০৭ অক্টোবর ২০২২, ২২ আশ্বিন ১৪২৯, ১০ রবিউল আওয়াল ১৪৪৪ হিজরি
`

গাজায় অস্ত্রবিরতি

ইসরাইলি বিমান হামলায় বিধ্বস্ত ভবনে অক্ষত আসবাবপত্র সন্ধান করছে দুই ফিলিস্তিনি শিশু : এএফপি -

ইসলামিক জিহাদ ও ইসরাইল পৃথক বিবৃতিতে অস্ত্রবিরতির ঘোষণা দেয়
তিন দিনের হামলায় ১৫ শিশুসহ অন্তত ৪৪ জন নিহত

তিন দিনের সহিংসতায় ১৫ শিশুসহ অন্তত ৪৪ জন নিহত হওয়ার পর ইসরাইল ও ফিলিস্তিনের সশস্ত্র গোষ্ঠী ইসলামিক জিহাদ অস্ত্রবিরতির ঘোষণা দিয়েছে। এ অস্ত্রবিরতি কার্যকরের মাধ্যমে এক বছরেরও বেশি সময়ের মধ্যে গাজায় শুরু হওয়া সবচেয়ে গুরুতর সঙ্ঘাত বন্ধ হওয়ায় আশা জাগতে শুরু করেছে বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম। সাপ্তাহিক ছুটির দিনগুলোর পুরোটা সময়জুড়ে ইসরাইলি বাহিনীগুলো ফিলিস্তিনি লক্ষ্যস্থলগুলোতে একের পর এক আক্রমণ চালানোর পর স্থানীয় সময় রোববার রাত সাড়ে ১১টায় অস্ত্রবিরতি শুরু হলে হামলা বন্ধ হয়।
ইসলামিক জিহাদ ও ইসরাইল, উভয়পক্ষই পৃথক বিবৃতির মাধ্যমে অস্ত্রবিরতির ঘোষণা দেয় এবং এ বিষয়ে মধ্যস্থতার জন্য মিসরকে ধন্যবাদ জানায়। তিন দিনের এই সঙ্ঘাতে গাজার পূর্ববর্তী যুদ্ধের লক্ষণগুলো ফুটে উঠলেও আগের তুলনায় কিছুটা সীমিত এবং নিয়ন্ত্রণের মধ্যে ছিল। কারণ গাজার ক্ষমতাসীন দল হামাস এই সঙ্ঘাতে জড়িয়ে পড়া থেকে বিরত ছিল। হামাস ইরান-সমর্থিত ইসলামিক জিহাদ গোষ্ঠীর তুলনায় অনেক বেশি শক্তিশালী। গাজার স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, এ সঙ্ঘাতে ৪৪ জন ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছে, এদের অর্ধেকেই বেসামরিক এবং তাদের মধ্যে শিশুও রয়েছে।
অপর দিকে ইসলামিক জিহাদের ছোড়া রকেটগুলো ইসরাইলের দক্ষিণাঞ্চলে ভীতি ছড়িয়েছে এবং তেল আবিব ও আশকেলনসহ বিভিন্ন শহরের বাসিন্দাদের আশ্রয়কেন্দ্রে যেতে বাধ্য করেছে। গত সপ্তাহে ইসরাইল অধিকৃত ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীরের জেনিন থেকে ইসলামিক জিহাদের অন্যতম নেতা বাসাম আল সাদিকে গ্রেফতার করে ইসরাইলি বাহিনী। এই গ্রেফতারের প্রতিশোধ নিতে ইসলামিক জিহাদ হামলা চালাতে পারে ধারণা করে শুক্রবার গাজায় সশস্ত্র গোষ্ঠীটির অবস্থানে আগাম হামলা চালায় ইসরাইল। এর জবাবে ইসরাইল লক্ষ্য করে কয়েকশ রকেট ছোড়ে ইসলামিক জিহাদ।
ইরানের রাজধানী তেহরানে এক সংবাদ সম্মেলনে ইসলামিক জিহাদের নেতা জিয়াদ আল নাখলা জানান, কায়রো আল সাদিসহ তাদের গোষ্ঠীর দুই উচ্চপদস্থ নেতার ‘মুক্তির জন্য কাজ করবে’। ইসলামিক জিহাদ রকেট ছোড়া বন্ধ করলে তাদের দুই নেতারা মুক্তির দাবি নিয়ে ইসরাইল ‘আলোচনায়’ বসবে, এমন শর্তে অস্ত্রবিরতি হয়েছে বলে মিসরীয় কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। শনিবার গাজার রাফা শহরে একটি বাড়িতে বিমান হামলা চালিয়ে ইসলামিক জিহাদের (পিআইজে) জ্যেষ্ঠ নেতা খালেদ মনসুরকে হত্যা করে ইসরাইল।
এ দিন রাতে দ্বিতীয় আরেক পিআইজে নেতা তাসির জাবারিকেও হত্যা করে ইসরাইল। রোববার ইসলামিক জিহাদ তাদের রকেট হামলা সীমা জেরুসালেম পর্যন্ত বৃদ্ধি করে। তাদের দুই নেতারা হত্যার প্রতিশোধ হিসেবে এ হামলা চালানো হচ্ছে বলে জানায় পিআইজে।

 


আরো সংবাদ


premium cement