Naya Diganta

পোয়াং হ্রদের ডাক

পোয়াং হ্রদের ডাক

পোয়াং হ্রদের কথা বলছি। এটি যেন বিশাল চীনা ভূখণ্ডের মাঝে এক উজ্জ্বল মুক্তোদানা। হাজার হাজার বছর ধরে জিয়াংসি প্রদেশের মানুষ হ্রদটি নানা কাজে ব্যবহার করে আসছে। আর প্রাচীনকাল থেকেই এর প্রাকৃতিক সৌন্দর্য অসংখ্য পর্যটককে আকর্ষণ করছে। এটি চীনের সবচেয়ে বড় মিঠা পানির হ্রদ। ইয়াংসি নদীর দক্ষিণ তীরে এ হ্রদের অবস্থান।
পোয়াং পর্বতের নামানুসারে হ্রদের নাম হয়েছে পোয়াং। হ্রদটির কাছেই এ পর্বতের অবস্থান।
অনেক ভৌগোলিক পরিবর্তনের মাঝ দিয়ে এখন পোয়াং হ্রদের দক্ষিণ দিক প্রশস্ত এবং উত্তর দিক সরু- ইয়াংসি নদীর কোমরে যেন বিশাল এক লাউ বেঁধে রাখা হয়েছে।
পোয়াং হ্রদ প্রায় পাঁচ লাখ পাখির আশ্রয়স্থল এবং এটি অনেক পাখি-পর্যবেক্ষণকারীর জন্য একটি সুন্দর গন্থব্যস্থল।
এ হ্রদের পানির উৎস গ্যান ও জিউ নদী। একটি গতিপথের মাধ্যমে নদী দু’টির ইয়াংসির সাথে সংযোগ রয়েছে।
পোয়াং হ্রদে বিরল প্রজাতির এক ধরনের পাখনা ছাড়া ডলফিন দেখা যায়। স্থানীয় ভাষায় এগুলোকে বলে জিয়াংঝু। এ প্রাণীর মূল বাসস্থান এ হ্রদ। ২০০৭ সালে আশঙ্কাজনকভাবে জিয়াংঝু কমে যায়।
সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের জন্যও এ হ্রদের পরিচিতি রয়েছে। ইতিহাসে আছে প্রাচীনকালে এ হ্রদে বড় ধরনের একটি নৌযুদ্ধ সংঘটিত হয়েছিল। কারো কারো মতে, এটি বিশ্বের অন্যতম বিশাল নৌযুদ্ধ। য়ুয়ান রাজবংশের (১২৭৯-১৩৬৮) শেষের দিকে এক কৃষক বিদ্রোহ সংঘটিত হয় সম্রাটের বিরুদ্ধে। ঝু য়ুংঝ্যাং ও চেন ইউলিয়াংয়ের নেতৃত্বে দু’টি সেনাদল পোয়াং হ্রদের কাংশান দ্বীপের চারপাশে ভয়াবহ নৌযুদ্ধে অবতীর্ণ হয়। যুদ্ধে ঝুয়ের কাছে চেন পরাজিত হয় আর ঝু গোটা চীনকে পুনরেত্রীকরণের ভিত্তি স্থাপন করেন।
পোয়াং হ্রদের আয়তন বর্ষকালে প্রায় চার হাজার ৪০০ বর্গকিলোমিটার এবং শুষ্ক মৌসুমে মাত্র এক হাজার বর্গকিলোমিটার। হ্রদের দৈর্ঘ্য সর্বোচ্চ ১৭০ কিলোমিটার এবং প্রশস্ততা সর্বোচ্চ ১৭ কিলোমিটার। গড় গভীরতা ৮.৪ মিটার এবং সর্বোচ্চ গভীরতা ২৫.১ মিটার। হ্রদের ক্যাচমেন্ট প্রায় ১ লাখ ৬২ হাজার ২২৫ বর্গকিলোমিটার; অর্থাৎ এই পরিমাণ জায়গার বৃষ্টির পানি হ্রদটি ধারণ করতে পারে। এর পানির আয়তন প্রায় ২৯৫ ঘন কিলোমিটার।