০৬ জুলাই ২০২২, ২২ আষাঢ় ১৪২৯, ৬ জিলহজ ১৪৪৩
`
বাঁধের মুখ খুলে দিয়েছে তালেবান সরকার

দুই দশক পর হেলমান্দ নদীর পানি পাচ্ছে ইরান

-

আফগানিস্তানের তালেবান সরকার হেলমান্দ নদীর উপর নির্মিত কামাল খান বাঁধের মুখ খুলে দিয়েছে। ফলে দুই দশক পর প্রতিবেশী ইরান এই নদীর পানির ন্যায্য হিস্যা পাচ্ছে। তালেবান সরকারের পদক্ষেপকে স্বাগত জানিয়েছেন ইরানের সরকারি কর্মকর্তারা। মঙ্গলবার বাঁধের মুখ খুলে দেয়া হয় এবং সেখান থেকে ইরানের দক্ষিণাঞ্চলীয় সিস্তান-বালুচিস্তান প্রদেশের হামুন হ্রদের দিকে পানি এগিয়ে চলেছে।
সিস্তান-বালুচিস্তান প্রদেশের গভর্নর হোসাইন মোদাররেস খিয়াবানি জানিয়েছেন, দুই থেকে তিন দিনের মধ্যে কামাল খান বাঁধের পানি ইরানের ভূখণ্ডে এসে পৌঁছাবে। তিনি বলেন, কামাল খান বাঁধের পানি ইরানকে লক্ষ্য করেই ছাড়া হয়েছে এবং এ ব্যাপারে আফগানিস্তানে নিযুক্ত ইরানি প্রেসিডেন্টের বিশেষ প্রতিনিধি, ইরানের জ্বালানি ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং আফগানিস্তানের স্থানীয় কর্মকর্তাদের মধ্যে আলোচনার পর এই বাঁধ খোলা হয়েছে।
কামাল খান বাঁধের পানি ছাড়ার পদক্ষেপকে ইরানি প্রেসিডেন্টের আফগান-বিষয়ক বিশেষ দূত হাসান কাজেমি কোমি স্বাগত জানিয়ে বলেন, ইরান এবং আফগানিস্তানের মধ্যে সম্প্রতি যে চুক্তি সই হয়েছে তার আলোকে তালেবান সরকার এই পদক্ষেপ নিয়েছে। সম্প্রতি আফগান পররাষ্ট্রমন্ত্রী আমির খান মুত্তাকি উচ্চপর্যায়ের একটি প্রতিনিধিদল নিয়ে ইরান সফর করেন এবং সে সময় বেশ কয়েকটি চুক্তি সই হয়।
১৯৭৩ সালে ইরান ও আফগানিস্তানের মধ্যে নদীর পানি বণ্টন প্রশ্নে একটি চুক্তি হয়। ওই চুক্তির আওতায় ইরান প্রতি বছর ৮০ কোটি ঘনমিটার পানি পাবে। কিন্তু আফগানিস্তানে মার্কিন দখলদারিত্বের পর দেশটির সরকারগুলো ইরানের পানির হিস্যা দিতে অস্বীকৃতি জানায় এবং কামাল খান বাঁধের মুখ বন্ধ করে দেয়। এর ফলে ইরানের সিস্তান-বালুচিস্তান প্রদেশ মারাত্মকভাবে পানিসঙ্কটের মুখে পড়ে এবং হামুন হ্রদ শুকিয়ে অনেকটা মরুভূমিতে পরিণত হয়। ইরানে হিরমান্দ নামে পরিচিত হলেও আফগানিস্তানে এ নদীকে হেলমান্দ নদী বলা হয়।


আরো সংবাদ


premium cement