২২ অক্টোবর ২০২০, ৭ কার্তিক ১৪২৪, ১ সফর ১৪৩৯

থাইল্যান্ডে রাজতন্ত্রের বিরুদ্ধে বিশাল মিছিল

-

থাইল্যান্ডের রাজা মাহা ভাজিরালংকর্নের রাজতন্ত্রকে প্রকাশ্যে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে রাজধানী ব্যাংককে মিছিল করেছেন হাজার হাজার প্রতিবাদকারী। গতকাল রোববার রাস্তায় নেমে আসা প্রতিবাদকারীরা রাজার ক্ষমতা খর্ব করাসহ বিভিন্ন দাবি জানিয়ে স্লোগান দেন।
থাইল্যান্ডের রাজপ্রাসাদ ও সামরিক কর্তৃত্বাধীন প্রশাসনের বিরুদ্ধে দুই মাস ধরে চলা বিক্ষোভ, সমাবেশের পর প্রতিবাদকারীরা আরো সাহসী হয়ে উঠেছে। রাজতন্ত্রের সমালোচনার বিষয়ে দীর্ঘদিন ধরে চলা নিষেধাজ্ঞা লঙ্ঘন করছে তারা, থাইল্যান্ডের আইন অনুযায়ী যা শাস্তিযোগ্য অপরাধ। এই প্রতিবাদের বিষয়ে তাৎক্ষণিকভাবে থাই রাজপ্রাসাদের কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি। এই মুহূর্তে রাজা ভাজিরালংকর্ন দেশে নেই। বিক্ষোভকারীরা মিছিল নিয়ে এগিয়ে যাওয়ার সময় শত শত নিরস্ত্র পুলিশ তাদের গতিরোধ করে। রয়্যাল গার্ড পুলিশ তাদের দাবিগুলো সদর দফতরে পৌঁছে দেয়ার বিষয়ে সম্মতি জানিয়েছে, এটি জানিয়ে প্রতিবাদের নেতারা ‘বিজয়’ ঘোষণা করেন। তাৎক্ষণিকভাবে পুলিশ কোনো মন্তব্য করেনি।
উপস্থিত জনতার উদ্দেশে অন্যতম নেতা পারিত ‘পেঙ্গুইন’ চিওয়ারাক বলেন, ‘দুই দিনে আমাদের সবচেয়ে বড় বিজয় এটিই যে আমাদের মতো সাধারণ মানুষও যে রাজার কাছে চিঠি পাঠাতে পারে সেটি দেখানো গেছে।’ প্রতিবাদের নেতাদের মধ্যে আরেকজন জানিয়েছেন, রাজা ভাজিরালংকর্নের কাছে দেয়ার জন্য অনেকগুলো দাবি সংবলিত একটি চিঠি রয়্যাল গার্ড পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেছেন তারা। পানুসাইয়া সিথিজিরাওয়াত্তানাকুল সাংবাদিকদের জানান, চিঠিটি পুলিশ সদর দফতরে পাঠিয়ে দেয়া হবে বলে জানিয়েছে পুলিশ।
প্রতিবাদকারীদের দাবির মধ্যে রাজতন্ত্রের ক্ষমতা খর্ব করাসহ সাবেক জান্তা প্রধান প্রায়ুথ চান ওচাকে প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে অপসারণের পাশাপাশি নতুন সংবিধান ও নির্বাচনের কথা বলা হয়েছে। শনিবার ব্যাংককের একটি পার্কে কয়েক বছরের মধ্যে সবচেয়ে বড় প্রতিবাদ সমাবেশে হাজার হাজার প্রতিবাদকারী এসব দাবির প্রতি সমর্থন জানিয়ে স্লোগান দেয়। তারা রাতভর এই পার্কে অবস্থান করে ভোরে সূর্য ওঠার পর রাজধানীর গ্র্যান্ড প্যালেসের কাছে সানাম লুয়ং (রয়্যাল ফিল্ড) এলাকায় একটি ফলক স্থাপন করে।
এই ফলকে লেখা হয়েছে, ‘এই স্থানে জনতা তাদের মনোভাব ব্যক্ত করেছে : এই দেশটি জনগণের এবং এটি রাজার সম্পত্তি নয় যেমনটি বলে তারা আমাদের প্রতারিত করছে।’ পুলিশ এখানে কোনো ধরনের হস্তক্ষেপ করেনি। সরকারের মুখপাত্র আনুচা বুরাপাচাইশ্রি জানিয়েছেন, পুলিশ প্রতিবাদকারীদের বিরুদ্ধে সহিংস কোনো পদক্ষেপ নিবে না এবং বেআইনি বক্তব্যের বিষয়ে কোনো মামলা করবে কি না তা পুলিশই ঠিক করবে। ‘সামন্ততন্ত্র নিপাত যাক, জনগণ দীর্ঘজীবী হোক,’ সমাবেশ ও মিছিলে এমন স্লোগান দিয়েছেন প্রতিবাদকারীরা।

 


আরো সংবাদ

২০২০ সালের পঞ্চম শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের প্রস্তুতি : পর্বসংখ্যা-৯৫ বাংলা নাটক : অবাক জলপান অষ্টম শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের প্রস্তুতি : বিজ্ঞান ষষ্ঠ অধ্যায় : পরমাণুর গঠন অষ্টম শ্রেণীর প্রস্তুতি : বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয় অধ্যায়-৫ : সামাজিকীকরণ ও উন্নয়ন নবম-দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের লেখাপড়া : বাংলা দ্বিতীয়পত্র অস্ত্র মামলায় গজারিয়ার আ’লীগ নেতা ও তার ভাই তিন দিনের রিমান্ডে বহিষ্কৃত আ’লীগ নেতা এনু-রুপনের জামিন আবেদন খারিজ ঢাবির উন্নয়ন ফি প্রত্যাহার চেয়ে ভিসিকে ছাত্রলীগের স্মারকলিপি কবি ফররুখ আহমদের মৃত্যুবার্ষিকী পালিত বাংলাদেশ লেবার পার্টির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী আজ আলুর দাম নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা ভুল সিদ্ধান্ত : জি এম কাদের

সকল