১৩ আগস্ট ২০২২
`

সুদানে সেনাশাসনবিরোধী বিক্ষোভে গুলি, নিহত ৮

পুলিশের কাঁদানে গ্যাস উপেক্ষা করে এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টায় সুদানের বিক্ষোভকারীরা : এএফপি -

সুদানে নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে কমপক্ষে ৮জন বিক্ষোভকারী নিহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার আফ্রিকার এ দেশটিতে সেনাশাসন বিরোধী বিক্ষোভে গুলিবর্ষণের পর প্রাণহানির এ ঘটনা ঘটে।
আট মাস আগে ক্ষমতা দখলকারী সামরিক নেতৃত্বের বিরুদ্ধে সমাবেশ করতে বৃহস্পতিবার সুদানের রাস্তায় নেমে আসে হাজারও মানুষ। এ সময় সেনাবাহিনীকে বেসামরিক সরকারের হাতে ক্ষমতা তুলে দেয়ারও দাবি জানান তারা। অবশ্য এ বিক্ষোভ রুখতে কঠোর নিরাপত্তা পদক্ষেপ নেয়াসহ যোগাযোগব্যবস্থা কার্যত বন্ধ করে দেয় দেশটির সরকার।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার বিকেলে বিপুলসংখ্যক বিক্ষোভকারী একত্রিত হয়ে প্রেসিডেন্ট প্রাসাদের দিকে এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে নিরাপত্তা বাহিনী তাদের বাধা দেয়। একপর্যায়ে বিক্ষোভকারীদের ওপর কাঁদানে গ্যাস নিক্ষেপ ও জলকামান ব্যবহার করে নিরাপত্তা কর্মীরা।
নিরাপত্তা বাহিনী কাঁদানে গ্যাস ও জলকামান দিয়ে বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে চাইলেও কাজ হয়নি। বিক্ষোভকারীরা প্রেসিডেন্ট প্যালেসের দিকে এগোতে থাকেন। তখন নিরাপত্তা বাহিনী গুলি চালায়। তাতেই অন্তত আটজন বিক্ষোভকারী মারা যান।
সেনা-অভ্যুত্থানের তৃতীয় বর্যপূর্তি উপলক্ষে এ বিক্ষোভের ডাক দেয়া হয়েছিল। স্বৈরাচারী নেতা ওমর আল-বাশিরের বিরুদ্ধে ছিল এ বিক্ষোভ। বিক্ষোভের ডাক দেয়ার পরই ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ করে দেয়া হয়। মূলত সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমকে ব্যবহার করে বিক্ষোভকারীরা যেন তাদের সংখ্যা বৃদ্ধি না করতে পারে, তার জন্য এ পদক্ষেপ নেয়া হয়েছিল। কিন্তু তা সত্ত্বেও খার্তুম ও তার পাশের দুই শহরে লাখখানেক বিক্ষোভকারী জমায়েত হন। সুদানের দুটি বেসরকারি ইন্টারনেট পরিষেবা প্রদানকারী সংস্থাকে নেট বন্ধের নির্দেশ দেয় কর্তৃপক্ষ।
এ ছাড়া সকাল থেকেই নিরাপত্তা বাহিনী রাজধানী ও তার পাশের দুই শহরের সাথে সংযোগরক্ষাকারী ব্রিজ বন্ধ করে দেয়। এর পরও প্রচুর মানুষ সেখানে জড়ো হন। তাদের ওপর নির্বিচারে কাঁদানে গ্যাসের শেল নিক্ষেপ করে নিরাপত্তা বাহিনী। জাতিসঙ্ঘের বিশেষ প্রতিনিধি চলতি সপ্তাহেই সুদানের সেনাবাহিনীকে সংযত থাকার আবেদন জানিয়েছিলেন। তিনি বলেছিলেন, বিক্ষোভকারীদের বিরুদ্ধে সহিংসতা কোনোভাবেই মেনে নেয়া হবে না। তবে সুদানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ওই বিবৃতির নিন্দা করে। তারা বলে, আগাম অনুমানের ওপর ভিত্তি করে বিবৃতি দেয়া হয়েছে। তার দায়িত্ব হলো সেনা নেতৃত্ব ও বেসামরিক গোষ্ঠীগুলোর মধ্যে আলোচনার পথ প্রশস্ত করা। তিনি তা করছেন না।

 


আরো সংবাদ


premium cement