০৬ জুলাই ২০২২, ২২ আষাঢ় ১৪২৯, ৬ জিলহজ ১৪৪৩
`

অর্থ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব নিজেই নিলেন শ্রীলঙ্কার প্রধানমন্ত্রী

ব্যক্তিগত বাহনে তেল বিক্রিতে সীমা নির্ধারণ
-

কঠিন অর্থনৈতিক সঙ্কটে পড়া শ্রীলঙ্কার অতি গুরুত্বপূর্ণ অর্থ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমাসিংহে। বুধবার দেশটির প্রেসিডেন্টের দফতর থেকে দেয়া এক বিবৃতিতে বিষয়টি জানানো হয়েছে। একই সাথে দেশটির প্রধানমন্ত্রী ও অর্থমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন তিনি। মন্ত্রণালয়টির দায়িত্ব নেয়ায় প্রধানমন্ত্রী রনিল এখন আন্তর্জাতিক অর্থ তহবিলের (আইএমএফ) সাথে বেইলআউট নিয়ে আলোচনায় নেতৃত্ব দিতে পারবেন।
প্রেসিডেন্ট দফতর থেকে দেয়া বিবৃতিতে বলা হয়েছে, “আজ সকালে (বুধবার) প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমাসিংহে অর্থ, অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা ও জাতীয় নীতিমন্ত্রী হিসেবে প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপাকসের কাছে শপথ নিয়েছেন।” গত মঙ্গলবার রয়টার্সকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে বিক্রমাসিংহে অর্থনীতির জন্য তার আশু পরিকল্পনা তুলে ধরেন। তিনি জানান, আগামী ছয় সপ্তাহের মধ্যে অন্তর্বর্তী একটি বাজেট পেশ করা হবে আর তাতে সরকারি ব্যয় ‘যতটা সম্ভব’ কাটছাঁট করা হবে।
মঙ্গলবার বিশ্ব ব্যাংক জানিয়েছে, শ্রীলঙ্কা একটি পরিমিত অর্থনৈতিক নীতি কাঠামো প্রণয়ন না করা পর্যন্ত সেখানে নতুন করে কোনো অর্থায়নের পরিকল্পনা নেই তাদের। সাক্ষাৎকারে বিক্রমাসিংহে জানিয়েছেন, আইএমএফের কাছ থেকে একটি ‘টেকসই ঋণ প্যাকেজ’ আশা করছেন তিনি। আইএমএফের সাথে দেশটির প্রাথমিক আলোচনা মঙ্গলবার শেষ হয়েছে। চলতি সপ্তাহের প্রথম দিকে আইএমএফের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ক্রিস্টালিনা জর্জিয়েভা জানিয়েছেন, তারা শ্রীলঙ্কার বিষয়ে প্রায়োগিক পর্যায়ে ‘নিরলস কাজ করে চলছেন’।


শ্রীলঙ্কা তাদের সার্বভৌম বন্ডের দু’টি কিস্তি পরিশোধ করতে ব্যর্থ হওয়ার পর বিশ্বের অন্যতম বড় দু’টি ক্রেডিট রেটিং সংস্থা দেশটিকে আনুষ্ঠানিকভাবে ঋণখেলাপি বলে ঘোষণা করেছে। ১২ বিলিয়ন ডলারের বিদেশী ঋণ নিয়ে ফের আলোচনার মতো কঠিন কাজের প্রস্তুতি নিতে দ্বীপদেশটি বিশ্বের নেতৃস্থানীয় আর্থিক পরামর্শক প্রতিষ্ঠান লিজার্ড ও আইনি পরামর্শক প্রতিষ্ঠান ক্লিফোর্ড চ্যান্সকে নিয়োগ দিয়েছে।
এ দিকে চরম অর্থসঙ্কটের মধ্যে জ্বালানির ব্যবহার কমাতে ব্যক্তিগত গাড়িতে তেল বিক্রির সীমা নির্ধারণ করে দিলো শ্রীলঙ্কা। মঙ্গলবার সিলন পেট্রোলিয়াম করপোরেশন (সিপিসি) ও লঙ্কা আইওসির (এলআইওসি) পক্ষ থেকে এক ঘোষণায় মোটরসাইকেল, প্রাইভেটকারের মতো যানবাহনগুলোতে তেল বিক্রির সীমা নির্ধারণের কথা জানানো হয়েছে।
নতুন নিয়ম অনুসারে, দ্বীপরাষ্ট্রটিতে প্রতিটি মোটরসাইকেলে সর্বোচ্চ আড়াই হাজার রুপি, থ্রি-হুইলারে তিন হাজার রুপি এবং প্রাইভেটকার, ভ্যান ও জিপ গাড়িতে সর্বোচ্চ ১০ হাজার রুপির তেল বিক্রি করা যাবে। তবে বাস, লরি ও অন্যান্য বাণিজ্যিক পরিবহনের ক্ষেত্রে তেল বিক্রির কোনো সীমা নির্ধারিত নেই। দেশটিতে এর আগে গত ১৫ এপ্রিল ও ৫ মে অস্থায়ীভাবে তেল বিক্রি সীমাবদ্ধ করা হয়েছিল। এ দিকে শ্রীলঙ্কায় মঙ্গলবার থেকে আবারো বেড়েছে জ্বালানি তেলের দাম। গত দেড় মাসে এ নিয়ে দ্বিতীয়বার জ্বালানি তেলের দাম বাড়াল দেশটি।

 


আরো সংবাদ


premium cement