১৩ আগস্ট ২০২২
`

বাইডেনের কার্বন নিঃসরণ কমানোর ক্ষমতা হ্রাস

-

গ্রিনহাউজ গ্যাসের নিঃসরণ কমাতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের ক্ষমতা সীমিত করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের সুপ্রিম কোর্ট। এর ফলে যুক্তরাষ্ট্রের পরিবেশবিষয়ক সুরক্ষা সংস্থা (ইপিএ) কিছু ক্ষমতা হারিয়েছে। মনে করা হচ্ছে, এটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের জলবায়ু পরিকল্পনার ওপর একটি বড় আঘাত।
সুপ্রিম কোর্টের এ রায়ের প্রতিক্রিয়ায় মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এটিকে একটি ‘বিধ্বংসী সিদ্ধান্ত’ বলে অভিহিত করেছেন।তবে তিনি বলেছেন যে এটি জলবায়ু সঙ্কট মোকাবেলার চেষ্টাকে দুর্বল করবে না। দেশটির পরিবেশবিষয়ক সুরক্ষা সংস্থার (ইপিএ) বিরুদ্ধে এ মামলা দায়ের করে ওয়েস্ট ভার্জিনিয়া। রিপাবলিকান নেতৃত্বাধীন অঙ্গরাজ্য ও দেশটির বৃহত্তম কয়লা কোম্পানির হয়ে ওয়েস্ট ভার্জিনিয়া মামলাটি দায়ের করে। তাদের দাবি, সব অঙ্গরাজ্যে নিঃসরণ কমানোর এখতিয়ার নেই ইপিএ’র। যুক্তরাষ্ট্রের ১৯টি অঙ্গরাজ্য নিজেদের বিদ্যুৎ খাত নিয়ে সংশয়ে ছিল। তাদের আশঙ্কা, কয়লা ব্যবহার বন্ধ করতে বাধ্য করা হবে এসব অঙ্গরাজ্যকে। এতে গুরুতর আর্থিক ব্যয় হবে। বিচারকদের মধ্যে ছয় জন রক্ষণশীল ও জীবাশ্ম জ্বালানি কোম্পানির পক্ষে রায় দেন। এর বিপক্ষে অবস্থান নেন তিনজন। রায়ে বলা হয়েছে, নিঃসরণ কমাতে এমন পদক্ষেপ নেয়ার এখতিয়ার নেই সংস্থাটির।
এ দিকে মিসৌরি অঙ্গরাজ্যের অ্যাটর্নি জেনারেল এরিক স্মিত এই রায়কে ‘বড় জয়’ বলে উল্লেখ করেছেন। সুপ্রিম কোর্ট যদিও ভবিষ্যতে এমন বিধিনিষেধ জারি করা থেকে ইপিএকে বাধা দেয়নি। কিন্তু বলেছেন, কংগ্রেসকে এ বিষয়ে সংস্থাটিকে স্পষ্টভাবে ক্ষমতা দিতে হবে। কংগ্রেস এর আগে ইপিএ’র কার্বন নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচি প্রত্যাখ্যান করে। সুপ্রিম কোর্টের এ রায়ে পরিবেশবাদী সংগঠনগুলো গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। তারা বলছে, জলবায়ু পরিবর্তনের নেতিবাচক প্রভাব ঠেকাতে কার্বন নিঃসরণ জরুরি। ২০০০ সালের পর মাত্র ৭ শতাংশ কার্বন নিঃসরণ কমাতে পেরেছে এসব রাজ্য। যেখানে ২০১৮ সালে কার্বন নিঃসরণের মাত্রা ছিল ৪৪ শতাংশ। পরিবেশ ও জলবায়ু বিষয়ে মার্কিন প্রচেষ্টাকে আরো বাড়ানোর অঙ্গীকার নিয়ে প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব নেন জো বাইডেন। অফিসে তার প্রথম দিনেই তিনি প্যারিস চুক্তিতে আবার যোগদানের জন্য নির্বাহী আদেশে স্বাক্ষর করেন। তিনি দেশের জনগণকে ২০৩০ সালের মধ্যে গ্রিনহাউজ নিঃসরণ ৫২ শতাংশ কমিয়ে আনার প্রতিশ্রুতি দেন।


আরো সংবাদ


premium cement