১২ এপ্রিল ২০২১
`

চীনের আগ্রাসী ভূমিকায় মার্কিন হুঁশিয়ারি

-

ফিলিপাইন সীমান্তের কাছে চীনা জাহাজের উপস্থিতি এবং তাইওয়ানের আকাশসীমায় চীনের সেনাবাহিনীর যুদ্ধবিমান প্রবেশে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। মার্কিন পররাষ্ট্র দফতর চীনের এই যুদ্ধংদেহী গতিবিধির বিরুদ্ধে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছে। এর আগে ফিলিপাইন এবং তাইওয়ান চীনের এই ধরনের আচরণকে আগ্রাসী হিসেবে আখ্যায়িত করে।
বুধবার যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দফতরের মুখপাত্র নেড প্রাইস সাংবাদিকদের বলেন, ফিলিপাইনের সশস্ত্রবাহিনী বা সরকারি জাহাজের ওপর আক্রমণ, দক্ষিণ চীন সাগরসহ প্রশান্ত মহাসাগরীয় এলাকায় যুদ্ধজাহাজের উপস্থিতি যুক্তরাষ্ট্র-ফিলিপাইনের পারস্পারিক প্রতিরক্ষাচুক্তির আওতায় আমাদের বাধ্যবাধকতা বৃদ্ধি করবে।
গত ৭ মার্চ চীনের দুই শতাধিক জাহাজ ফিলিপাইনের এক্সক্লুসিভ ইকোনমিক জোনের ২০০ মাইলের কাছে পালাওয়ান দ্বীপের কাছে চিহ্নিত করা হয়। এরপর দক্ষিণ চীন সাগরজুড়ে চীনের ওই জাহাজগুলো ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়ে। এরপর সপ্তাহজুড়ে ম্যানিলা বেইজিংয়ের প্রতি সমুদ্র মিলিশিয়া প্রত্যাহারের আহ্বান জানায়। ফিলিপাইনের ভাষ্য, তাদের এক্সক্লুসিভ ইকোনমিক জোন এলাকায় চীনের আক্রমণ হেগের আন্তর্জাতিক আদালতের রায় অনুযায়ী অবৈধ।
সম্প্রতি এশিয়ার বিভিন্ন দেশে চীনা আগ্রাসন যুক্তরাষ্ট্রকে চিন্তিত করেছে। যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা দফতর পেন্টাগনের এক কর্মকর্তা বলেছেন, ইন্দো-প্রশান্ত অঞ্চলে চীন আরো বেশি আগ্রাসী ভূমিকা নিয়েছে।
.অঞ্চলটিতে চীনের ক্রমবর্ধমান সামরিক উপস্থিতি ও ঝুঁকি নেয়ার প্রবণতা বিশ্লেষণ করে এই মন্তব্য করেন মার্কিন উপপ্রতিরক্ষামন্ত্রী ড. ক্যাথলিন হিকস।



আরো সংবাদ