Naya Diganta

বিপর্যয় রোধে আফগান তহবিল মুক্ত করতে গুতেরেসের আহ্বান

ক্ষুধা মেটাতে শুকনো আটা খাচ্ছে আফগান এক পরিবারের শিশুরা

আফগানিস্তানে বিপর্যয় রোধ করতে যুক্তরাষ্ট্র ও বিশ্বব্যাংকের কাছে থাকা আফগান তহবিল মুক্ত করে দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন জাতিসঙ্ঘের মহাসচিব অ্যান্টোনিও গুতেরেস।

বৃহস্পতিবার যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে সাংবাদিকদের সাথে কথা বলতে গিয়ে এই আহ্বান করেন তিনি।

গত বছর আগস্টে আফগানিস্তানে তালেবানের নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠার পর থেকেই এই তহবিল আটকে দেয়া হয়।

জাতিসঙ্ঘের মহাসচিব অ্যান্টোনিও গুতেরেস এমন সময় এই মন্তব্য করলেন যার দুই দিন আগেই জাতিসঙ্ঘের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিলো, আফগানিস্তানে ২০২২ সালে সহায়তার জন্য পাঁচ শ’ কোটি টাকা প্রয়োজন।

তিনি বলেন, ‘আমাদের অবশ্যই অর্থনীতিতে তারল্য আনতে হবে এবং লাখ লাখ মানুষকে দারিদ্র, ক্ষুধা ও দুর্দশার দিকে ঠেলে দেয়া বিপর্যয় এড়াতে হবে।’

গুতেরেস বলেন, ‘শীতল তাপমাত্রা ও জব্দ অর্থ আফগানিস্তানের জনগণের জন্য প্রাণঘাতী সমন্বয়।’

ত্রাণ সংস্থাগুলোর তথ্য অনুসারে, ২০২২ সালে আফগানিস্তানে ৪৭ লাখ মানুষ পুষ্টিহীনতায় ভুগতে পারে।

ওয়াশিংটন আফগান সেন্ট্রাল ব্যাংকের প্রায় নয় শ’ ৫০ কোটি ডলার তহবিল জব্দ করে রেখেছে।

অপরদিকে তালেবানের ক্ষমতায় আসার পরপরই দেশটিতে আন্তর্জাতিক অর্থ তহবিল (আইএমএফ) ও বিশ্বব্যাংকের চলমান বিভিন্ন সহায়তা কার্যক্রম স্থগিত করা হয়। সাথে সাথে গত বছরের আগস্টে আইএমএফের আফগানিস্তানের জন্য ৩৪ কোটি ডলারের নতুন বরাদ্দ বাতিল করা হয়।

২০২০ সালে কাতারের দোহায় যুক্তরাষ্ট্রের সাথে তালেবানের চুক্তি অনুসারে দেশটি থেকে বহুজাতিক বাহিনী প্রত্যাহার করে নেয়া হয়। চুক্তি অনুসারে আফগান সরকারের সাথে তালেবানের আলোচনার মাধ্যমে দেশে শান্তি প্রতিষ্ঠার কথা থাকলেও উভয়পক্ষের মধ্যে আলোচনায় ঐক্যমত প্রতিষ্ঠিত না হওয়ায় গত বছরের মে মাস থেকে তালেবান আফগান সরকারের কাছ থেকে দেশের নিয়ন্ত্রণ নিতে থাকে।

মধ্য আগস্টেই কাবুল পৌঁছে যায় তালেবান যোদ্ধারা। তালেবান যোদ্ধারা অগ্রসর হতে থাকায় ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান ছেড়ে পালিয়ে যান প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনি। গনির কাবুল ছেড়ে পালিয়ে যাওয়ার জেরে আফগান প্রশাসন ভেঙে পড়ায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ওই দিনই কাবুলে প্রবেশ করে তালেবান যোদ্ধারা।

সূত্র : টিআরটি ওয়ার্ল্ড