়। তার দেশ ‘মানবাধিকারের নামে চীনের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপের’ বিরোধী, মোহাম্মদ এমনটি জানিয়েছেন বলে চীনের গণমাধ্যম সিসিটিভির খবরে জানানো হয়েছে।


আরো সংবাদ


premium cement