Naya Diganta

শাবিপ্রবি শিক্ষার্থী খুন : ছুরিকাঘাতে হার্ট ছিদ্র হয়ে যায় বুলবুলের

শাবিপ্রবি শিক্ষার্থী খুন : ছুরিকাঘাতে হার্ট ছিদ্র হয়ে যায় বুলবুলের

ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে হার্ট ছিদ্র হয়ে গিয়েছিল শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র বুলবুল আহমদের। বুকে আঘাত করার পর ছুরিটি তার হার্ট ভেদ করে যায়। এছাড়া বুলবুলের পিঠে, ডান হাতের বাহুতেও আঘাত করা হয়। ছুরিকাঘাতের ১৫ মিনিটের মধ্যে মৃতুর‌্য কোলে ঢলে পড়েন বুলবুল আহমেদ। তার শরীরে ছুরি দ্বারা তিনটি আঘাত করে ছিনতাইকারীরা। এসব তথ্য গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন লাশের ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসক ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সহযোগী অধ্যাপক মো: শামসুল ইসলাম।

তিনি জানান, বুলবুলের বুকের বা পাশের একটি আঘাত ছিল গুরুতর, হার্ট ফুটো হয়ে গিয়েছিল। এ কারণে তার মৃত্যু হয়েছে। আঘাতের ১৫ মিনিটের মধ্যেই বুলবুলের মৃত্যু হয়। এর আগে মঙ্গলবার ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে বুলবুলের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়। বুধবার ময়নাতদন্তের প্রাথমিক প্রতিবেদন পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেন চিকিৎসকরা।

প্রসঙ্গ গত সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের পাশের গাজিকালুর টিলার পাশে ছুরিকাঘাতে খুন হন শাবিপ্রবির লোক প্রশাসন বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র বুলবুল আহমদ। তখন টিলায় তার সাথে ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রীও ছিলেন। এ ঘটনায় ওই রাতেই বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার মুহাম্মদ ইশফাকুল হোসেন জালালাবাদ থানায় একটি মামলা করেন।

এদিকে গ্রেফতারকৃত আবুল হাসানের পর শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) শিক্ষার্থী মো: বুলবুল আহমদ হত্যা মামলার অপর দুই আসামি আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় তারা সিলেট মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট-২-এর বিচারক সুমন ভূঁইয়ার আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন বলে নিশ্চিত করেছেন সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের মুখপাত্র বিএম আশরাফ উল্লাহ তাহের।

স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয় মামলার দুই আসামি শাবিপ্রবির পেছনের টিলাগাঁওয়ের মো: গোলাব আহমদের ছেলে কামরুল আহমদ (২৯), একই গ্রামের মৃত তছির আলীর ছেলে মো: হাসান (১৯)। এর আগে বুধবার সন্ধ্যায় এ মামলার আসামি শাবির পেছনের টিলাগাঁওয়ের আনিছ আলীর ছেলে আবুল হোসেন (১৯) স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন।

উল্লেখ্য, গত সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের পাশে গাজীকালুর টিলার পাশে (নিউজিল্যান্ড এলাকায়) ছুরিকাঘাত করা হয় শাবিপ্রবির লোক প্রশাসন বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী বুলবুল আহমদকে (২২)। তাকে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। বুলবুলের বাড়ি নরসিংদী সদরের নন্দীপাড়া গ্রামে। তিনি শাহপরান হলের ২১৮ নম্বর কক্ষে থাকতেন।