০১ ডিসেম্বর ২০২০

মালয়েশিয়ায় জরুরি অবস্থা জারির প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান রাজার

মুহিউদ্দিনের পদত্যাগ দাবি বিরোধীদের
-

মালয়েশিয়ার রাজা দেশটিতে জরুরি অবস্থা জারির বিষয়টি নাকচ করে দিয়েছেন। এর ফলে গতকাল সোমবার প্রধানমন্ত্রী মুহিউদ্দিন ইয়াসিনের বিরুদ্ধে পদত্যাগের দাবি আরো জোরদার হয়ে উঠেছে। নতুন ধাপে করোনা বৃদ্ধি ও অর্থনৈতিক ধস ঠেকাতে জরুরি অবস্থা জারির অনুমতি চেয়েছিলেন মুহিউদ্দিন। কিন্তু প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে সমালোচকদের অভিযোগ, জরুরি অবস্থা জারি করে পার্লামেন্ট অধিবেশন স্থগিত রাখতে চান, যাতে পার্লামেন্টে তার সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণের বিষয়টি এড়ানো যায়।
মালয়েশিয়ার রাজা আল-সুলতান আবদুল্লাহর এই ঘোষণার পর মুহিউদ্দিনের ক্ষমতা হাতছাড়া হওয়ার পথে। কয়েক দিন আগেই বিরোধীদলীয় নেতা আনোয়ার ইব্রাহিম পার্লামেন্টে তার সংখ্যাগরিষ্ঠ সমর্থন আছে বলে ঘোষণা দিয়েছেন। এ ছাড়া তার জোট নতুন সরকার গঠনের মতো প্রয়োজনীয় সমর্থকদের একটি তালিকা রাজার কাছে জমা দিয়েছেন। গত রোববার মুহিউদ্দিনের অনুরোধ প্রত্যাখ্যান করে রাজা আল-সুলতান আবদুল্লাহ দেশটির রাজনীতিবিদদের সব ধরনের রাজনৈতিক খেলা বন্ধ করতে অনুরোধ জানিয়েছেন। এ সময় রাজা করোনা মহামারী মোকাবেলায় যথাযথ পদক্ষেপ নিতে সরকারকে নির্দেশ দেন।
কিন্তু অন্য দলগুলো, যারা মুহিদ্দিনের সাথে জোট গঠন করেছে তারা এবং বিরোধীরা দেশে জরুরি অবস্থা আহ্বান করার জন্য মুহিদ্দিনের সমালোচনা করেছেন। তার এ উদ্যোগ ব্যর্থ হওয়ার জন্য তাদের অনেকে তার পদত্যাগ দাবি করেছেন। তার জোটের সবচেয়ে বড় দল ইউনাইটেড মালয় ন্যাশনাল অর্গানাইজেশনের (উমানো) একজন সিনিয়র নেতা আহমদ ফুয়াদ জারকাশি বলেন, রাজনৈতিক খেলায় প্রভাবিত না হওয়ার জন্য রাজাকে ধন্যবাদ, যা দেশকে অস্থিতিশীল পরিস্থিতির দিকে নিয়ে যেতে পারত। তিনি বলেন, জনগণের মঙ্গল আরো গুরুত্বপূর্ণ। মুহিউদ্দিনের এখনই পদত্যাগ করা উচিত। বিরোধীদলীয় এমপি ওং চেন বলেছেন, মুহিদ্দিনের জরুরি অবস্থা জারির প্রস্তাব বিদ্বেষপূর্ণ। তার এই প্রস্তাবকে রাজা যথার্থভাবে প্রত্যাখ্যান করেছেন। এ জন্য প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগ করা উচিত অথবা ওইসব মন্ত্রীকে বরখাস্ত করা উচিতÑ যারা তাকে জরুরি অবস্থার প্রস্তাব দিয়েছেন।
সোমবার মুহিউদ্দিন ক্যাবিনেট মিটিং ডাকেন। গত রোববার দেয়া এক বিবৃতিতে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, রাজা অনুরোধ প্রত্যাখ্যান করার বিষয়টি ক্যাবিনেট মিটিংয়ে আলোচনা করা হবে।

 


আরো সংবাদ