Naya Diganta

প্রথম বিদেশী সাহায্য পৌঁছেছে টোঙ্গায়

অতি প্রয়োজনীয় পানি এবং অন্য সামগ্রী নিয়ে প্রথম বিদেশী ত্রাণবাহী প্লেন টোঙ্গায় পৌঁছেছে। নিউজিল্যান্ড জানিয়েছে তাদের সামরিক প্লেন সুনামি বিধ্বস্ত প্রশান্ত মহাসাগরের দ্বীপ দেশটির মূল এয়ারপোর্টে নেমেছে। রানওয়ে থেকে আগ্নেয় ছাই সরানোর পর বিমানটি নামতে সক্ষম হয়। নিউজিল্যান্ড এবং অস্ট্রেলিয়ার পাঠানো অন্য বিমান ও জাহাজ পথে রয়েছে।
গত শনিবার অগ্ন্যুৎপাতের কারণে সৃষ্ট সুনামি আঘাত হানার পর মঙ্গলবার প্রথমবারের মতো ক্ষয়ক্ষতির তথ্য প্রকাশ করেছে টোঙ্গা সরকার। এতে বলা হয়, দেশটি নজিরবিহীন দুর্যোগে আক্রান্ত হয়েছে। দুই স্থানীয় এবং এক ব্রিটিশ নাগরিকের মৃত্যুর তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে। অগ্ন্যুৎপাতের কারণে সমুদ্রের তলদেশের একটি ক্যাবল ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় ইন্টারনেট ও টেলিফোন সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে বাকি দুনিয়ার থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে টোঙ্গা। পাঁচ দিনেও সেই যোগাযোগ প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব হয়নি।
উদ্ধারকারী এবং শত শত স্বেচ্ছাসেবকের চেষ্টায় রানওয়েতে ছড়িয়ে থাকা ছাই সরানো সম্ভব হয়। এরপরেই দেশটির ত্রাণবাহী সামরিক বিমান টোঙ্গায় পৌঁছায়। নিউজিল্যান্ডের যৌথ বাহিনীর কমান্ডার অ্যাডমিরাল জিম গিলমার জানান, বৃহস্পতিবার তাদের সি-১৩০ হারকিউলিস বিমান টোঙ্গায় অবতরণ করে। ওই বিমানে পানির পাত্র, অস্থায়ী আশ্রয় কেন্দ্র নির্মাণসামগ্রী, জেনারেটর, পরিচ্ছন্নতা এবং যোগাযোগ সামগ্রী রয়েছে। অস্ট্রেলিয়া জানিয়েছে তাদের দু’টি বোয়িং সি-১৭ গ্লোবমাস্টার বিমান বৃহস্পতিবার টোঙ্গায় পৌঁছাবে। দু’টি বিমানেই রানওয়ে পরিষ্কারের সরঞ্জাম ছাড়াও জরুরি ত্রাণ রয়েছে।