১৯ জানুয়ারি ২০২১
`

উপসাগরীয় সঙ্কট নিরসনে অগ্রগতির আভাস কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর

-

উপসাগরীয় চার দেশের সাথে কাতারের কূটনৈতিক বিরোধ নিরসনের চেষ্টা চলছে বলে জানিয়েছেন দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ বিন আবদুর রাহমান আলে-সানি। গতকাল শুক্রবার তিনি এ কথা জানান। তবে শিগগিরই কোনো সাফল্য আসছে কি না তা নিয়ে কোনো আগাম ধারণা দেননি তিনি।
কয়েক বছর ধরেই কাতারের ওপর অবরোধ আরোপ করে রেখেছে প্রতিবেশী চার দেশ। ২০১৭ সালের জুন মাসে কাতারের সাথে কূটনৈতিক সম্পর্ক ও যোগাযোগ ব্যবস্থা বন্ধ করে দেয় সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত, বাহরাইন ও মিসর। সন্ত্রাসবাদে অর্থায়নের অভিযোগে এই পদক্ষেপ নেয়া হয়। সম্পর্ক স্বাভাবিক করতে দেয়া হয় ১৩টি শর্ত। তবে প্রতিবেশী দেশগুলোর অভিযোগ বরাবর অস্বীকার করে শর্ত মানতে অস্বীকৃতি জানিয়ে আসছে কাতার। হোয়াইট হাউজ ছেড়ে যাওয়ার আগে বড় সাফল্য পেতে মধ্যপ্রাচ্য সঙ্কট মেটানোর নতুন নীতি গ্রহণ করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এই উদ্যোগ বাস্তবায়ন করতে মধ্যপ্রাচ্যে রয়েছেন ট্রাম্পের উপদেষ্টা ও জামাতা জ্যারেড কুশনার।
এমন পরিস্থিতিতে শুক্রবার কাতারের ডেপুটি প্রধানমন্ত্রী ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ বিন আবদুর রাহমান আলে-সানি বলেন, এই মুহূর্তে তৎপরতা চলছে, তা থেকে আমরা আশা করছি এই সঙ্কটের অবসান হবে। তিনি বলেন, আমাদের বিশ্বাস এই সঙ্কটের অবসান আঞ্চলিক নিরাপত্তা এবং আমাদের জনগণের ভাগ্যের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। পারস্পারিক শ্রদ্ধা এবং উপসাগরীয় অঞ্চলের সব মানুষের অধিকারের ভিত্তিতে এই সঙ্কটের অবসান হওয়া উচিত।
অবরোধ আরোপকারী চার দেশের দিকে ইঙ্গিত করে কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এই দেশগুলোর কোনোটিকেই আলাদা করে দেখে না দোহা। আমরা আশা করছি সবকিছু সঠিক পথেই এগোবে কিন্তু এখনো অনুমান করতে পারছি না এটা আসন্ন নাকি এক দিনেই নিরসন হয়ে যাবে।
কাতারের ওপর আরোপ করা শর্তগুলোর অন্যতম ছিল আল জাজিরা মিডিয়া নেটওয়ার্ক বন্ধ করে দেয়া। তবে আলে সানি বলেন, কোনো দেশই এখন অন্যের কাছে কোনো কিছু দাবি করছে না। কিছু মতপার্থক্য রয়েছে সেগুলো অতিক্রম করতে হবে। তিনি বলেন, কোনো মতভেদ থাকলে তা নিরসনে অবশ্যই আলোচনা হবে। সার্বভৌমত্বের ওপর পারস্পারিক শ্রদ্ধাবোধের ভিত্তিতে আমাদের সম্পর্ক তৈরি করা প্রয়োজন।
অনেকেই ধারণা করছেন অবরোধ আরোপকারী সবগুলো দেশ নয় বরং কয়েকটির সাথে বিরোধ নিরসন হতে পারে। তবে কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সেই ধারণার প্রতি সমর্থন জানাননি। তিনি বলেন, কাতার এবং চার দেশের মধ্যে মধ্যস্থতা করছে কুয়েত। যেকোনো প্রস্তাবই হতে হবে সামগ্রিক। সঙ্কটের অবসান হলেও এর প্রভাব মুক্ত হতে সময় লাগবে জানিয়ে কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, চুক্তি হলে চার দেশের সাথেই হবে, কেবল এক দেশের (সৌদি আরব) সাথে নয়। আমরা সঙ্কট সমাধান করতে সব মানুষের সম্পৃক্ততা এবং উপসাগরীয় ঐক্যের চেষ্টা করে যাচ্ছি।



আরো সংবাদ